আজঃ শনিবার ০২ মার্চ 2০২4
শিরোনাম

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সিভিল বিভাগে চাকরি সুযোগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
চাকরির খবর

Image

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সিভিল বিভাগে অফিসার পদে চিকিৎসক নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর ৮৩তম ডিএসএসসি (এএমসি) এবং ৬৯তম ডিএসএসসি (এডিসি) কোর্সে অফিসার পদে নারী ও পুরুষ নিয়োগ দেওয়া হবে।

আবেদনের শিক্ষাগত যোগ্যতা

আর্মি মেডিকেল কোর (নারী/পুরুষ): এমবিবিএস ডিগ্রিসহ ইন্টার্নশিপ সম্পন্নকারী হতে হবে। প্রার্থীকে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত হতে হবে। ইংরেজি মাধ্যমের প্রার্থী হলে ও লেভেলে ছয়টি বিষয়ের মধ্যে তিনটিতে গ্রেড, তিনটিতে বি গ্রেড এবং এ লেভেলে দুটি বিষয়ের মধ্যে একটিতে গ্রেড ও একটিতে বি গ্রেড পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে।

আর্মি ডেন্টাল কোর (নারী/পুরুষ): বিডিএস ডিগ্রিসহ ইন্টার্নশিপ সম্পন্নকারী হতে হবে। প্রার্থীকে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত হতে হবে। ইংরেজি মাধ্যমের প্রার্থী হলে ও লেভেলে ছয়টি বিষয়ের মধ্যে তিনটিতে গ্রেড, তিনটিতে বি গ্রেড এবং এ লেভেলে দুটি বিষয়ের মধ্যে একটিতে গ্রেড ও একটিতে বি গ্রেড পেয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে।

বয়সসীমা

২০২৪ সালের ১ জুলাই অনূর্ধ্ব ২৮ বছর (অ্যাফিডেভিট গ্রহণযোগ্য নয়)।

শারীরিক যোগ্যতা

পুরুষ প্রার্থীদের জন্য উচ্চতা ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি, বুকের মাপ স্বাভাবিক ৩০ ও প্রসারণে ৩২ ইঞ্চি, ওজন ৫৭ কেজি। নারী প্রার্থীদের জন্য উচ্চতা ৫ ফুট ১ ইঞ্চি, বুকের মাপ স্বাভাবিক ২৮ ও প্রসারণে ৩০ ইঞ্চি, ওজন ৪৯ কেজি।

যেভাবে আবেদন করবেন

আগ্রহী প্রার্থীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে হোমপেজের ওপরে ডান কোনায় APPLY NOWতে ক্লিক করে বর্ণিত কোর্সে APPLY করতে হবে। আবেদনকারী প্রার্থীরা ট্রাস্ট ব্যাংক টি-ক্যাশ, ভিসা/মাস্টারকার্ড, বিকাশ, নগদ, রকেট ইত্যাদির মাধ্যমে এক হাজার টাকা আবেদন ফি ও এক হাজার টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি বাবদ মোট দুই হাজার টাকা প্রদান করতে হবে। আবেদন প্রক্রিয়াতেই ওয়েবসাইটে বর্ণিত পদ্ধতি অনুসরণ করে আবেদন ফি প্রদান করা যাবে এবং তাৎক্ষণিকভাবে লিখিত পরীক্ষার জন্য কলআপ লেটার পাওয়া যাবে। অনলাইনে আবেদন করতে কোনো অসুবিধা হলে ওয়েবসাইটে দেখানো কাস্টমার সাপোর্ট নম্বরে (০১৭১৩১৬১৯৭৯) সরাসরি যোগাযোগ করা যাবে।

সুযোগ-সুবিধাসমূহ

সরকার কর্তৃক নির্ধারিত অন্যান্য সুবিধাসহ সশস্ত্র বাহিনীর বেতনক্রম অনুযায়ী প্রশিক্ষণার্থী অফিসাররা বেতন ও ভাতা পাবেন। কমিশনপ্রাপ্ত অফিসাররা ব্যক্তিগত যোগ্যতার ভিত্তিতে উচ্চতর শিক্ষা ও বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ পাবেন। নিরাপদ ও মনোরম পরিবেশে মানসম্পন্ন সুসজ্জিত বাসস্থান প্রাপ্তির সুযোগ পাবেন।

সামরিক হাসপাতালগুলোতে উন্নত মানের চিকিৎসা-সুবিধা ও দুরারোগ্য ব্যাধিতে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন হলে বিধি মোতাবেক নগদ অর্থ প্রদানসহ বিদেশে সুচিকিৎসার সুযোগ পাবেন। নিজ সন্তানদের জন্য ক্যাডেট কলেজ, আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল কলেজ, মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস (বিউইপি) এবং সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে পরিচালিত স্কুল বা কলেজে অধ্যয়নের সুযোগ রয়েছে।

আবেদনের শেষ সময় ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪।


আরও খবর
সিটি গ্রুপে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

৫৫১ পদে রেলওয়েতে বড় ধরনের নিয়োগ

শুক্রবার ১২ জানুয়ারী ২০২৪




বিশ্বের দুর্লভ পাসপোর্টের অধিকারী মাত্র ৫০০ জন!

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাসপোর্ট হাতে পাওয়া মানে যেন চোখজুড়ে বিশ্ব ঘুরে দেখার এক সুবর্ণ সুযোগ। পাসপোর্টের মধ্যেও আছে শ্রেণিবিভাগ। যার ওপর নির্ভর করে সুযোগ-সুবিধা। বিশ্বে এমন বিরল পাসপোর্ট রয়েছে যার অধিকারী মাত্র ৫০০ জন। বিস্ময়কর এ তথ্য জানিয়েছে ভারতের সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

পাসপোর্টের মাধ্যমেই রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, কূটনৈতিক সম্পর্ক, অর্থনৈতিক আঞ্চলিক চুক্তির মতো বিষয়গুলো প্রকাশ পায়। বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী পাসপোর্টের মধ্যে অন্যতম হলো জাপানের পাসপোর্ট। দেশটির পাসপোর্টধারীরা ১৯৩টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশের সুবিধা পেয়ে থাকেন।

তবে বিশ্বের সবচেয়ে দুর্লভ পাসপোর্ট হলো মাল্টার সার্বভৌম সামরিক আদেশের পাসপোর্ট। এ দেশটি জাতিসংঘের পর্যবেক্ষক মর্যাদা এবং সংবিধানসহ সার্বভৌম জাতি হিসেবে স্বীকৃত। এ দেশটির গাড়ির লাইসেন্স, মুদ্রা, পাসপোর্টসহ সবই অনন্যা বৈশিষ্টের।

১৩০০-এর দশকে অর্ডার অব মাল্টা বিদেশি মিশনে আসা কূটনীতিকদের প্রাথমিক পাসপোর্ট ইস্যুকারী দেশ ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এ কূটনৈতিক পাসপোর্ট বিবর্তিত হয়। বিশ্বব্যাপী বর্তমানে প্রায় ৫০০ কূটননৈতিক পাসপোর্ট রয়েছে। এ ধরনের পাসপোর্ট অস্তিত্বের প্রতীক এবং বিরলতম পাসপোর্ট হিসেবে পরিচিত। লাল রঙের এ পাসপোর্ট সার্বভৌম কাউন্সিলের সদস্য, কূটনৈতিক মিশনের নেতা ও তাদের পরিবারের জন্য একচেটিয়াভাবে সংরক্ষিত।

দেশটির এক কর্মকর্তা জানান, কূটনৈতিক এ পাসপোর্ট শেনজেন সদস্যদের দুই তৃতীয়াংশ দ্বারা স্বীকৃত। আনুষ্ঠানিক কূটনৈতিক সম্পর্ক ছাড়াও এ আদেশ ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সম্পৃক্ত।

বর্তমানে মাল্টার সার্বভৌম আদেশ ১২০টি দেশে সক্রিয়ভাবে নিযুক্ত রয়েছে। চিকিৎসা, সামাজিক এবং মানবিক উদ্যোগের মাধ্যমে মাল্টা এসব দেশের সঙ্গে নিজেদের সম্পর্ক প্রসারিত করেছে। যদিও যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং নিউজিল্যান্ডসহ বেশ কিছু দেশে এ পাসপোর্টের স্বীকৃতি মেলেনি। তবে বিশ্বের ১২টি দেশে এ পাসপোর্টের স্বীকৃতি রয়েছে। এর বাইরেও সার্বভৌম সত্ত্বা হিসেবে এ পাসপোর্টকে বিবেচনা করা হয়।


আরও খবর



‘স্বাস্থ্যখাতে এত অসঙ্গতির দায় মন্ত্রী হিসেবে এড়াতে পারি না’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

স্বাস্থ্যখাতে যত অসঙ্গতি, তার সবকিছুর দায় নিজের মাথায় নিয়ে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। তিনি বলেন, স্বাস্থ্যখাতে এত যে অসঙ্গতি, এর কোনোটার দায়ই মন্ত্রী হিসেবে এড়ানো সম্ভব নয়। দায় মাথায় নিয়েই কাজ করতে হবে।

আজ মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে নিজ দপ্তরের বাইরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন তিনি।

এ সময় অবৈধ ক্লিনিক-হাসপাতালের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অবৈধ হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে। যেকোনো দিন মন্ত্রী হিসেবে অভিযানে আমি যাব।

অভিযানে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি নিয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ভুল জায়গায় চিকিৎসা নেওয়ার চেয়ে চিকিৎসা না নেওয়া ভালো। সঠিক জায়গায় চিকিৎসা নেওয়া উচিত সবার।

ওষুধ ও হার্টের মূল্য নিয়ন্ত্রণ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ওষুধ ও হার্টের রিং, উভয়ের দাম নির্ধারণেই বৈঠক বসেছে। তবে দাম কমাতেই হবে।


আরও খবর



টাইমড আউটের ইতিহাস গড়া আম্পায়ার এরাসমাসের অবসর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

গেল ওয়ানডে বিশ্বকাপে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথমবারের মতো টাইমড আউট হয়েছিলেন শ্রীলঙ্কান অলরাউন্ডার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। তাকে আউট দেওয়া আম্পায়ার মারাইস এরাসমাস এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আম্পায়ারিংকে বিদায় বললেন। বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) ভোরে ওয়েলিংটনে শুরু হওয়া নিউজিল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া টেস্টই হবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আইসিসির এলিট প্যানেলের এই দক্ষিণ আফ্রিকানের শেষ ম্যাচ।

ক্রিকেটবিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকবাজে অবসর বিষয়ে ৬০ বছর বয়সী এরাসমাস বলেন, সিদ্ধান্তটা আমি গত বছরের অক্টোবরে নিয়েছি। আইসিসিকে সেটা জানিয়েও দিয়েছি যে এপ্রিলে আমার চুক্তির মেয়াদ শেষ হলে আর থাকছি না।

এরাসমাস তার ১৮ বছরের আম্পায়ারিং ক্যারিয়ারে দুটি ওয়ানডে বিশ্বকাপ ফাইনাল পরিচালনার দায়িত্ব সামলেছেন। এছাড়া মেলবোর্নে ২০১৫ ফাইনালে ছিলেন টিভি আম্পায়ার। আর চার বছর পর লর্ডসে বেয়ারেস্ট অব অল মার্জিনস-এর ফাইনালে ছিলেন মাঠেই। ভালো আম্পায়ারিংয়ের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০১৬, ২০১৭ ও ২০২১ সালে আইসিসি বর্ষসেরা আম্পায়ারের পুরস্কার (ডেভিড শেফার্ড ট্রফি) জেতেন তিনি।

এরাসমাস অবশ্য একটি জায়গায় সব আম্পয়ার থেকে আলাদা হয়ে আছেন। ভারতে অনুষ্ঠিত ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ-শ্রীলংকা ম্যাচে সাকিব আল হাসানের আবেদনে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসকে টাইমড আউট দিয়ে ইতিহাসের সাক্ষী হয়েছেন তিনি। কেননা ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথমবার এমন আউটের ঘটনা ঘটে।

অবসর প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, এ কাজ করতে গিয়ে সবচেয়ে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয় সঠিক সিদ্ধান্ত জানানোর মুহূর্তে। এটা সব সময় কঠিন এবং বিশেষ ব্যাপার। কাজটা ঠিকভাবে করতে পারলে আনন্দ লাগে।

এর আগে ২০০৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে জোহানেসবার্গে অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকা টি-টোয়েন্টি ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আম্পায়ারিংয়ের অভিষেক হয় এরাসমাসের। তিন সংস্করণে সব মিলিয়ে তিনি ৩৭৮ ম্যাচ (১২৫ টেস্ট, ১৯২ ওয়ানডে, ৬১ টি-টোয়েন্টি) পরিচালনা করেছেন। এছাড়া মেয়েদের ম্যাচ পরিচালনা করেছেন ৭৯টি। ২০১০ সালে স্বদেশি আম্পায়ার রুডি কোয়ের্টজেন অবসর নিলে তার জায়গায় আইসিসির এলিট প্যানেলভুক্ত হন। তবে তার অবসরে আইসিসি এলিট প্যানেলে আম্পায়ারের সংখ্যা কমে হলো ১১। একমাত্র দক্ষিণ আফ্রিকান হিসেবে রয়ে গেলেন অ্যাড্রিয়ান হোল্ডস্টক।

অবশ্য আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আম্পায়ারিং ছেড়ে দিলেও কিছুদিন বিরতির পর ঘরোয়া ক্রিকেটে চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন এরাসমাস, প্রথম দুই মাস আমি শীতকালীন ছুটি কাটাব। আমরা দেশের মধ্যেই ভ্রমণের পরিকল্পনা করে রেখেছি। সেপ্টেম্বর থেকে আমি ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকার (সিএসএ) অধীন চলে যাব। তারা আমাকে কীভাবে ব্যবহার করবে, সেটা চূড়ান্ত করতে হবে। পরবর্তী মৌসুমে আমি ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিং করব এবং একই সঙ্গে পরামর্শকের ভূমিকা পালন করব। আমি খায়া মাজোলা উইকে (সপ্তাহব্যাপী আয়োজিত একটি স্কুলের অনুষ্ঠান) অথবা ক্লাব চ্যাম্পিয়নশিপে যেতে পারি। সেখানে আমি খেলা দেখব এবং আম্পায়ারদের পরামর্শ দেব।

আম্পায়ারিং শুরুর আগে পুরোদস্তুর খেলোয়াড় ছিলেন এরাসমাস। দক্ষিণ আফ্রিকার প্রাদেশিক দল বোল্যান্ডের হয়ে খেলেছেন ৫৩টি প্রথম শ্রেণির ও ৫৪টি লিস্ট ম্যাচ।


আরও খবর



দুর্ভিক্ষ থেকে মাত্র এক ধাপ দূরে গাজার ৬ লাখ মানুষ: জাতিসংঘ

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ত্রাণসহায়তা প্রবেশে পরিকল্পিতভাবে বাধা দিয়ে আসছে ইসরায়েল। এই কারণে সেখানে ভয়াবহ মানবিক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। পরিস্থিতি এতই ভয়াবহ, গাজার মোট জনসংখ্যার অন্তত এক-চতুর্থাংশ অর্থাৎ প্রায় ছয় লাখ মানুষ দুর্ভিক্ষ থেকে এক ধাপ দূরে রয়েছেন। বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের বরাতে এসব তথ্য জানিয়েছে আলজাজিরা।

জাতিসংঘের মানবিক সহায়তা সংস্থার (ওসিএইচএ) উপপ্রধান রমেশ রাজাসিংহাম বলেছেন, ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকে এসে গাজায় অন্তত ৫ লাখ ৭৬ হাজার মানুষ দুর্ভিক্ষ থেকে এক ধাপ দূরে অবস্থান করছেন। 

আরও পড়ুন>> গাজায় অভিযানে ২৩৮ ইসরায়েলি সেনা নিহত

মঙ্গলবার গাজায় খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে বৈঠক করে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। সেখানে রমেশ আরও বলেন, উত্তর গাজায় দুই বছরের কম বয়সী ছয়জনের মধ্যে একজন শিশু তীব্র অপুষ্টিতে ভুগছে। কার্যত ফিলিস্তিনি এই উপত্যকার ২৩ লাখ মানুষ দুঃখজনকভাবে অপর্যাপ্ত খাদ্য সহায়তার ওপর নির্ভর করে বেঁচে আছেন।

তিনি বলেন, যদি কিছু করা না হয় তাহলে আমরা আশঙ্কা করি গাজায় ব্যাপক দুর্ভিক্ষ প্রায় অনিবার্য। সংঘাতে আরও অনেক মানুষ হতাহত হবে।

অন্যদিকে জেনেভায় ওসিএইচএর আরেক মুখপাত্র জেনস লায়েরকে সাংবাদিকদের বলেছেন, ইসরায়েলের কর্মকাণ্ডের কারণে গাজায় ত্রাণসহায়তা সরবরাহ করা প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, ত্রাণবাহী গাড়ি বহর হামলার শিকার হচ্ছে। ইসরায়েলি সেনারা পরিকল্পিতভাবে যাদের ত্রাণসহায়তা প্রয়োজন তাদের কাছে সেগুলো পাঠাতে বাধা দিচ্ছে। মানবিক কর্মীদের হয়রানি, ভয়-ভীতি ও আটক করছে ইসরায়েলি বাহিনী।


আরও খবর



চরফ্যাশনে বিষ প্রয়োগ করে কৃষকের ফসল নষ্ট

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মামুন হোসাইন, চরফ্যাশন (ভোলা) প্রতিনিধি

Image

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার দুলারহাটে বিষ প্রয়োগে নুর হোসেন নামের এক কৃষকের ৪০ শতক জমির শসা ক্ষেত নষ্ট করেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার রাতের আঁধারে উপজেলার দুলারহাট থানাধীন নুরাবাদ ইউনিয়নের চরতোফাজ্জল গ্রামের ২নং ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় তিন লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি কৃষকের।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) কৃষক নুর হোসেন বাদী হয়ে দুলারহাট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও এলাকাবাসী জানান, চলতি মৌসুমে কৃষক নুর হোসেন বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে ৪০ শতক জমিতে শসা চাষ করেন। এর মধ্য গাছগুলোতে ফল ধরতে শুরু করেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ক্ষেতে পরিচর্যা শেষে বাড়ি চলে যান কৃষক নুর হোসেন।

শুক্রবার সকালে ক্ষেতে এসে দেখেন তার জমির শসা গাছ মরে সবুজ থেকে সাদা বর্ণ হয়ে গেছে। কৃষকের ধারণা দুর্বৃত্তরা তার খেতে আগাছা নিধনের ঔষধ প্রয়োগ করেছে। এতে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েন কৃষক নুর হোসেন। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত শেষে দোষীদের বিচার দাবি করেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও স্থানীয়রা। খবর পেয়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ও দুলারহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

নুরাবাদ ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আঃ মতিন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি খুব দুঃখজনক। এর সুষ্ঠু বিচারের দাবি করছি।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. মোবারক হোসেন জানান, কৃষক নুর হোসেন বিষয়টি জানিয়েছে। আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করে কৃষককে সর্বাত্মক সহযোগিতা এবং ঘটনাটি যাচাই-বাছাই করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন দুলারহাট থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মাকসুদুর রহমান মুরাদ।

নিউজ ট্যাগ: ভোলার চরফ্যাশন

আরও খবর