আজঃ বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

বাংলাদেশিদের মাথাপিছু বৈদেশিক ঋণ ২৫ হাজার টাকা

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বর্তমানে বাংলাদেশের নাগরিকের মাথাপিছু বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৪ হাজার ৮৯০ টাকা। আজ বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) জাতীয় সংসদ অধিবেশনে এক প্রশ্নের জবাবে তথ্য জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উত্থাপিত হয়।

এদিন প্রশ্নোত্তর পর্বে চট্টগ্রাম-৪ আসনের সংসদ সদস্য দিদারুল আলমের এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে বৈদেশিক ঋণের স্থিতি ৪৯ হাজার ৪৫৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, দেশে মোট জনসংখ্যা ১৬৯ দশমিক ৩১ মিলিয়ন। এই হিসাবে মাথাপিছু বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় ২৯২ দশমিক ১১ মার্কিন ডলার। প্রতি ডলার ৮৫ দশমিক ২১ টাকা হিসাবে বাংলাদেশি টাকায় এর পরিমাণ দাঁড়ায় ২৪ হাজার ৮৯০ টাকা ৬৯ পয়সা।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) ফ্লো অব এক্সটার্নাল রিসোর্স ইন টু বাংলাদেশ শীর্ষক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে (গত জুন পর্যন্ত) বাংলাদেশে বৈদেশিক ঋণের স্থিতি রয়েছে ৪ হাজার ৪০৯ কোটি ৫১ লাখ মার্কিন ডলার, যা স্থানীয় মুদ্রায় (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা ধরে) দাঁড়ায় ৩ লাখ ৭৪ হাজার ৮৯৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। এ হিসাবে দেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ধরে হিসাব করলে প্রত্যেকের মাথায় বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় ২৩ হাজার ৪২৫ কোটি টাকা।

এর আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের জুন পর্যন্ত বৈদেশিক ঋণের স্থিতি ছিল ৩ হাজার ৮৪৭ কোটি ৫৪ লাখ ডলার এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে বৈদেশিক ঋণের স্থিতি ছিল ৩ হাজার ৩৫১ কোটি ১৮ লাখ ডলার।


আরও খবর
পুঁজিবাজারে সূচকের মিশ্র প্রবণতা

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

পুঁজিবাজারে সূচকের মিশ্র প্রবণতা

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




তেল ও চিনির দাম বাড়ার কারণ জানালেন বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশে সয়াবিন তেল ও চিনির দাম বেড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি জানান, বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, প্রশাসন ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নিয়মিত বাজার মনিটরিং করছে।

শনিবার (১৮ সেপ্টেম্বর) রংপুর টাউন হলে রংপুর জেলা প্রশাসন ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উদ্যোগে রংপুর নগরীর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা নিয়ে রচিত স্মৃতিতে রণাঙ্গন গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি বলেন, ভারত থেকে আমদানী ও রপ্তানী বাড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ভারতে মাছ রপ্তানী করার পরিকল্পনা গ্রহণের কথাও জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।

এর আগে জেলা প্রশাসক আসিব আহসানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা ও স্মৃতিতে রণাঙ্গন গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন তিনি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আব্দুল আলীম মাহমুদ, জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দসহ সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা।


আরও খবর
সবজির দাম নাগালের বাইরে

শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

দাম বেড়েছে মুরগি, পেঁয়াজ ও ডালের

শুক্রবার ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১




পর্ণোগ্রাফি সংরক্ষণ ও বিক্রির অভিযোগে ৬ ব্যবসায়ী আটক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নাটোরের সিংড়া থেকে পর্ণোগ্রাফি সংরক্ষণ ও বিক্রির অভিযোগে ৬ কম্পিউটার ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব। এসময় ৬টি সিপিইউ, ১৪টি হার্ডডিক্স, ৬টি মনিটর, ৬টি কি-বোর্ড, ৬টি মাউস, ২১টি কার্ড রিডার ও ১৬টি কম্পিউটার ক্যাবল জব্দ করা হয়।

বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) রাতে উপজেলার জামতলি ও চৌগ্রাম বাজারে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয়। আটককৃতরা হলো- মোঃ রুবেল (২৪), মোঃ সাইফুল ইসলাম (৩০), মোঃ জুয়েল (২৪), মোঃ শাহ্ সুফি শুভ (২৪), মোঃ সাব্বির হোসেন (২৪) ও শ্রী রঞ্জন (২৮)।

সিপিসি-২ ও র‌্যাব-৫ নাটোর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মেজর মোঃ সানরিয়া চৌধুরী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে নাটোর ক্যাম্পের একদল সদস্য বুধবার ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত সিংড়া উপজেলার চৌগ্রাম বাজার ও জামতলী বাজার এলাকার কয়েকটি কম্পিউটার ব্যবসায়ীর দোকানে অভিযান চালায়।

অভিযানকালে পর্ণোগ্রাফি সংরক্ষণ এবং অর্থের বিনিময়ে এলাকার যুবক ও স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের নিকট হস্তান্তর করার অভিযোগে ৬ কম্পিউটার ব্যবসায়ীকে আটক করা হয় বলে জানান তিনি। র‌্যাব কর্মকর্তা আরও জানান, আটককৃতদের বিরুদ্ধে সিংড়া থানায় ২০১২ সালের পর্ণোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।


  


আরও খবর
পায়রা সেতুর নাম পরিবর্তনের দাবিতে মানববন্ধন

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিস্কুটের কার্টন থেকে নবজাতক উদ্ধার

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




ঘুষের টাকা ফেরত নিতে গিয়ে দিনের পর দিন ধর্ষণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯৮৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অনার্স-মাস্টার্স পাস করে চাকরির সন্ধানে ছিলেন উম্মে সাদিয়া (ছদ্মনাম)। এর মাঝেই ফেসবুকে পরিচয় হয় বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (বাপাউবো) তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) মো. আনিসুর রহমানের সঙ্গে একপর্যায়ে তাদের মধ্যে গড়ে ওঠে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক। সেই সম্পর্ককে বেশ ভালোভাবেই কাজে লাগিয়েছেন ওই প্রকৌশলী।

চাকরি দেওয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে বছর পঁচিশের ওই তরুণীর কাছ থেকে হাতিয়ে নেন ১০ লাখ টাকা। দীর্ঘ দিনেও চাকরি দিতে না পারায় টাকা ফেরত চাইতে আনিসুরের তেজকুনীপাড়ার ১০৫/২ নম্বর বাসায় যান ওই তরুণী। আপ্যায়নের আড়ালে কোকের সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ান চেতনানাশক। অচেতন হতেই কেড়ে নেন তার সম্ভ্রম। শুধু তাই নয়, ধর্ষণের চিত্র গোপনে ভিডিও ধারণ করে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে ওই চাকরিপ্রার্থীকে বছরজুড়েই ভোগ করেন আনিসুর রহমান।

এসব অভিযোগ এনে গত বছরের ২৯ অক্টোবর প্রকৌশলী আনিসুর রহমানের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর হাকিমের আদালতে (১৪ নম্বর কোর্ট) পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দেন সাদিয়া। ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ দিদার হোসাইনের নির্দেশে সেই মামলার তদন্ত শেষে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে গত ৩০ এপ্রিল আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দেন ধানমন্ডি থানার এসআই মধুসুদন মজুমদার। চার্জশিট আমলে নিয়ে গত ২৫ আগস্ট আনিসুর রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা (ওয়ারেন্ট) জারি করেন আদালত। কিন্তু রহস্যজনক কারণে ধরা পড়ছেন না প্রকৌশলী আনিসুর।

এদিকে ভুক্তভোগী তরুণী প্রকৌশলী আনিসুরের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে বাপাউবোর মহাপরিচালকের দপ্তরেও লিখিত অভিযোগ দেন। ঘুষ-সম্ভ্রম হারানোর বিস্তারিত ঘটনা লিখে জানান সাদিয়া। কিন্তু আনিসুর রহমানের টিকিটিও ছুঁতে পারেনি বাপাউবো কর্তৃপক্ষ। উল্টো মামলা তুলে না নিলে বিশেষ একটি গোয়েন্দা সংস্থাকে দিয়ে ভুক্তভোগী তরুণীকে তুলে নেওয়ার হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন ওই প্রকৌশলী। হুমকিতে এখন ঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বাদী। বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক ফজলুর রশিদ আমাদের সময়কে বলেন, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. আনিসুর রহমানের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে আমি অবগত নই। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আনিসুর রহমানের ক্ষমতার কাছে পুলিশও জানি অসহায়! গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নিয়েও অভিযুক্ত ঘুরে বেড়াচ্ছেন প্রকাশ্যে। অফিসে গিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন দিব্যি। যদিও পুলিশের দাবি, ওয়ারেন্টভুক্ত ওই আসামিকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। ভুক্তভোগীর স্বজনরা অবশ্য জানিয়েছেন, টাঙ্গাইলের দেওলা এলাকায় গ্রামের বাড়িতে গত শুক্রবার আনিসুরের অবস্থান নিশ্চিত করলেও সাড়া দেননি ওয়ারেন্ট তামিলকারী কর্মকর্তা টাঙ্গাইল সদর থানার এসআই। আসামির অবস্থান শনাক্তের পরও ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিকে গ্রেপ্তার না করার বিষয়ে জানতে চাইলে টাঙ্গাইল সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শামীম হোসেন বলেন, এই ওয়ারেন্টের বিষয়ে আমি অবগত নই। এসআই আমিনুলের অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। সেই সঙ্গে দ্রুত সময়ের মধ্যে ওয়ারেন্ট তামিল করে আদালতের নির্দেশ পালন করা হবে।

অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন দাবি করেছেন প্রকৌশলী আনিসুর রহমান। গতকাল সোমবার দুপুরে তিনি আমাদের সময়কে বলেন, চাকরির কথা বলে ওই তরুণীর কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়া এবং ধর্ষণের যে অভিযোগ তিনি তুলেছেন, তা অসত্য। অনৈতিক সুবিধা নেওয়া এবং আমার সামাজিক মর্যাদা ক্ষুণের উদ্দেশ্য চক্রটি নানা অভিযোগ তুলছে। আদালতে দাখিল করা ধর্ষণের ভিডিওর বিষয়ে তিনি বলেন, এই আধুনিক প্রযুক্তির যুগে সব কিছুই সম্ভব। যদি আদালতে এমন কিছু মেয়েটি দিয়ে থাকে তা অবশ্যই এডিট করা ও সাজানো। মামলা উঠিয়ে না নিলে তরুণীকে তুলে নেওয়ার হুমকির অভিযোগ প্রসঙ্গে প্রকৌশলী আনিসুর রহমান বলেন, এটি কোনো কথা হলো, তাকে উঠায় আনতে হবে কেন? আমি যদি চাই ও-তো সুড় সুড় করে চলে আসবে! মামলায় চার্জশিটের বিষয়ে আমি জানি না। অফিসের কাজে ব্যস্ততার দোহাই দিয়ে এর বেশি কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন এই প্রকৌশলী।

এদিকে প্রকৌশলী আনিসুর রহমান তার বিরুদ্দে আনা অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করলেও তদন্ত কর্মকর্তা চার্জশিটে উল্লেখ করেন- আনুষঙ্গিক কার্যাক্রমের পাশাপাশি জব্দকৃত আলামত (বাদী-আসামির তিনটি ঘনিষ্ঠ ছবি, তাদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ধারণকৃত ভিডিও) পরীক্ষা করানো হয়। এ বিষয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) এসআই ও আলোকচিত্র বিশারদ রিপন হালদার মতামত দেন, ভিকটিমের নমুনা ছবির সঙ্গে অশ্লীল স্থিরচিত্র থাকা নারীর ছবি ও ভিডিওতে সংরক্ষিত ভিডিওচিত্রে থাকা নারীর ছবির মিল রয়েছে এবং তা এডিট করা হয়নি।

তদন্তে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে এসআই মধুসুদন মজুমদার চার্জশিটে আরও উল্লেখ করেন, বাদীর সঙ্গে মামলার এজাহারভুক্ত পলাতক আসামি আনিসুর রহমানের ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের একজন বড় প্রকৌশলী পরিচয় দিয়ে তিনি বাদীকে চাকরি দেওয়ার আশ্বাস দেন। সেই সঙ্গে বাদীর কাছ থেকে বায়োডাটা এবং বিভিন্ন সময়ে ১০ লাখ টাকা নেন। কিন্তু চাকরি না দিয়ে তিনি বাদীকে ঘুরাতে থাকেন। একদিন টাকা ফেরত দেওয়ার কথা বলে আসামি তার তেজকুনীপাড়ার বাসায় তরুণীকে নিয়ে যান। কিন্তু বাসায় কেউ না থাকায় সন্দেহ হলে বাদী চলে আসতে চান। এ সময় আসামি আনিসুর রহমান জোর করে তাকে কোক খাওয়ান। তার সঙ্গে ছিল চেতনানাশক। ফলে বাদী নিস্তেজ হয়ে পড়লে আসামি তাকে ধর্ষণ করেন। জ্ঞান ফিরলে বাদী নিজেকে আসামির বিছানায় বিবস্ত্র অবস্থায় দেখেন। কোনো মতে সেখান থেকে বাসায় চলে আসেন ওই তরুণী। পরবর্তী সময় শারীরিক মেলামেশার জন্য আসামি ফের তার বাসায় যেতে বললে বাদী রাজি হননি। এ সময় তিনি হুমকি দেন যে, ধর্ষণের সেই দৃশ্য ভিডিও ধারণ করা আছে। আমার কথামতো না চললে সেই ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়া হবে। অগত্যা পারিবারিক ও সামাজিক অবস্থান বিবেচনায় আসামির কথায় সায় দিতে বাধ্য হন তরুণী। তদন্তকালে প্রাপ্ত সাক্ষ্যপ্রমাণ ও আলামত পরীক্ষার রিপোর্ট পর্যালোচনা এবং ঘটনার পারিপার্শ্বিকতায় বাদীর অভিযোগ ২০১২ সালের পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনের ৮ (১)/৮ (২) ধারার প্রমাণিত হয়। কিন্তু ব্যাপক চেষ্টার পরও আনিসুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

নিউজ ট্যাগ: ধর্ষণ বাপাউবো

আরও খবর



সময় কাটাতে ছেলের প্রেমিকা ও নিজের প্রেমিককে নিয়ে মালদ্বীপে শ্রাবন্তী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৪ আগস্ট ২০২১ | ১২৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ছেলে আর তার প্রেমিকার সঙ্গে মালদ্বীপে বেড়াতে গিয়েছেন টলিউড অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চ্যাটার্জি। সঙ্গে রয়েছেন শ্রাবন্তীর প্রেমিক অভিরূপ নাগ চৌধুরী। যদিও এই ভ্রমণের কোনো ছবি শ্রাবন্তী তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রোফাইলে শেয়ার করেননি।

ছেলে অভিমন্যু চ্যাটার্জি এবং তার প্রেমিকা দামিনী ঘোষের সঙ্গে রয়েছেন শ্রাবন্তী-অভিরূপও।

অভিমন্যু এবং দামিনীর ইনস্টাগ্রাম স্টোরি ভরে উঠেছে মালদ্বীপের অজস্র ছবিতে। তাদের তোলা ছবি ও ভিডিওতে বিমানের জানালা থেকে মালদ্বীপের সৌন্দর্য যেমন ফ্রেমবন্দি হয়েছে, তেমনই তাদের রিসোর্টেরও দেখা মিলেছে। সঙ্গে রয়েছে খাবারদাবারের ছবিও।

মা-ছেলের সম্পর্ক যে বন্ধুর মতো সে কথা আগেই শোনা গেছে শ্রাবন্তীর মুখে।

অভিমন্যু এবং দামিনী প্রায়ই ভারত এবং বিশ্বের বিভিন্ন পর্যটনকেন্দ্রে ঘুরে বেড়ান। এবারে তাদের সঙ্গে ছুটি কাটাতে গেলেন শ্রাবন্তীও। কিন্তু এখনও পর্যন্ত অভিরূপ এবং শ্রাবন্তীর কোনো ছবি প্রকাশ্যে আসেনি।


আরও খবর
হাইকোর্টে জামিন পেলেন মডেল মৌ

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আমার পছন্দের পুরুষকে একটু রাফ হতে হবে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




মডেল ফারিয়া মাহাবুব পিয়াসার জামিন নামঞ্জুর

প্রকাশিত:রবিবার ২৯ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৯ আগস্ট ২০২১ | ৮৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আলোচিত মডেল ফারিয়া মাহাবুব পিয়াসার বিরুদ্ধে গুলশান থানার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দায়ের করা মামলায় জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছেন আদালত।

আদালতের সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন শাখা থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

রবিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শাহিনুর রহমানের আদালতে আসামি পিয়াসার আইনজীবী মেজবাহউদ্দিন জামিনের আবেদন করেন।  অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষ তার বিরোধিতা করেন।  উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন।

সোমবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আদালতে ভাটারা থানার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশ পিয়াসার ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে তাকে আদালতে হাজির করে। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ড বাতিলের আবেদন করেন।  অপরদিকে রাষ্ট্রপক্ষ তার বিরোধিতা করেন।

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত আসামি পিয়াসাকে একদিনের জন্য জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।  এর আগে বিভিন্ন সময়ে পিয়াসাকে কয়েক দফা রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।


আরও খবর
হাইকোর্টে জামিন পেলেন মডেল মৌ

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আমার পছন্দের পুরুষকে একটু রাফ হতে হবে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১