আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

বদলে যাচ্ছে সালমানের সিনেমার নাম!

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ মে ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সালমান খান অভিনীত বহুল প্রতীক্ষিত সিনেমা রাধে: ইয়োর মোস্ট ওয়ান্টেড ভাই। আসছে ঈদে মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে সিনেমাটির। মুক্তি উপলক্ষে এরই মধ্যে টিজার এবং গান প্রকাশ হয়েছে। দর্শক এবং সালমান ভক্তরা বেশ ভালোভাবেই গ্রহণ করেছে রাধে সিনেমার টিজারটি।

রাধে সিনেমায় সালমানের বিপরীতে স্ক্রিন শেয়ার করেছেন দিশা পাটানি। টিজার থাকা একটি চুমু দৃশ্যের জন্য বেশ চাপে পড়তে হয়েছিল সালমানকে। রীতিমত বিতর্ক শুরু হয়েছিল বলিউড ভাইজানের সেই দৃশ্যটি নিয়ে।

সেসব বাদ দিয়ে সালমান এখন ব্যস্ত কাভি ঈদ কাভি দিওয়ালি সিনেমাটি নিয়ে। সাজিদ নাদিওয়ালার সঙ্গে যৌথভাবে সিনেমাটি প্রযোজনা করবেন সালমান। এটি পরিচালনা করবেন ফারহাদ সামজি। কমেডি ঘরানার এ সিনেমা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বার্তা তুলে ধরা হবে বলে ভারতীয় গণমাধ্যমকে জানান পরিচালক।

তিনি বলেন, একটি পরিবারের গল্প তুলে ধরা হবে এ সিনেমায়। যে পরিবারে ঈদ এবং দিওয়ালি দুটিই সমানভাবে পালন করা হয়। পারিবারিক ধর্মীয় বৈচিত্র্য তুলে ধরা হবে কাভি ঈদ কাভি দিওয়ালি সিনেমায়। এতেই আপত্তি নেটিজেনদের। সাম্প্রদায়িক কলহের ইঙ্গিত আসতে পারে এ সিনেমায়। এদিকে বিষয়টি নিয়ে ভাবছেন সালমান-সাজিদ-ফারহাদ। সিনেমার নতুন নাম খুঁজছেন তারা। মানুষের ধর্মীয় অনুভূতিতে যেন আঘাত না লাগে সে জন্যই নাম বদলের চিন্তা করছেন তারা।

নিউজ ট্যাগ: সালমান খান

আরও খবর



করোনায় গত ১০ দিনে সবচেয়ে কম মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ০১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ মে ২০২১ | ১০৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসে দেশে গত ১০ দিনের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৬০ জন। আর আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ৪৬২ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞিপ্তিতে শনিবার (১ মে) এ তথ্য জানানো হয়।

উল্লেখ্য, গত বছরের ৮ মার্চ দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর ঠিক ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যুর খবর আসে। এরপর ধীরে ধীরে আক্রান্ত ও মুতের হার বাড়তে থাকে।

 



আরও খবর



আরও এক সপ্তাহ কঠোর লকডাউনের সুপারিশ

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ১২৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
সরকার ইতোমধ্যে ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করেছে। কমিটি এতে সন্তোষ প্রকাশ করে। যদিও বৈজ্ঞানিকভাবে দুই সপ্তাহের কম লকডাউনে কার্যকর ফলাফল আশা করা যায় না। দেশের অর্থনীতি সচল রাখার স্বার্থে শিল্প-কলকারখানা খোলা রাখার বিষয়টি

আরও এক সপ্তাহের জন্য কঠোর লকডাউনের সুপারিশ করেছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। সোমবার (১৯ এপ্রিল) সকালে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

কমিটির ৩১তম সভা রবিবার (১৮ এপ্রিল) দিনগত রাতে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লা।

কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বেশ কিছু সুপারিশসমূহ গৃহীত হয়। এতে বলা হয়, আরও এক সপ্তাহের জন্য কঠোর লকডাউনের পরবর্তী সপ্তাহ শেষ হওয়ার আগে সংক্রমণের হার বিবেচনা করে আবার সিদ্ধান্ত নেওয়া যেতে পারে। ধীরে ধীরে লকডাউন শেষ করার পূর্ব পরিকল্পনা প্রস্তুত রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়।

সভায় সংক্রমণের অবস্থা ও প্রতিরোধে গৃহীত পদক্ষেপের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। সারাদেশে কোভিড-১৯ এর উচ্চ সংক্রমণ ও ক্রমবর্ধমান মৃত্যুতে সভায় উদ্বেগ প্রকাশ করে কমিটি। জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি কমপক্ষে দুই সপ্তাহের জন্য পূর্ণ লকডাউন সুপারিশ করেছিল। সরকার ইতোমধ্যে ১৪ এপ্রিল থেকে এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করেছে। কমিটি এতে সন্তোষ প্রকাশ করে। যদিও বৈজ্ঞানিকভাবে দুই সপ্তাহের কম লকডাউনে কার্যকর ফলাফল আশা করা যায় না। দেশের অর্থনীতি সচল রাখার স্বার্থে শিল্প-কলকারখানা খোলা রাখার বিষয়টি কমিটি উপলব্ধি করে। তবে বেসরকারি দপ্তর, ব্যাংক খোলা রাখা, ক্রমবর্ধমানভাবে ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল, ইফতার বাজারে অনাকাঙ্ক্ষিত ও অপ্রয়োজনীয় অতিরিক্ত ভিড় লকডাউনের সাফল্যকে অনিশ্চিত করে। পাশাপাশি সভা-সামাজিক সমতার বিষয়েও নীতি নির্ধারকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। স্বাস্থ্য, ফায়ার সার্ভিস ও অন্যান্য জরুরি সেবা ছাড়া সভায় সবকিছু বন্ধ রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়। কমিটি খোলা রাখা জরুরি সেবার তালিকা প্রকাশ করার অনুরোধ করে। অন্যথায় বিরূপ পরিস্থিতির আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়। উদাহারণ হিসেবে চলমান লকডাউনে চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের ডিউটির জন্য চলাচলে বাধা ও অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার কথা উল্লেখ করা হয়। কাঁচাবাজার উন্মুক্ত স্থানে স্থাপনের প্রস্তাব আবারও দেওয়া হয়।

এতে আরও বলা হয়, ডিএনসিসি কোভিড হাসপাতাল চালু হওয়ায় সভায় সরকারকে অভিনন্দন জানানো হয়। রোগী ভর্তির বাড়তি চাপ থাকায় অতিদ্রুত আরও সক্ষমতা বাড়ানোর ব্যবস্থা গ্রহণের ওপরও জোর দেওয়া হয়।

করোনা রোগী দ্রুত শনাক্ত করা সংক্রমণ প্রতিরোধের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। সরকার ল্যাবরেটরির সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য কাজ করছে। সাম্প্রতিককালে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। নমুনা সংগ্রহ সহজ ও রোগীদের হাতের নাগালের মধ্যে আনার জন্য শহর অঞ্চলে প্রতি ওয়ার্ডে নমুনা সংগ্রহের বুথ স্থাপন করা প্রয়োজন। সভায় রিপোর্ট দ্রুত পাঠানোর জন্য নমুনা সংগ্রহের বুথে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট করার পরামর্শ দেওয়া হয়। 

নমুনা পরীক্ষা সহজলভ্য করার উদ্দেশে কমিটি ইতোমধ্যে সরকারি নমুনা পরীক্ষা বিনামূল্যে করার পরামর্শ দিয়েছে। পিসিআর টেস্ট কিটের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যাওয়ায় বেসরকারি পরীক্ষাগারে নমুনা পরীক্ষার মূল্য পুনর্নির্ধারণের পরামর্শ দেওয়া হয়। এতে যেমন পরীক্ষার সংখ্যা বাড়বে, তেমনিভাবে সাধারণ মানুষের নাগালের মধ্যে নিয়ে আসবে ও সাশ্রয়ীমূল্যে পরীক্ষা করা যাবে। সরকারি ল্যাবরেটরিতে চাপ কিছুটা কমবে। এতে রোগীদের পরীক্ষা ও রিপোর্ট দ্রুত দিয়ে আইসোলেশন নিশ্চিত করা যাবে। যা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সরকারি/বেসরকারি সব হাসপাতাল, ক্লিনিকে গর্ভবতী করোনা/নন করোনা মাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা নিশ্চিন্তে করার জন্য অনুরোধ করা হয়। এ ব্যাপারে অন্যথায় উচিত নয়। করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে অবশ্যই গর্ভবতী মাদের সেবার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। নতুন ডিএনসিসি হাসপাতালে গর্ভবতী মাদের একটা কর্নারে বিশেষায়িত (আইসিইউ) ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করা হয়। প্রতিটি হাসপাতাল তার নিজস্ব সক্ষমতা অনুযায়ী চেইন অফ রেফারেন্স সিস্টেম মেনে চলবেন।

সব মৃদু করোনা রোগীদের বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিশ্চিত করার জন্য টেলিমেডিসিন সেবা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন। সেইসঙ্গে কোয়ালিটি সেবা নিশ্চিত করার জন্য টেলিমেডিসিন সেবা নিয়মিত মনিটরিং জোরদার করা প্রয়োজন।


আরও খবর



দ্বিতীয় টেস্টের অপেক্ষায় বাংলাদেশ

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | ৭৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাল্লেকেলেতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্ট ড্র করেছে বাংলাদেশ। অবশ্য ম্যাচ ড্র হলেও দলের সাফল্য কম নয়। ব্যাটসম্যানরা রান পেয়েছেন, বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথম পয়েন্টের দেখা পেল দল। এমন আত্মবিশ্বাস নিয়ে দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে নামবে তামিম-মুমিনুলরা। আগামী ২৯ এপ্রিল শুরু হবে ম্যাচটি। ক্যান্ডির পাল্লেকেলেতে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টায়।

বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে এর আগে পাঁচ ম্যাচ খেলেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু একটি ম্যাচেও সাফল্য পায়নি মুমিনুলরা। দীর্ঘ অপেক্ষার পর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে ড্র করে ২০ পয়েন্ট ঝুলিতে নেয় বাংলাদেশে।

এর আগে ভারত, পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে পাঁচটি ম্যাচ খেলেছিল বাংলাদেশ। সব ম্যাচেই হেরেছিল দল।

পাল্লেকেলেতে নাজমুল হোসেন শান্ত (১৬৩) ও মুমিনুল হকের (১২৭) সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশ প্রথম ইনিংসে ৫৪১ রান করে। জবাবে শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংসে করে ৬৪৮ রান। আর বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংসে ১০০ রান করেছিল।

বাংলাদেশ দল : মুমিনুল হক (অধিনায়ক), লিটন দাস, মোহাম্মদ মিঠুন, মুশফিকুর রহিম, তামিম ইকবাল, সাদমান ইসলাম, আবু জায়েদ রাহি, তাইজুল ইসলাম, নাজমুল হোসেন, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাসকিন আহমেদ, ইবাদত হোসেন চৌধুরী, সাইফ হাসান, ইয়াসির আলি ও শরিফুল ইসলাম।


আরও খবর



বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩১ লাখ ৬৩ হাজার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ২৯ লাখ ৮৩ হাজার ৬৯৫ জন আর

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির সংখ্যা কোনোভাবেই কমছে না। সবশেষ করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ কোটি ২ লাখ ১৬ হাজার ৫৯০ জন। আর এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩১ লাখ ৬৩ হাজার ৮৭৩ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ১২ কোটি ৭৭ লাখ ৩৬ হাজার ২০৩ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) সকালে এই তথ্য জানা গেছে।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ২৯ লাখ ৮৩ হাজার ৬৯৫ জন আর ৫ লাখ ৮৮ হাজার ৩৩৭ জন মারা গেছেন।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের তালিকায় দেশটির অবস্থান চতুর্থ। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ১ কোটি ৮৩ লাখ ৬৮ হাজার ৯৬ জন এবং মারা গেছেন ২ লাখ ৪৮ হাজার ১২ জন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ১ কোটি ৪৫ লাখ ২৩ হাজার ৮০৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৯৮ হাজার ৩৪৩ জনের।

দেশে করোনাভাইরাসের আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এখন পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১১ হাজার ৩০৫ জনে। এছাড়াও এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা ৭ লাখ ৫৪ হাজার ৬১৪ জন।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।


আরও খবর



করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৩০ লাখ ৩২ হাজার

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ২৪ লাখ ৪ হাজার ৪৫৪ জন

বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির সংখ্যা কোনোভাবেই কমছে না। সবশেষ করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ কোটি ১৯ লাখ ৯৯ হাজার ২৭৮ জন। আর এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০ লাখ ৩২ হাজার ৮৬২ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ১২ কোটি ৫ লাখ ৩১ হাজার ৫৮১ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে এই তথ্য জানা যায়।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ২৪ লাখ ৪ হাজার ৪৫৪ জন। এবং ৫ লাখ ৮১ হাজার ৬১ জন মারা গেছেন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ১ কোটি ৩৯ লাখ ৭১ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৪৪২ জনের।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশি দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের তালিকায় দেশটির অবস্থান চতুর্থ। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ১ কোটি ৫০ লাখ ৫৭ হাজার ৭৬৭ জন এবং মারা গেছেন ১ লাখ ৭৮ হাজার ৭৯৩ জন।

দেশে করোনাভাইরাসের আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এখন পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১০ হাজার ৩৮৫ জনে। এছাড়াও এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা ৭ লাখ ১৮ হাজার ৯৫০ জন।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।


আরও খবর