আজঃ মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

বিজয়া দশমী: বিদায় বেলায় সিঁদুর খেলা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ অক্টোবর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৪ অক্টোবর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আজ বিজয়া দশমী। কিছুক্ষণ পরই দেবী দুর্গা, লক্ষ্মী, সরস্বতী ও কার্তিক গণেশকে বিসর্জন দেওয়া হবে। তবে এ বিষাদের মাঝে আনন্দ দিচ্ছে সনাতনী নারীদের সিঁদুর খেলা। এ সময় একে অপরের গালে মুখে সিঁদুর মেখে আনন্দ উৎসবে মেতে ওঠেন। পাশাপাশি তরুণরাও একে অপরের গালে মেখে দেন সিঁদুর। পূজা শেষে নারীরা দেবী দুর্গার সিঁথিতে ও পায়ে সিঁদুর দেন।

মঙ্গলবার শাঁখারীবাজারে দেখা যায়, এখানে ১১টি মণ্ডপে চলছে দুর্গাপূজা। প্রতিটি মণ্ডপেই সিঁদুর খেলা চলছে। উলু ধ্বনির সঙ্গে শেষ মুহূর্তে প্রতিমায় সিঁদুর লাগানো, প্রসাদ খাওয়ানোর মধ্যদিয়ে মেতে উঠছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা।

মণ্ডপে থাকা নারীরা জানান, সিঁদুর হলো উৎসবের রং। এই পাঁচদিন আনন্দের শেষ ছিল না। ঢাকার প্রতিটি মণ্ডপে ঘোরাঘুরি করেছি। সব জায়গায় পূজা দিয়েছি। মা একেক জায়গায় একেক রূপে আসেন। বিভিন্ন মণ্ডপে গিয়ে ঠাকুর দেখার মজাই আলাদা।

তারা আরও জানান, সিঁদুর একটি ঐতিহ্য। স্বামীর মঙ্গল কামনা করা হয়। বিবাহিত, অবিবাহিত সবাই এই আনন্দ উৎসবে মেতে ওঠেন।

জানা যায়, শুধু সিঁদুর নিয়ে খেলাই নয়, বড়দের পায়ে প্রণাম করে, শাখা-সিঁথিতে সিঁদুর পরিয়ে বিজয়ার শুভেচ্ছা জানানো হয়। একে অপরকে মিষ্টি উপহার দেয়। দেবী পূজা সম্পন্ন হয় বিসর্জন পূজার সঙ্গে। তারপর দেবী বরণ করা হয়, যেখানে বিবাহিত নারীরা দেবীকে বিদায় জানান। তারা সাধারণত লাল পাড়ের সাদা শাড়ি পরেন।


আরও খবর
রাজধানীতে তাজিয়া মিছিল শুরু

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪

আজ পবিত্র আশুরা

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪




ভারতে পদদলিত হয়ে নিহত বেড়ে ১২১, ভোলে বাবাকে খুঁজছে পুলিশ

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

উত্তরপ্রদেশের হাথরসের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে ১২১ জনের মৃত্যুর পর থেকেই ধর্মীয় গুরুকে গ্রেপ্তারের জন্য খুঁজছে পুলিশের একটি বড় দল। কিন্তু ধর্মগুরুর সন্ধান এখনও মেলেনি বলে জানা গেছে।

ঘটনার পরের দিন বুধবার (৩ জুলাই) উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এ ঘটনার তদন্তের জন্য বিশেষ কমিটি গড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। কমিটির নেতৃত্বে রয়েছেন আগরার অতিরিক্ত ডিজিপি।

পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, ফুলরাই গ্রাম থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরত্বে মৈনপুরি এলাকায় আশ্রম রয়েছে ভোলেবাবার। পদদলিতের ঘটনার পর সেই আশ্রমে গেছেন তদন্ত কমিটির সদস্যরা। প্রশাসনের নির্দেশ, এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযুক্তদের যেন কঠোর শাস্তি দেওয়া হয়।

হাথরসের ঘটনায় প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে এরই মধ্যে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। আলোচনা তৈরি হয়েছে এই বিপর্যয়ের কারণ নিয়ে। পদদলিত হয়ে মৃত্যুর ঘটনায় আয়োজক সৎসঙ্গ কমিটিকে দায়ী করছেন অনেকে। অনেকে প্রশাসনের দিকে আঙুল তুলেছেন। আবার অনেকের দাবি, আগত ভক্তদের হুড়োহুড়ির কারণেই এই ঘটনা।

মঙ্গলবার হাথরসে সৎসঙ্গের ডাক দিয়েছিলেন নারায়ণ সাকার হরি ওরফে সাকার বিশ্ব হরি ওরফে ভোলে বাবা। অনুষ্ঠানের শেষে হুড়োহুড়ি পড়ে পদদলিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের একাংশের দাবি, সৎসঙ্গের জন্য যে প্যান্ডেল বাঁধা হয়েছিল, তাতে ব্যারিকেড ছিল। পাখার ব্যবস্থা করা হয়নি। প্যান্ডেল খোলামেলা থাকলেও আর্দ্রতা ও গরমের কারণে সকলেই হাঁসফাঁস করছিলেন। ফলে সৎসঙ্গ শেষ হওয়ার পরেই মানুষ হুড়মুড়িয়ে মাঠের বাইরে বেরোনোর চেষ্টা করেন। কিন্তু আসা-যাওয়ার জন্য যে গেট তৈরি হয়েছিল, সেটিও অত্যন্ত সঙ্কীর্ণ হওয়ার কারণে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। অনেকে মাটিতে পড়ে যান। বাকিরা তাদের ওপর দিয়েই বাইরে বেরোনোর চেষ্টা করেন। তাতেই মারা গেছেন শতাধিক ভক্ত।

মঙ্গলবার যখন এই ঘটনা ঘটে তখন লোকসভায় ভাষণ দিচ্ছিলেন নরেন্দ্র মোদী। তার মাঝেই বিষয়টি জানতে পেরে ভাষণ থামিয়ে তিনি শোকপ্রকাশ করেন। সব রকমের সাহায্যের আশ্বাস দেন তিনি। এরপরে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের এক্স হ্যান্ডল থেকে জানানো হয়, হাথরসের ঘটনায় মৃতদের পরিবারকে ২ লাখ রুপি ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।


আরও খবর
আজ নেলসন ম্যান্ডেলার জন্মদিন!

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




স্পেন-ইংল্যান্ডের ইউরো ফাইনালে ফ্রান্সের রেফারি

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

দীর্ঘ প্রায় ১ মাসের লড়াই শেষে পর্দা নামছে ইউরো চ্যাম্পিয়শিপের। আগামী ১৪ জুলাই বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত একটায় শিরোপার লড়াইয়ে নামবে স্পেন ও ইংল্যান্ড। জার্মানির বার্লিনের অলিম্পিয়াস্টেডিওন স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠেয় ইউরোপ মহাদেশের ফুটবল শ্রেষ্ঠত্বের এই ম্যাচে রেফারি হিসেবে থাকছেন ফ্রান্সের ফ্রাঙ্কো লেটেক্সিয়ের।

আজ ইউরোপীয় ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা উয়েফা এই তথ্য নিশ্চিত করেছে। ৩৫ বছর বয়সী এই ফরাসি রেফারি ২০১৭ সাল থেকেই আন্তর্জাতিক ম্যাচে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এরই মধ্যে ক্যারিয়ারে ৬৫টি উয়েফার ম্যাচ পরিচালনা করেছেন লেটেক্সিয়ের।

ফাইনালে নামার আগেও চলতি ইউরোতে তিনটি ম্যাচ পরিচালনা করেছেন তিনি। এর মধ্যে শেষ ষোলোতে স্পেন ও জর্জিয়ার ম্যাচটিও আছে। এছাড়া গ্রুপপর্বে ক্রোয়েশিয়া-আলবেনিয়া ও ডেনমার্ক-সার্বিয়ার ম্যাচ পরিচালনা করেছেন তিনি। এছাড়া জার্মানি-স্কটল্যান্ডের উদ্বোধনী ম্যাচে চতুর্থ অফিসিয়াল হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন লেটেক্সিয়ের।

গত মৌসুমে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ ও ইউরোপা লিগের ১০টি ম্যাচে রেফারি হিসেবে ছিলেন লেটেক্সিয়ের। রিয়াল মাদ্রিদ ও বুরুশিয়া ডর্টমুন্ডের চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনালে ছিলেন চতুর্থ অফিসিয়াল।

লেটেক্সিয়েরের সহযোগী হিসেবে থাকছেন তার দুই স্বদেশি সাইরিল মুগনিয়ের ও মেহদি রাহমৌনি। চতুর্থ অফিসিয়াল হিসেবে থাকছেন পোল্যান্ডের জিমন মার্চিনিক। ভিএআর রেফারি হিসেবে থাকছেন ফ্রান্সের জেরোমে ব্রিসার্ড। তাকে সহযোগিতা করবেন ফ্রান্সেরই উইলি ডেলাজোদ ও ইতালির ম্যাসিমিলিয়ানো ইরাত্তি।

নিউজ ট্যাগ: ইউরো ফাইনাল

আরও খবর



আজও বাংলা ব্লকেড, যেসব এলাকায় হতে পারে তীব্র যানজট

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে বুধবার (১০ জুলাই) ঢাকাসহ সারাদেশে বাংলা ব্লকেড পালনের পর আজ বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে বাংলা ব্লকেড-এর ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। এর ফলে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বড় শহরগুলো তীব্র যানজটের কবলে পড়তে পারে।

বুধবার (১০ জুলাই) শাহবাগ থেকে এ ঘোষণা দেন আন্দোলনকারীরা। সন্ধ্যায় বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সমন্বয়ক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাহিদ ইসলাম এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে বাংলা ব্লকেড কর্মসূচি শুরু হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে শাহবাগ অবরোধ করা হবে। সারাদেশের সব মহাসড়ক ও রেলপথ এ ব্লকেডের আওতাভুক্ত থাকবে।

এর আগে রবি, সোম এবং বুধবার রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন সড়ক ও মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। এর ফলে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে বিভিন্ন পয়েন্টে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফলে ওইসব জায়গায় আজকে দুপুর থেকেও তীব্র যানজট সৃষ্টি হতে পারে।

রাজধানীর যেসব এলাকায় ব্লকেড হতে পারে-

১. শাহবাগ

২. কারওয়ানবাজার

৩. ইন্টারকন্টিনেন্টাল মোড়

৪. ফার্মগেট

৪. চানখারপুল মোড়

৫. চানখারপুল ফ্লাইওভার এ উঠার মোড়

৬. বঙ্গবাজার

৭. শিক্ষা চত্বর

৮. মৎস্য ভবন

৯. জিপিও

১০. গুলিস্তান

১১. সায়েন্সল্যাব

১২. নীলক্ষেত

১৩. রামপুরা ব্রিজ

১৪. সচিবালয়

১৫. মহাখালী

১৬. বাংলামোটর

১৭. পল্টন মোড়

১৮. ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক (জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়)

ঢাকার বাইরে যেসব এলাকায় ব্লকেড হতে পারে-

১. রাজশাহী (জিরো পয়েন্ট, ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট, রেলগেট, স্টেশনবাজার)

২. সিলেট-সুনামগঞ্জ রোড (সাস্ট)

৩. ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক (কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়)

৪. বটতলা চত্বর (ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়)

৫. ময়মনসিংহ (বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়)

৬. রংপুর মডার্ন মোড় (বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়)

৭. দেওয়ান হাট (চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ও অধিভুক্ত কলেজসমূহ)

৮. খুলনা, নতুন রাস্তা, দৌলতপুর (জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা আঞ্চলিক কেন্দ্র)

৯. গাজীপুর (আওয়ালে বদরে আলম সরকারি কলেজ, গাজীপুর)

১০. নোয়াখালী প্রেসক্লাব (নোয়াখালী জেলার শিক্ষার্থীবৃন্দ

১১. ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের সামনে

১২. ঢাকা-পাবনা মহাসড়ক (পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়)

২০১৮ সালে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিল করে সরকার। পরে ২০২১ সালে কয়েকজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হাইকোর্টে এর বিরুদ্ধে রিট করেন। গত ৫ জুন হাইকোর্টের এক রায়ের মাধ্যমে আবারও ফিরে আসে কোটা ব্যবস্থা।

এরপর গত ১ জুলাই বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারে আন্দোলনে নামে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এর ধারাবাহিকতায় শনিবার রাজধানীর শাহবাগ থেকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বাংলা ব্লকেড কর্মসূচি ঘোষণা করেন। সে অনুযায়ী রোববার ও সোমবার টানা দুদিন বিকেলে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি পয়েন্টে অবস্থান ও অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন আন্দোলনকারীরা। আর গতকাল বুধবার সকাল-সন্ধ্যা অবস্থান ও অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন আন্দোলনকারীরা।

এরমধ্যে বুধবার (১০ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টায় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের আপিল বিভাগ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ে চার সপ্তাহের জন্য স্থিতাবস্থা দিয়েছেন। এরপর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হবে বলেও জানান আদালত।


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার পেলেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে কর্মক্ষেত্রে অসামান্য অবদানের জন্য চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানকে বিভাগীয় পর্যায়ে জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার ২০২৩-২৪ প্রদান করা হয়েছে।

সোমবার (২৪ জুন) দুপুরে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক বিশেষ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মোঃ তোফায়েল ইসলামের কাছ থেকে এই সম্মাননা গ্রহণ করেন জেলা প্রশাসক।

জাতীয় শুদ্ধাচার সম্মাননা গ্রহণ শেষে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, এই সম্মাননা আমার জন্য নিরন্তর অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে। আমি বরাবরের মতই সততা, নিষ্ঠা এবং নির্ভরযোগ্যতার সাথে আমার পেশাগত দায়িত্ব পালনে সচেষ্ট থাকব।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মোঃ তোফায়েল ইসলাম বলেন, শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদানে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়, চট্টগ্রামের নৈতিকতা কমিটি ও বাছাই কমিটির সভায় সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীর কার্যাবলী পর্যালোচনা করা হয়। যাচাই-বাছাইয়ের পর চট্টগ্রাম বিভাগের ১১জন জেলা প্রশাসকের মধ্যে নির্বাচিত হয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক। কর্মক্ষেত্রে তার পদচারণা নিঃসন্দেহে সকলের জন্য অনুসরণীয় এবং একই সাথে অনুপ্রেরণাদায়ক।

উল্লেখ্য, সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল শিরোনামে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল ২০১২ সালে মন্ত্রীসভা বৈঠকে অনুমোদন করা হয় এবং ২০১৭ সালের ৬ এপ্রিল শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান নীতিমালা-২০১৭ সংক্রান্ত গেজেট জারি করা হয়।

শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য বিবেচ্য ১৮টি গুনণাবলি হচ্ছে- কর্মচারীর পেশাগত জ্ঞান ও দক্ষতা, সততার নিদর্শন স্থাপন করা, নির্ভরযোগ্যতা ও কর্তব্যনিষ্ঠা, শৃঙ্খলাবোধ, সহকর্মীদের সঙ্গে আচরণ, সেবাগ্রহীতার সঙ্গে আচরণ, প্রতিষ্ঠানের বিধিবিধানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকা, সমন্বয় ও নেতৃত্বদানের ক্ষমতা, তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারে পারদর্শিতা, পেশাগত স্বাস্থ্য ও পরিবেশ বিষয়ক নিরাপত্তা সচেতনতা, ছুটি গ্রহণের প্রবণতা, উদ্ভাবনী চর্চার সক্ষমতা, বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি বাস্তবায়নে তৎপরতা, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার, স্বপ্রণোদিত তথ্য প্রকাশে আগ্রহ, উপস্থাপন দক্ষতা, ই-ফাইল ব্যবহারে আগ্রহ, অভিযোগ প্রতিকারে সহযোগিতা করা। বিবেচিত কর্মচারীদের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারী শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হন।


আরও খবর



বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের দখলে প্রগতি সরণি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

কমপ্লিট শাটডাউনের অংশ হিসেবে রাজধানীর প্রগতি সরণি বসুন্ধরা গেটের সামনে থেকে নদ্দা, নতুন বাজার পর্যন্ত কোটাবিরোধী আন্দোলন করছেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। নদ্দা বাস স্টেশনের সামনে কয়েকশ শিক্ষার্থী আন্দোলনে অংশ নিচ্ছেন। পুরো প্রগতি সরণি সড়ক দখলে নিয়েছেন তারা।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) বেলা ১১টার পর রাস্তা অবরোধ করে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, নর্থ সাউথসহ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রাস্তা অবরোধ করে রেখেছেন। এ সময় যাতায়াতকারী সব যানবাহনের চলাচল বন্ধ রয়েছে। শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধের কারণে রাস্তায় অনেক যানবাহন আটকে আছে। আন্দোলন থেকে শিক্ষার্থীরা নানা স্লোগান দিয়ে যাচ্ছেন।

গতকাল রাজধানীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও শনির আখড়ায় পুলিশের সাথে আন্দোলনকারীদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে তিনি বলেন, উচ্চ আদালত থেকে ছাত্রসমাজ ন্যায়বিচার পাবে এবং তাদের হতাশ হতে হবে না।

এরপর দেশে কমপ্লিট শাটডাউন কর্মসূচির ঘোষণা করে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন। কর্মসূচি অনুযায়ী, হাসপাতাল ও জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠান ছাড়া সবকিছু বন্ধ থাকবে এবং রাস্তায় অ্যাম্বুলেন্স ছাড়া কোনো যানবাহন চলবে না বলে জানানো হয়।


আরও খবর