আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

বন্ধুর স্ত্রীকে ফাঁদে ফেলে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৮১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বন্ধুর স্ত্রীকে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে একটি ওষুধ কোম্পানির ম্যানেজার প্রতারক লুত্ফর রহমানের (৪৫) বিরুদ্ধে। ঐ প্রতারক গোপনে অশ্লীল ভিডিও ধারণ ও ভয় দেখিয়ে গৃহবধূর কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন ২০ লাখ টাকাসহ ১৫ ভরি স্বর্ণ। প্রতারকের হাত থেকে বাঁচতে গৃহবধূ র‌্যাবের কাছে অভিযোগ দেওয়ার পর সোমবার রাতে উপজেলার জামুর্কি ইউনিয়নের পাকুল্যা এলাকায় অভিযান চালিয়ে র‌্যাব অবশেষ লুত্ফরকে গ্রেফতার করে।

লুত্ফর উপজেলার আজগানা ইউনিয়নের চিতেশ্বরী গ্রামের মো. মইনুল হকের ছেলে।

গত মঙ্গলবার টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২ সূত্র জানায়, বেক্সিমকো ওষুধ কোম্পানিতে কর্মরত লুত্ফর রহমান পাকুল্যা বাজারের সোনালী ব্যাংকের মোহনা টাওয়ারের চারতলা বাসায় ভাড়া থাকতেন। চাকরির সুবাদে সখীপুর উপজেলার এক বন্ধুর স্ত্রীর সঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে নানা প্রলোভন ও প্রতারণার ফাঁদ পেতে সম্পর্ক গড়ে তোলেন এবং বিভিন্ন স্থানে নিয়ে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন।


আরও খবর



কবি আহসান হাবীবের জন্মদিন আজ

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জানুয়ারী 2০২2 | ৪৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আহসান হাবীব একজন খ্যাতিমান বাংলাদেশি কবি ও সাহিত্যিক।আহসান হাবীব একজন খ্যাতিমান বাংলাদেশি কবি ও সাহিত্যিক। চল্লিশের দশকে বাংলা কাব্য সাহিত্যে সৃষ্টিশীলতার যে জোয়ার এসেছিল তাতে হাতে গোনা কয়েকজন পূর্ববঙ্গীয় কবি যুক্ত হয়েছিলেন, আহসান হাবীব তাঁদের একজন। আজ তাঁর ১০৬তম জন্মদিন। তিনি ১৯১৭ সালের ২ জানুয়ারি তৎকালীন বাকেরগঞ্জ, বর্তমানে পিরোজপুরের শঙ্করপাশা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

আহসান হাবীব একজন খ্যাতিমান বাংলাদেশি কবি ও সাহিত্যিক। তার কবিতায় মধ্যবিত্তের সংকট ও জীবনযন্ত্রণা গভীরভাবে ফুটে উঠেছে। সামাজিক বাস্তবতা, মধ্যবিত্ত শ্রেণির সংগ্রামী চেতনা এবং সমকালীন যুগ যন্ত্রণা তার কবিতায় শিল্পসম্মতভাবে পরিস্ফুটিত হয়েছে।

দীর্ঘদিন দৈনিক বাংলার সাহিত্য সম্পাদক ছিলেন কবি আহসান হাবীব। এ ছাড়া দৈনিক আজাদ, মাসিক মোহাম্মদী, দৈনিক কৃষক, দৈনিক ইত্তেহাদ, সাপ্তাহিক প্রবাহ পত্রিকায় সাংবাদিকতা করেছেন তিনি। কলকাতায় আকাশবাণীতে 'গল্প দাদুর আসর' পরিচালনা করেছেন আহসান হাবীব। ১৯৩৩ সালে স্কুল ম্যাগাজিনে তার প্রবন্ধ 'ধরম' ও প্রথম কবিতা 'মায়ের কবরপাড়ে কিশোর' প্রকাশ পায়। প্রথম কবিতার বই 'রাত্রি শেষে' প্রকাশিত হয় ১৯৪৭ সালে।

আহসান হাবীবের উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ হলো- 'ছায়া হরিণ', 'সারা দুপুর', 'আশায় বসতি', 'মেঘ বলে চৈত্রে যাবো', 'দুই হাতে দুই আদিম পাথর' এবং 'প্রেমের কবিতা'। শিশুসাহিত্যেও অনবদ্য অবদান আছে তার। মনারে মনা কোথায় যাস?, ঝাউয়ের শাখায় শন শন শন, এই যে নদী, নদীর জোয়ার নৌকা সারে সারে- ইত্যাদি অন্যতম।

আহসান হাবীব ১৯৪৭ সালে বিয়ে করেন বগুড়া শহরের কাটনারপাড়া নিবাসী মহসীন আলী মিয়ার কন্যা সুফিয়া খাতুনকে। তিনি দুই কন্যা কেয়া চৌধুরী ও জোহরা নাসরীন এবং দুই পুত্র মঈনুল আহসান সাবের ও মনজুরুল আহসান জাবেরের জনক ছিলেন। কবি পুত্র সাবের একজন স্বনামখ্যাত বাংলা ঔপন্যাসিক ও প্রকাশনালয় দিব্যপ্রকাশের কর্ণধার। কবি আহসান হাবীব ১৯৮৫ সালের ১০ জুলাই ৬৮ বছর বয়সে মারা যান।

বাংলা ভাষা সাহিত্যে অবদানের জন্য তাঁকে বাংলাদেশ সরকার ১৯৭৮ সালে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদক এবং ১৯৯৪ সালে মরণোত্তর দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করে। এছাড়াও তিনি ইউনেস্কো সাহিত্য পুরস্কার ও একাডেমি পুরস্কার, আদমজী পুরস্কার, নাসির উদ্দিন স্বর্ণপদকএবং আবুল মনসুর আহমদ স্মৃতি পুরস্কার অর্জন করেন।

নিউজ ট্যাগ: কবি আহসান হাবীব

আরও খবর



সন্তান জন্ম দেওয়ার এত দরকার কেন : তসলিমা নাসরিন

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জানুয়ারী ২০২২ | ৭৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সন্তান জন্ম দেওয়ার এত দরকার কেন? মেয়েরা, এমনকী প্রতিষ্ঠিত, সমাজের নানা নিয়ম ভেঙে ফেলা সাহসী মেয়েরাও, তিরিশ পার হলেই সন্তান জন্ম দেওয়ার জন্য ব্যাকুল হয়ে ওঠে! মঙ্গলবার রাত থেকে তসলিমা নাসরিনের এই পোস্ট প্রশ্ন তুলে দিয়েছে, নাম না করে প্রথম সারির নায়িকা পরীমণিকেই কি বিঁধলেন তিনি? সোমবার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবর ফেসবুকে নিজেই জানান অভিনেত্রী।

সঙ্গে সঙ্গে তোলপাড় দুই বাংলা। পরী জানান, তিনি অভিনেতা শরিফুল রাজের সন্তান গর্ভে ধারণ করেছেন। ওই দিনই রাজ-পরীর গোপন বিয়ের খবরও জানেন সবাই। তার পরেই তসলিমার পোস্ট নজরে পড়ে সবার। দুই তারকার অনুরাগীদের অনুমান, এই পোস্ট সম্ভবত বাংলাদেশি নায়িকার উদ্দেশেই লেখা।

যৌন হেনস্থা থেকে মাদক মামলা সম্প্রতি পরীমণির জীবনে ঘটে যাওয়া একের পর এক অঘটনে তাঁকে খোলাখুলি সমর্থন জানিয়েছেন জনপ্রিয় এই লেখিকা। পরীমণির সাহস তাঁকে মুগ্ধ করেছিল সে সময়ে। তার পরেই বাকি মেয়ের মতোই গোপনে বিয়ে এবং প্রকাশ্যে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়া বোধ হয় ব্যতিক্রমী নায়িকার থেকে আশা করেননি তিনি।

তসলিমা যে কোনও বিষয়েই তাঁর মতপ্রকাশের জন্য বেছে নেন ফেসবুককে। এ বারেও তার অন্যথা হয়নি। লেখিকার মতে, এই ব্যাকুলতা কতটা নিজের জন্য, কতটা পুরুষতান্ত্রিক রীতিনীতি মানার জন্য? আমি কিন্তু মনে করি নিজের জন্য নয়। মেয়েরা সন্তান জন্ম দিতে চায় সমাজের দশটা লোকের জন্য। বাল্যকাল থেকে শুনে আসা, শিখে আসা 'মাতৃত্বেই নারীজন্মের সার্থকতা' জাতীয় বাকোয়াজ মস্তিস্কে কিলবিল করে বলেই মনে করে ইচ্ছেটা বুঝি নিজের।

তসলিমার এই কথার কিছুটা সমর্থন মিলেছে পরীমণির কথাতেই। মঙ্গলবার রাতে  একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে গুণিন ছবির ছোট্ট ঝলক পোস্ট করা হয়। সেখানে নেপথ্য কাহিনি হিসেবে রাজ-পরীর বিয়ের দৃশ্য (পর্দায় না বাস্তবে?) দেখানো হয়েছে। বেনারসি, গয়নায় সেজে ওঠা পরী প্রতি মুহূর্তে নিজেকে আয়নায় দেখতে ব্যস্ত। তার পর রাজের সঙ্গে মালাবদল। পাল্কি চড়ে তিনি শ্বশুরবাড়ির পথে। সেখানেই তাঁকে বলতে শোনা গিয়েছে, এই রকম বিয়ের স্বপ্নই আমি বরাবর দেখে এসেছি!’’ তা হলে কি তসলিমার কথাই ঠিক?

উত্তর অজানা। তবে তস যুক্তি, পৃথিবীতে মানুষের সংখ্যা প্রায় আটশ' কোটি। এত ভিড়ের পৃথিবীতে আপাতত কোনও নতুন জন্ম কাঙ্ক্ষিত হওয়ার কথা নয়। কিন্তু মেয়েরা যদি ভেবে নেয় জন্ম না দিলে তাদের জীবনের কোনও অর্থ নেই, তা হলে তারা যে ভুল তা তাদের বোঝাবে কে! সন্তানের জন্ম তারা দিতেই পারে যদি এমনই তীব্র তাদের আকাঙ্ক্ষা, তারপরও এ কথা ঠিক নয় জন্ম না দিলে তাদের জীবনের কোনও অর্থ নেই। কোনও কোনও মানুষ তাদের জীবনকে শখ করে অর্থহীন করে। তা ছাড়া, কারও জীবনই অর্থহীন নয়। বরং যে ভ্রূণ আজও জন্মায়নি, সে ভ্রূণ অর্থহীন! যুগে যুগে পৃথিবীর প্রচুর শিক্ষিত, স্বনির্ভর, সচেতন মেয়ে বিয়ে করেননি, সন্তান জন্মও দেননি!


আরও খবর



আর সাক্ষাৎকার দেবেন না প্রধান বিচারপতি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | ৩২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিদায়ী প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, অবসর জীবন একা একা কাটাবেন। কোনো সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দেবেন না।

তবে আগে সাংবাদিক থাকার কারণে অবসরে সাংবাদিকদের মিস করবেন বলে জানিয়েছেন দেশের ২২তম এই প্রধান বিচারপতি।

বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) সুপ্রিম কোর্টের মূল ভবনের নিচতলায় (রেজিস্ট্রার জেনারেলের অফিস সংলগ্ন) মুক্তিযুদ্ধ কর্নার উদ্বোধন উপলক্ষে এ কথা বলেন তিনি।

এই সময় আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান বিচারপতি বলেন, বিচারপতি যারা আসবেন মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে তাদের ভালো জ্ঞান থাকা দরকার। অনেক রায়ের মধ্যে হয়তো মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে লিখতে হবে। এই লাইব্রেরি উনাদের রায় লেখার জন্য সহায়ক হবে। কারণ এখানে এমনসব বই রাখা আছে, মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে কোনো রায় যখন হবে তখন পরিপূর্ণভাবে লিখতে পারবে।

পরে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধান বিচারপতি বলেন, আমার কাজ শেষ। আমি এখন অবসর জীবনযাপন করব। আমি একা একা কাটাব। আমি আগে সাংবাদিকতা করেছি। আপনারা কেউ সাক্ষাৎকার নিতে চাইলে আমি দেব না। এটা কিন্তু আগেই বলে দিলাম।

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপনারা এত বেশি লিখেছেন যে, আমি অনেক দিন রাতে ঘুমাইনি। আমি মনে করেছি আপনারা হয়তো আমাকে আপন মনে করে একটু বেশি লিখেছেন। আমি এটাতে মাইন্ড করি নাই।


আরও খবর



নিজের বাড়িতে থেকেই করোনা আক্রান্ত মিমি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ জানুয়ারী ২০২২ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনা আক্রান্তের তালিকা দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। সস্ত্রীক রাজ চক্রবর্তী, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, রুদ্রনীল ঘোষের পরে সাংসদ মিমি চক্রবর্তীর নামও এই তালিকায়। বুধবার সন্ধেয় টুইটার-ইনস্টাগ্রামে সেই খবর জানিয়েছেন মিমি নিজে। লিখেছেন, আমিও কোভিড পরীক্ষা করিয়েছিলাম। ফলাফল, পজিটিভ। যদিও কয়েক দিন আমি বাড়ির বাইরে বেরোইনি। কোনও সভা-সমাবেশে যাইনি। বাইরের কারওর সংস্পর্শেও আসিনি। এ-ও জানিয়েছেন, করোনা তাঁকে যথেষ্ট কাবু করেছে।

মিমি যদিও রোগ-সংক্রমণ সম্পর্কে যথেষ্ট সচেতন। ফলাফল জেনেই যোগাযোগ করেছেন চিকিৎসকের সঙ্গে। আপাতত তাঁর পরামর্শ মতোই চলছেন। সংক্রমণ ঠেকাতে ইতিমধ্যেই বাড়ির সকলের থেকে বিচ্ছিন্ন করে নিয়েছেন নিজেকে। নিজের বাড়িতেই নিভৃতবাসে তারকা অভিনেত্রী।

নিজের পাশাপাশি মিমি চিন্তিত জনসাধারণের স্বাস্থ্য নিয়েও। সবার উদ্দেশ্যে তাঁর সতর্কবাণী, অতিমারি ভয়াবহ আকারে ফিরে এসেছে। নতুন ভাইরাস অতি দ্রুত ছড়াচ্ছে। তাই প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাড়ির বাইরে যাবেন না। ভিড়ের থেকে দূরে থাকুন। মুখ থেকে কেউ মাস্ক সরাবেন না। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। হাত পরিষ্কারের জন্য সঙ্গে থাকুক স্যানিটাইজার।

টলিউডে এখন করোনার দাপট। আক্রান্ত হচ্ছেন একের পর এক তারকা। পরিচালক তথা ব্যারাকপুরের বিধায়ক রাজ চক্রবর্তী-শুভশ্রী, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, রুদ্রনীল ঘোষও জানিয়েছেন, তাঁদের শরীরে বাসা বেঁধেছে করোনা ভাইরাস। সংক্রমিতদের তালিকায় রয়েছেন শ্রীজাত, সৃজিত মুখোপাধ্যায়, শতরূপা সান্যাল, চিত্রাঙ্গদা চক্রবর্তীর মতো তারকারা।

দেব-রুক্মিণীও করোনা আক্রান্ত বলে রটেছিল টলিপাড়ায়। দেব জানিয়েছেন, করোনা পরীক্ষা করিয়েছেন তিনি। রুক্মিণীর রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও তিনি জ্বরে কাবু। জ্বরে আক্রান্ত অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্রও।

নিউজ ট্যাগ: মিমি চক্রবর্তী

আরও খবর



অস্কারে লড়বে গাজী রাকায়েতের সিনেমা ‘দ্য গ্রেভ’

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জানুয়ারী 20২২ | ১৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ থেকে এর আগে বহুবার অস্কার পুরস্কারের বিদেশি ভাষার ছবির জন্য সিনেমা পাঠানো হয়েছিল। তবে প্রয়াত তারেক মাসুদের মাটির ময়না ছাড়া মনোনয়ন পায়নি কোনোটিই। এবার বাংলাদেশিদের জন্য সুখবর বয়ে আনলো গাজী রাকায়েতের গোর বা দ্য গ্রেভ। ছবিটি অস্কার রিমাইন্ডার লিস্টে জায়গা করে নিয়েছে। ২৭৬টি সিনেমার সঙ্গে এটি ১২টি প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে

অ্যাকাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস প্রতিযোগিতার জন্য ২৭৬টি ছবির নাম ঘোষণা করেছে। তার মধ্যে স্থান পেয়েছে দ্য গ্রেভ। ছবিটি অস্কারের মূল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবে।

বিষয়টি নিয়ে গাজী রাকায়েত বলেন, ছবিটি অস্কারের মূল প্রতিযোগিতা ১২টি ক্যাটাগরিতে লড়াই করবে। সারাবিশ্বে অস্কারের ১০ হাজার ভোটার রয়েছেন। তাদের প্রত্যেকে ভোটারের কাছে এই ছবিগুলো ব্যালট আকারে পৌঁছে যাবে। যারা ম্যাক্সিমাম ভোট পাবে তারা পুরস্কার পাবে।

আমার জানা মতে, বাংলাদেশ থেকে এর আগে এতটা উঁচুতে কোনো ছবি যায়নি। এছাড়াও আরও একটা সম্ভাবনা তৈরি করলো যে, এর ফলে বাংলাদেশের দুএকজন অস্কার ভোটার হিসেবে যুক্ত হতে পারেন। সবমিলিয়ে এই অনুভূতিটা দারুণ লাগছে।'

চলতি বছরের ২৭ মার্চ অনুষ্ঠিত হবে ৯৪তম অস্কারের অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠান। যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসে ক্যালিফোর্নিয়ার ডলবি থিয়েটারে মোট ২৪টি শাখায় দেওয়া হবে পুরস্কারগুলো।

গাজী রাকায়েত নির্মিত বাংলাদেশের প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য ইংরেজি ছবি দ্য গ্রেভ। এর বাংলা নাম গোর। ছবির মূল চরিত্রে আছেন রাকায়েত। সরকারি অনুদানের এই ছবিটি পরিচালনার পাশাপাশি এর কাহিনি, সংলাপ ও চিত্রনাট্য করেছেন নির্মাতা নিজেই। ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশে মুক্তি পেয়েছিল ছবিটি। আন্তর্জাতিকভাবেও ছবিটি মুক্তি দেওয়ার জন্য এটি দুই ভাষায় নির্মাণ করা হয়। যা ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক দুটো ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পেয়েছে।

এছবিতে আরও অভিনয় করেছেন মামুনুর রশীদ, আশিউল ইসলাম, দীপান্বিতা মার্টিন, মৌসুমী হামিদ, দিলারা জামান প্রমুখ।

নিউজ ট্যাগ: দ্য গ্রেভ

আরও খবর