আজঃ শনিবার ০২ মার্চ 2০২4
শিরোনাম

দেশের ফুটবলে অবদান রাখছে ঠাকুরগাঁওয়ের মেয়েরা

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রেদওয়ানুল হক, ঠাকুরগাঁও

Image

ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ। আর এই কাঙ্ক্ষিত গোলটি আসে ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার রাঙাটুঙ্গি ইউনাইটেড মহিলা ফুটবল একাডেমির খেলোয়াড় সাগরিকার পা থেকে। এর আগেও গত শুক্রবার অনূর্ধ্ব-১৯ নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে সাগরিকা করেছেন জোড়া গোল। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে জেতানোর বড় ভূমিকা রেখেছিল রাণীশংকৈলের এই নারী খেলোয়াড়।

এক অজপাড়াগাঁয়ে সাগরিকার বেড়ে ওঠা। বাবা লিটন আলী সামান্য একটি চায়ের দোকান করে সংসারের ভার টানেন। বড় ভাই সাগর আলী অর্থ সংকটে পড়াশোনা করতে পারেনি। সে এখন স্থানীয় এক ইটভাটায় দিনমজুরের কাজ করে।

নেপালের বিপক্ষে মাঠে যে দুরন্ত সাগরিকাকে দেখা গেছে, তাকে হয়তো দেশের ফুটবলে নাও পাওয়া যেত। তার মা-বাবা একেবারেই নাকি রাজি ছিলেন না মেয়ের ফুটবল খেলার ব্যাপারে। মেয়ে জার্সি ও হাফ প্যান্ট পরে ফুটবল খেলবে এটা ভালো চোখে দেখতো না গ্রামবাসী। কিন্তু কন্যার জেদের কাছে হার মানতে হয়েছে বাবাকে। বাবাকে ভুল প্রমাণ করতে পেরে এবার সাগরিকা খুশি। যেন বলতে চেয়েছেন, বাবা, দেখো আমি পেরেছি।

রাণীশংকৈল রাঙাটুঙ্গি ইউনাইটেড মহিলা ফুটবল একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক তাজুল ইসলামের হাতে গড়া নারী খেলোয়াড় সাগরিকা। সাগরিকা মাঠে যত সাবলীল, ক্যামেরার সামনে ততটাই জড়সড়!

ঠাকুরগাঁওসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে একঝাঁক মেয়ে এসে ফুটবল রাঙাচ্ছেন জাতীয় দলে। সাগরিকা তাদেরই একজন। উঠে এসেছেন রাণীশংকৈল রাঙ্গাটুঙ্গী ইউনাইটেড ফুটবল একাডেমির পরিচালক তাজুল ইসলামের হাত ধরে। তিনি না থাকলে হয়তো সাগরিকার মতো প্রতিভাবান স্ট্রাইকার পেতো না বাংলাদেশের ফুটবল।

সাগরিকা বলেন, আমার মাবাবা চাইতেন না আমি ফুটবল খেলি। তবে আমার ফুটবলার হওয়ার পেছনে খালার অবদান সবচেয়ে বেশি। তিনি মাকে বলেছিলেন, মেয়ে আমাকে দাও, সে ফুটবল খেলুক। বাংলাদেশের জার্সিতে খেলার পর মাবাবার ভুল ভেঙেছে। আমি এতেই খুশি। গ্রামের যারা সমালোচনা করেছেন তারাই এখন সাগরিকাকে নিয়ে গর্ব করে।

সাগরিকার বাবা লিটন আলী বলেন, মেয়েকে বলেছিলাম তুমি জীবনেও কিছু করতে পারবে না। খেলতে দিতাম না। এখন মনে হয় আমার সিদ্ধান্ত ভুল আর মেয়েই সঠিক।

রাঙ্গাটুঙ্গী একাডেমির ফুটবলার সাগরিকা বিকেএসপিতে সুযোগ পেয়ে ও যাননি। ২০২২ সালে হওয়া ঘরোয়া নারী ফুটবল লিগের সর্বশেষ আসরে জাতীয় দলের সাবেক কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের নজর কাড়েন। ওই বছর মেয়েদের লিগে খেলেন এফসি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হয়ে। প্রথম ম্যাচেই হ্যাটট্রিক করে নজরে পড়েন কোচের। সাবিনা খাতুন, কৃষ্ণা রানী সরকার, সিরাত জাহান স্বপ্না, শামসুন্নাহার জুনিয়র, শাহেদা আক্তার রিপাদের মতো অভিজ্ঞদের সঙ্গে লড়াই করে তাদের সারিতে নাম লেখান সাগরিকা।

গত বছর কমলাপুর স্টেডিয়ামে হওয়া অনূর্ধ্ব-১৭ নারী সাফে খেলেছিলো রাশিয়া। যে টুর্নামেন্টে গোল পেতে রীতিমতো লড়াই করতে হয় বাংলাদেশকে। ওই টুর্নামেন্টে ভুটানের বিপক্ষে ১ গোল করেন সাগরিকা। নেপালের সঙ্গে হারতে বসা ম্যাচে বাংলাদেশ ১ পয়েন্ট পায় সাগরিকার গোলেই। এরপর সাগরিকা খেলেন এএফসির দুটি টুর্নামেন্টে সিঙ্গাপুর ও ভিয়েতনামে। সেখানেও গোল পেয়েছেন ভিয়েতনামে। ফিলিপাইনের কাছে ৩-১ গোলে হারের ম্যাচে একমাত্র গোলটি সাগরিকার।

নেপালের বিপক্ষে সাগরিকার খেলা দেখে উচ্ছ্বসিত তাজুল ইসলাম, এই মেয়েদের নিয়ে যে স্বপ্ন দেখেছিলাম তাতে আমি সফল, স্বার্থক। তাজুলরা আছেন বলেই হয়তো চা-দোকানির সোনার মেয়েরা অবদান রাখে দেশের ফুটবলে।

নিউজ ট্যাগ: ঠাকুরগাঁও

আরও খবর



বরের দেখা নেই, নিজেদের গলায় মালা পরাচ্ছেন কনেরা!

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

বিয়ে নিয়ে শখ বা সামাজিক বিভিন্ন রীতি রয়েছে। সমাজে যৌতুকবিরোধী বিয়ের জন্য নানা আয়োজনের গল্পও শোনা যায়। তবে এবার সামনে এসেছে নতুন গল্প। বিয়েতে বর নেই, তাই এই গণআয়োজনে নিজেদের গলায় মালা পরাচ্ছেন কনেরা। রোববার (০৪ ফেব্রুয়ারি) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওর বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, ভিডিওতে দেখা যায়- সারি দিয়ে দাঁড়িয়েছেন কনেরা। প্রত্যেকের মাথায় ঘোমটা ও পরনে রয়েছে গাঢ় কমলা রঙের শাড়ি। জমকালো আয়োজনের চলছে বিয়ের প্রস্তুতি। তবে বর না থাকায় শেষ পর্যন্ত কনেরা নিজেরা নিজেদের গলায় মালা পরিয়ে দিচ্ছেন। গণবিয়ের ওই আয়োজনে বর ছাড়াই শেষ পর্যন্ত বিয়ে সম্পন্ন হয়।

জানা গেছে, অদ্ভুত এ ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশের বালিয়া জেলায়। সমাজ উন্নয়ন দপ্তরের উদ্যোগে মানিয়ার ইন্টারকলেজ চত্বরে গত ২৫ জানুয়ারি এ গণবিবাহের আয়োজন করা হয়েছিল। এ ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। যদিও এর সত্যতা যাচাই করতে পারেনি সংবাদমাধ্যমটি। তবে বিষয়টি নিয়ে হৈচৈ শুরু হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। 

আরও পড়ুন>> তুমব্রু সীমান্তের বিজিবি ক্যাম্পে মিয়ানমারের ৬৬ সীমান্তরক্ষী

গ্রামবাসীদের অভিযোগ, সরকারি টাকা পাওয়ার লোভে এ ভুয়া বিয়ের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে আসলে কারও বিয়ে হয়নি। নারীরা এ আয়োজনে ঘোমটা দিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন এবং নিজেরা নিজেদের গলায় মালা পরিয়েছেন। সেখানে নারীদের ভিড়ে অনেক পুরুষ ছিলেন বলেও অভিযোগ স্থানীয়দের।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই গণবিয়ের আয়োজনে ৫৬৮ যুগলের নাম নথিভুক্ত করা হয়েছিল। সরকারের পক্ষ থেকে এ আয়োজনে প্রতি যুগলের জন্য ৫১ হাজার টাকা বরাদ্দ ছিল। বিয়ে করলেই এ টাকা পাওয়া যাবে বলেও জানানো হয়েছিল। যেখানে ৩৫ হাজার টাকা কনের অ্যাকাউন্টে ঢোকার কথা ছিল। এ ছাড়া ১০ হাজার টাকার উপহারও পাবেন বর-কনে মিলে। অভিযোগ রয়েছে, সরকারি টাকা ‍ও উপহারের বরাদ্দ হাত করতেই এমন আয়োজন করা হয়েছিল।

তদন্তের পর এ ঘটনায় আট নারীসহ অ্যাডিশনাল ডেভেলপমেন্ট অফিসার সুনীর কুমার যাদবের বিরুদ্ধে মানিয়ার থানায় এফআইআর করা হয়েছে। সরকারি কর্মকর্তারা এ ঘটনায় জড়িত রয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে এখনও তদন্ত চলছে।


আরও খবর



ছুটির দিনেও বায়ুদূষণে আজ শীর্ষে ঢাকা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আজ শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন। যানবাহনের চলাচল কম, অনেক কলকারাখানাও আজ বন্ধ। তারপরও আজ বায়ুদূষণে বিশ্বের শীর্ষে আছে ঢাকা।

শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯টা ৮ মিনিটে এয়ার কোয়ালিটি ইনডেকক্সে (একিউআই-বায়ুর মান সূচক) স্কোর ছিল ২৩৯, যা খুব অস্বাস্থ্যকর হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বিশ্বের ১০০টি দেশের মধ্যে বায়ু দূষণের এ তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে পাকিস্তানের লাহোর, স্কোর ২২৩। ২১৩ স্কোর নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারতের দিল্লি। চতুর্থ স্থানে রয়েছে ইরাকের বাগদাদ, স্কোর ১৮৭। পঞ্চম স্থানে রয়েছে ভারতের মুম্বাই, স্কোর ১৮৫।

১০১ থেকে ১৫০ এর মধ্যে হলে বাতাসের মান 'সংবেদনশীল গোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর', ১৫০ থেকে ২০০ এর মধ্যে একিউআই স্কোরকে অস্বাস্থ্যকর বলে মনে করা হয়।

২০১ থেকে ৩০০ এর মধ্যে 'খুব অস্বাস্থ্যকর' বলা হয়, ৩০১+ একিউআই স্কোরকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়, যা বাসিন্দাদের জন্য গুরুতর স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি করে।

বাংলাদেশে একিউআই নির্ধারণ করা হয় দূষণের ৫টি বৈশিষ্ট্যের ওপর ভিত্তি করে। সেগুলো হলো- বস্তুকণা (পিএম১০ ও পিএম২.৫), এনও২, সিও, এসও২ ও ওজোন (ও৩)।

দীর্ঘদিন ধরে বায়ু দূষণে ভুগছে ঢাকা। এর বাতাসের গুণমান সাধারণত শীতকালে অস্বাস্থ্যকর হয়ে যায় এবং বর্ষাকালে কিছুটা উন্নত হয়।

২০১৯ সালের মার্চ মাসে পরিবেশ অধিদপ্তর ও বিশ্বব্যাংকের একটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ঢাকার বায়ু দূষণের তিনটি প্রধান উৎস হলো- ইটভাটা, যানবাহনের ধোঁয়া ও নির্মাণ সাইটের ধুলো।


আরও খবর



বিএনপিকে ভুলের খেসারত অনেক দিন দিতে হবে : ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বিএনপি নির্বাচনে না এসে ভুলের খেসারত দিচ্ছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপি যে ভুল করেছে সেই ভুলের খেসারত অনেক দিন দিতে হবে।

শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আওয়ামী লীগের সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বিফ্রিংয়ে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

পাকিস্তানের নির্বাচন প্রসেঙ্গে কাদের বলেন, তাদের গণতন্ত্র আর বাংলাদেশের গণতন্ত্র যোজন যোজন দূরের ব্যবধান। দুনিয়ার কোনো দেশে তত্ত্বাবধায়ক নেই, কিন্তু পাকিস্তান তথাকথিত তত্ত্বাবধায়ক ধরে রেখেছে। আমরা গণতন্ত্রের ট্রু ফর্ম অনুসরণ করি। নির্বাচনে বিরোধীদল আসেনি, কিন্তু নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। আমরা বলছি না আমাদের গণতন্ত্র শতভাগ পারফেক্ট। গণতন্ত্রের সবক দেয় যে পশ্চিমা বিশ্ব, তারাও পারফেক্ট নয়।

পাকিস্তান-বাংলাদেশের তুলনা করে কাদের বলেন, দুই দেশের মধ্যে পার্থক্যটা হলো আমাদের দেশের নির্বাচন নিয়ে বিদেশি শক্তি বিশেষ করে পশ্চিমা বিশ্ব যেভাবে মাতামাতি করতে দেখা যায়। ভিসানীতির কথা বলা হয়। অন্যদিকে পাকিস্তানের ক্ষেত্রে এ নিয়ে মাতামাতি নেই।

আরও পড়ুন>> আ. লীগের টিকিটে সংরক্ষিত এমপি হতে চান ১৫৪৯ জন নারী

রাজনীতির মাঠে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রসঙ্গে কাদের বলেন, যতটুকু জানি তার অনেক মামলায় জামিন হয়েছে। প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলার মামলা একটু অসুবিধার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। হয়তো একটা সময় জামিন হয়ে যাবে। একজন বিনা বিচারে আটকে থাকবে এটা সরকারও চায় না। জামিন হয়নি, ভবিষ্যতে হবে না এটা ঠিক নয়।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশের চিকিৎসা প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, পারিবারিকভাবে আবেদন করুক। স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয় কীভাবে সুপারিশ করে তারপর বলা যাবে।

এ সময় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, মির্জা আজম, সুজিত রায় নন্দী, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, প্রচার ও প্রকাশনাবিষয়ক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, উপদপ্তর সায়েম খান, কার্যনির্বাহী সদস্য সাহাবুদ্দিন ফরাজী প্রমুখ।


আরও খবর



জ্ঞানবাপী মসজিদে পূজা চলবে: হাইকোর্টের রায়

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ভারতের জ্ঞানবাপী মসজিদের চত্বরে পূজা চলবে বলে রায় বহাল রেখেছেন এলাহাবাদ হাইকোর্ট। আজ সোমবার এলাহাবাদ হাইকোর্ট মুসলিম পক্ষের আবেদন খারিজ করে দেয়। অর্থাৎ জ্ঞানবাপী মসজিদের 'ব্যস জি কা তয়খানাতে' হিন্দুদের পুজোপাঠ জারি থাকবে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এই সময়ের এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা যায়।

ভারতের উত্তরপ্রদেশের জ্ঞানবাপী মসজিদের তহখানায় পূজা করার অনুমতি দিয়েছিলেন বারাণসীর জেলা আদালত। পরে এ নির্দেশনা বাতিল চেয়ে মুসলিমদের পক্ষ থেকে এলাহাবাদ হাইকোর্টে আবেদন করা হয়। এবার রায়ে পূজার পক্ষেই নির্দেশনা আসলো।

এর আগে গত ৩১ জানুয়ারি জ্ঞানবাপী মসজিদের তহখানায় পূজা করার অনুমতি দেন বারাণসী জেলা আদালত। এ অনুমতির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সেখানে পূজা ও আরতি করা হয়। পূজার সময় উপস্থিত ছিল প্রশাসনের লোকজনও। জেলা আদালতের সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় অঞ্জুমান ইন্তেজামিয়া মসজিদ কমিটি।

হিন্দুত্ববাদী শাসক যোগী আদিত্যনাথের রাজ্যের একদল হিন্দু দাবি করেছে, জ্ঞানবাপী মসজিদের ওজুখানা চত্বরে অসম্পূর্ণ শিবলিঙ্গের অস্তিত্ব মিলেছে। এ ছাড়া মসজিদটিতে হনুমান, বিষ্ণু, নান্দীর মূর্তিও থাকারও দাবি করছে তারা। তাই তাদের পূজা করতে দিতে হবে। এক পর্যায়ে ঘটনাটি আদালত পর্যন্ত গড়ায়। বারাণসি ও এলাহাবাদ হাইকোর্টে রায় আসে যে সেখানে পূজা চলবে। বিচারপতি রোহিত রঞ্জন আগরওয়ালের সিঙ্গেল বেঞ্চ এদিন এই রায় দেয়।

এই জয়ের পর আইনজীবী বিষ্ণু শংকর জৈন বলেন, 'আঞ্জুমান ইন্তেজামিয়ার প্রথম আবেদনই খারিজ করে দিয়েছে এলাহাবাদ হাইকোর্ট। ১৭ এবং ৩১ জানুয়ারি বারাণসী জেলা আদালতের রায় বহাল রাখার কথা জানিয়েছে হাইকোর্ট। অর্থাৎ জ্ঞানবাপী মসজিদের ব্যস জি কা তহখানাতে পূজা চলবে।'

নিউজ ট্যাগ: হাইকোর্ট মসজিদ

আরও খবর



কারো মিথ্যা প্রতিশ্রুতিতে বিভ্রান্ত হবেন না : ইকরামুল হক টিটু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

Image

আপনারা কেউ কোন প্রার্থীর মিথ্যা প্রতিশ্রুতিতে বিশ্বাস করবেন না, কেউ বিভ্রান্তও হবেন না, নির্বাচনে অনেকেই মিথ্যা প্রতিশ্রুতি বা আশ্বাস দিয়ে বিভ্রান্ত করে ভোট চাইবে।

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ঘড়ি প্রতীকে মেয়র প্রার্থী ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ ইকরামুল হক টিটু নগরীর ব্যস্ততম এলাকা গাঙ্গিনাপাড়ে গণসংযোগকালে ভোটারদের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, শুনেছি একজন প্রার্থী সিটি কর্পোরেশনের এখতিয়ারের বাইরে অসম্ভব কিছু প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, আনন্দ মোহন কলেজকে পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় করে দিবে, ব্রহ্মপুত্র নদ খনন করে দিবে, আবার আরেক প্রার্থী প্রচারণা চালিয়ে বলছেন, কর ফ্রী করে দিবেন, আসলে বাস্তবে এসব কথার কোন ভিত্তি নেই এবং সম্ভবও না, সিটি কর্পোরেশন একটি নিদিষ্ট বিধিমালা ও আইন অনুযায়ী চলে, এছাড়া রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে একটি সুনির্দিষ্ট পরিপত্র অনুসরণ করে।

পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় করা এবং ব্রহ্মপুত্র নদ খনন করা এগুলো শিক্ষা এবং নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের কাজ, এজন্যই আপনাদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই কোন প্রার্থীর মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিলে বিশ্বাস করবেন না, বিভ্রান্তও হবেন না।

এ সময় তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সিটির উন্নয়নে যেসব প্রকল্প বরাদ্দ দিয়েছেন এসব প্রকল্পগুলো দৃশ্যমান হলে নগরীর চেহারা পাল্টে যাবে। এজন্য অসমাপ্ত ও প্রক্রিয়াধীন কাজগুলো বাস্তবায়ন করতে এবং একটি পরিকল্পিত সমৃদ্ধ আধুনিক ময়মনসিংহ নগরী গড়তে সকলের সহযোগিতা এবং আগামী ৯ মার্চ টেবিল ঘড়ি প্রতীকে ভোট দিন।

গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দসহ স্থানীয় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।


আরও খবর