আজঃ রবিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩
শিরোনাম

ডিএনসিসি কাউন্সিলর শফিকুলের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ অক্টোবর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৭ অক্টোবর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

দুই কোটি ৫৮ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) সংস্থাটির উপপরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০২১ সালের ১৫ মার্চ দুদকে দাখিল করা সম্পদ বিবরণীতে নিজের নামে ১১ কোটি ৯৬ লাখ ৫৬ হাজার ৬৭৭ টাকার সম্পদের কথা উল্লেখ করেছিলেন কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম। এরমধ্যে ১১ লাখ ১২ হাজার ৭৫০ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করেন তিনি। এছাড়া তার ২ কোটি ৫৮ লাখ ২১ হাজার ৯৯০ টাকার অবৈধ সম্পদেরও প্রমাণ মিলেছে।

মো. শফিকুল ইসলাম নিজের নামে ২৯টি দলিলের মাধ্যমে মোট ৪ কোটি ৬৯ লাখ ৯৬ হাজার ১০৪ টাকার স্থাবর সম্পদ ও বিভিন্ন ব্যাংক হিসাবে ৭ কোটি ২৬ লাখ ৬০ হাজার ৫৭৩ টাকার অস্থাবর সম্পদের বিবরণ দেন। কিন্তু তিনি সেখানে ৭ লাখ ৪৯ হাজার ৬৪৫ টাকার স্থাবর সম্পদ ও ৩ লাখ ৬৩ হাজার ১০৫ টাকার অস্থাবর সম্পদের তথ্য গোপন করেছেন, অনুসন্ধানে এমন প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করেছে দুদক।

এছাড়া অনুসন্ধানে দুদক তার ব্যয় বাদ দিয়ে নিট সম্পদের পরিমাণ পেয়েছে ১০ কোটি ৯১ লাখ ৩২ হাজার ৭৭১ টাকা। যার মধ্যে ২ কোটি ৫৮ লাখ ২১ হাজার ৯৯০ টাকার সম্পদ অর্জনের বিপরীতে তিনি বৈধ আয়ের উৎস দেখাতে পারেননি; যা তার আয়ের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ ও জ্ঞাত আয়ের উৎস বহির্ভূত সম্পদ বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এই কারণে মামলায় দুদক আইন ২০০৪ এর ২৬(২) ও ২৭(১) ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে কাউন্সিলর মো. শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে।


আরও খবর



বাগেরহাটের নয় মানবতাবিরোধীর রায় আজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে বাগেরহাটের ৯ জনের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার (৯ নভেম্বর) রায় ঘোষণা করবেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহীনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এ রায় ঘোষণা করবেন। রায় ঘোষণার জন্য গত মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহীনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল এই দিন ধার্য করেন।

এ মামলায় বর্তমানে নয় আসামির মধ্যে ছয়জন পলাতক। কারাবন্দি তিন আসামি হলেন- খান আকরাম হোসেন, শেখ মো. উকিল উদ্দিন ও মো. মকবুল মোল্লা।

আসামিদের বিরুদ্ধে সাতটি অভিযোগ আনা হয়েছে। অভিযোগগুলো হলো: 

এক নম্বর অভিযোগ : ১৯৭১ সালের ২৬ মে ১৫/২০ জন রাজাকার ও ২৫/৩০ জন পাকিস্তান দখলদার সেনাবাহিনীর সদস্যসহ বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ থানাধীন চাপড়ী ও তেলিগাতীতে নিরীহ নিরস্ত্র মুক্তিকামী মানুষদের ওপর অবৈধভাবে হামলা চালিয়ে ৪০/৫০টি বাড়ির সব মালামাল লুণ্ঠন করে, বাড়িঘর অগ্নিসংযোগে সম্পূর্ণ ধ্বংস করে, দুইজন নিরীহ নিরস্ত্র মানুষকে হত্যার উদ্দেশ্যে গুরুতর জখম করে এবং ১০ জন নিরীহ নিরস্ত্র স্বাধীনতার পক্ষের মানুষকে গুলি করে হত্যা করে।

দুই নম্বর অভিযোগ : ১৯৭১ সালের ৭ জুলাই আসামিরা বাগেরহাট জেলার কচুয়া থানাধীন হাজরাখালী ও বৈখালী রামনগরে হামলা চালিয়ে অবৈধভাবে নিরীহ নিরস্ত্র স্বাধীনতার পক্ষের চারজন লোককে আটক ও অপহরণ করে আবাদের খালের ব্রিজে হত্যা করে মরদেহ খালে ফেলে দেয়।        

তিন নম্বর অভিযোগ : ১৯৭১ সালের ১৩ নভেম্বর বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ থানাধীন ঢুলিগাতী গ্রামে হামলা চালিয়ে দুইজন নিরস্ত্র মুক্তিযোদ্ধাকে অবৈধ আটক, নির্যাতন ও গুলি করে হত্যা করে।

চার নম্বর অভিযোগ : ১৯৭১ সালের ১৭ নভেম্বর বাগেরহাট জেলার কচুয়া থানাধীন বিলকুল ও বিছট গ্রামে হামলা চালিয়ে চারজন নিরীহ নিরস্ত্র স্বাধীনতার পক্ষের লোককে আটক ও অপহরণ করে কাঁঠালতলা ব্রিজে এনে নির্যাতন করার পর গুলি করে হত্যা করে মরদেহ নদীতে ফেলে দেয়।

পাঁচ নম্বর অভিযোগ : ১৯৭১ সালের ৩০ নভেম্বর বাগেরহাট জেলার কচুয়া থানাধীন বিলকুল গ্রাম হতে নিরস্ত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা মুনসুর আলী নকীবকে অন্যায়ভাবে আটক ও অপহরণ করে মোড়লগঞ্জ থানার দৈবজ্ঞহাটির গরুর হাঁটির ব্রিজের ওপরে নিয়ে নির্যাতন করার পর গুলি করে হত্যা করে।

ছয় নম্বর অভিযোগ : ১৯৭১ সালের ১৬ অক্টোবর বাগেরহাট জেলার কচুয়া থানাধীন উদানখালী গ্রামে হামলা চালিয়ে স্বাধীনতার পক্ষের নিরীহ নিরস্ত্র উকিল উদ্দিন মাঝিকে অবৈধভাবে আটক করে হত্যা করে এবং তার মেয়ে তাসলিমাকে অবৈধভাবে আটক ও অপহরণ করে কচুয়া রাজাকার ক্যাম্পে নিয়ে আসে। কচুয়া রাজাকার ক্যাম্প ও আশেপাশের রাজাকার ক্যাম্পে দীর্ঘদিন অবৈধভাবে সলিমাসহ চারজনকে আটকিয়ে রেখে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। ১৬ ডিসেম্বর বিকেল ৪টায় বাংলাদেশ দখলদার মুক্ত হলে মুক্তিযোদ্ধারা রাজাকার ক্যাম্প তল্লাশি করে ভিকটিম তাসলিমাকে উদ্ধার করে তার বাড়িতে পৌঁছে দেন।

সাত নম্বর অভিযোগ : বাগেরহাট জেলার কচুয়া থানাধীন গজালিয়া বাজারে হামলা চালিয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের নিরীহ নিরস্ত্র শ্রীধাম কর্মকার ও তার স্ত্রী কমলা রানি কর্মকারকে অবৈধভাবে আটক করে নির্যাতন করতে থাকে। আসামিরা শ্রীধাম কর্মকারকে হত্যা করে কমলা রানি কর্মকারকে জোরপূর্বক অপহরণ করে কচুয়া রাজাকার ক্যাম্পে এনে আটকে রাখে। উল্লিখিত আসামিসহ কচুয়া রাজাকার ক্যাম্প ও আশেপাশের রাজাকার ক্যাম্পে কমলা রানি কর্মকারসহ আটক করা অন্যান্য চারজনকে দীর্ঘদিন রাজাকার ক্যাম্পে আটকে রেখে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। প্রায় এক মাস শারীরিক নির্যাতনের পর কমলা রানি কর্মকার অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং তিনি সেখান থেকে পালিয়ে যান।


আরও খবর
তফসিল স্থগিত চাওয়া রিটের শুনানি আজ

রবিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩

হাইকোর্টে জিতলেন ড. ইউনূস

বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩




যুক্তরাষ্ট্রে ছড়ানো ‘জোম্বি ড্রাগ’ নিয়ে বাংলাদেশে সতর্কবার্তা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

যুক্তরাষ্ট্রে ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়া সিনথেটিক মাদক জোম্বি ড্রাগ যেন বাংলাদেশে ছড়াতে না পারে, সে জন্য সতর্কতা জারি করেছে সরকার। মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের গোয়েন্দা শাখা থেকে এ সংক্রান্ত সতর্কবার্তা জারি করা হয়।

জানা যায় জোম্বি ড্রাগ কোনো একক মাদক নয়। জাইলাজিন নামের একটি ট্রাঙ্কুইলাইজার গরু বা ঘোড়ার ক্ষেত্রে চেতনানাশক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। সেই ওষুধ নিয়ে নেশা করছে যুক্তরাষ্ট্রের মাদকসেবীরা। প্রভাব ও স্থায়িত্ব বাড়ানোর জন্য কখনও কখনও এর সঙ্গে মেশানো হচ্ছে ফেন্টানিল, হেরোইন, কোকেনের মত অন্য মাদক। ওষুধটি যেহেতু ট্রাঙ্কুইলাইজার, সে জন্য এ মাদককে ট্রাঙ্কও বলা হয়।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে বিপজ্জনক এ ধরনের মাদক নানারকম মারাত্মক স্বাস্থ্য সমস্যার পাশপাশি মৃত্যুও ডেকে আনতে পারে। যুক্তরাষ্ট্রে এর ব্যবহার ভয়াবহ মাত্রায় বেড়ে গেছে। সে কারণে বাংলাদেশেও সতর্ক হওয়া প্রয়োজন।

এতে আরও বলা হয়েছে এ মাদকটি মানবদেহে মারাত্মক ইনফেকশন, দৃষ্টিভ্রম এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত ঘটাতে পারে। এটি অল্প পরিমাণে সেবন করলে সেবনকারী বাস্তব ভুলে কল্পনার জগতে বিচরণ করে। সামান্য বেশি সেবনে মৃত্যু নিশ্চিত হয়ে পড়ে।বিমানবন্দরেও যেন জোম্বি ড্রাগ বা ট্রাঙ্ক-এর বিষয়েও সতর্কতা বাড়ানো হয়, সেজন্যই ওই সতর্কতা জারি করা হয়েছে বলে জানান অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। 

আরও পড়ুন>> শরিকদের জন্য ১০০ আসন ছেড়ে দেওয়া হবে: ওবায়দুল কাদের

এ বিষয়টি প্রথম অধিদপ্তরের নজরে আনেন রাজশাহী অঞ্চলের উপ-পরিচালক (গোয়েন্দা) মোহা. জিল্লুর রহমান। গত (৩০ আগস্ট) এ বিষয়ে ১১ পাতার একটি প্রতিবেদন পাঠান ঢাকায় অধিপ্তরের প্রধান কার্যালয়ে।

এ প্রসঙ্গে উপ-পরিচালক জিল্লুর রহমান বলেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর নোডাল এজেন্সি হিসেবে দেশে এবং বিদেশে সমসাময়িক যেসব মাদকের প্রাদুর্ভাব ঘটছে, সেদিকে নজর রাখে। সাম্প্রতিক সময়ে আমেরিকায় এ মাদকটির ব্যাপক প্রাদুর্ভাব ঘটায় পূর্ব সর্তকতা অবলম্বন করতে বিষয়টি অধিদপ্তরের নজরে আনা হয়। এর আগে গত (২০ আগস্ট) মাঙ্কি ডাস্ট নামে আরেক মাদকের বিষয়েও সতর্কতা জারি করেছিল মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, যা যুক্তরাজ্যে ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়েছিল।


আরও খবর
নবম দফায় ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ চলছে

রবিবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২৩




তিন পানি খেলে ওজন কমে, শরীর রাখে ফুরফুরে

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১০ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
জীবন ধারা ডেস্ক

Image

ডায়েটের হাজারো ফর্মুলা মেনেও ওজন কমার নাম নেই। এদিকে জিমে যাওয়ার মতো সুযোগ বা ইচ্ছে কোনোটাই নেই। তাই বলে কি ওজন কমানো যাবেনা? অবশ্যই যাবে৷ তবে ভরসাটুকু জাপানি এক পদ্ধতির ওপর রাখতে হবে৷ জাপানিরা বহু বছর ধরেই তাদের 'ওয়াটার থেরাপি' দিয়ে ওজন কমাচ্ছে। এতে পাকস্থলীর সুস্থতা নিশ্চিত হয় এবং হজমের সমস্যাও মিটে। তাহলে আসুন জেনে নেই এই 'ওয়াটার পদ্ধতি'।

লেবু পানি

এক গ্লাস উষ্ণ পানি গোটা একটি লেবুর রস মিশিয়ে খেয়ে নিন সকালেই। এই পানীয় শুধু সকালের নয়, দিনের মধ্যে তিন-চার বার খেতে পারেন। গরম পানিতে লেবু মেশানোর কারণে অ্যাসিডিটি তো হয়ই না, উল্টে শরীরের জমে থাকা টক্সিন এতে দূর হয়। এ ছাড়া লেবুর জল গোটা বিপাক হার বৃদ্ধি করে। ফলে খাবার হজম করতে সমস্যা হয় না।

জিরে পানি

এক গ্লাস পানিতে এক চা চামচ সাদা জিরে ভিজিয়ে রাখুন। সারা রাত ভিজিয়ে রাখার পর সকালে সেই পানিটা ছেঁকে ফুটিয়ে নিন। এ বার তাতে সামান্য লেবু মিশিয়ে করে ঈষদুষ্ণ অবস্থায় খেয়ে নিন । জিরের মধ্যে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট থাকায় তা হজমে সাহায্য করে। শরীর থেকে বাড়তি টক্সিন বার করে বিপাক ক্রিয়ার হারও বাড়ায় জিরে।

গ্রিন টি

গ্রিন টি-র সঙ্গে পুদিনা পাতা মিশিয়ে ফুটিয়ে নিন ভাল করে। এই পানীয়ে লেবুর রস মিশিয়ে খেয়ে নিন। গ্রিন টি যেমন বিপাক হার বাড়িয়ে ওজন কমাতে সাহায্য করে, তেমনই পুদিনার সঙ্গে খেলে হজমপ্রক্রিয়াও ভাল থাকে।


আরও খবর



তিশা-ফারুকী অভিনীত সিনেমা ‘অটোবায়োগ্রাফি’ মুক্তি পাচ্ছে ৩০ নভেম্বর

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

ওটিটি প্ল্যাটফর্ম চরকিতে মিনিস্ট্রি অব লাভ-প্রজেক্টে জনপ্রিয় ১২ জন নির্মাতা ভালোবাসার গল্প নিয়ে ১২টি চরকি অরিজিনাল ফিল্ম বানাচ্ছেন। এই পুরো প্রজেক্টের সার্বিক তত্ত্বাবধানে আছেন মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। তিনি নিজে নির্মাণ করেছেন দুটি সিনেমা অটোবায়োগ্রাফিমনোগামী। আগামীকাল ৩০ নভেম্বর রাত ৮টায় মুক্তি পাবে মিনিস্ট্রি অব লাভ-এর প্রথম সিনেমা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত চরকি অরিজিনাল ফিল্ম সামথিং লাইক অ্যান অটোবায়োগ্রাফি

সামথিং লাইক অ্যান অটোবায়োগ্রাফি ইলহাম হওয়ার পর আমার প্রথম কাজ। রাইটার হিসেবে আমার প্রথম লেখা। ইলহামের প্রথম মিউজিক ভিডিও, একজন ডিরেক্টর ফারুকীর প্রথম অভিনয়-এই ফিল্মে অনেক কিছুই প্রথমবার ঘটেছে। আর যে কোনো প্রথম বিষয় মানুষের জীবনে অনেক স্পেশাল। তাই সামথিং লাইক অ্যান অটোবায়োগ্রাফি আমার জন্য অনেক স্পেশাল। কথাগুলো বলছিলেন অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা।

তিশা কথাতেই উঠে এসেছে সিনেমাটিতে অনেকগুলো প্রথমের সমন্বয় ঘটেছে। তিশা আরও বলেন, এই সিনেমা নিয়ে যদি আরও কিছু বলতে হয় তাহলে আমি ছোট্ট করে বলব এই সিনেমাটা হচ্ছে সকল সন্তানের প্রতি তার মা বাবার অনুভূতির উপহার।

পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকী বলেন, অনেক দিন তো কাজ করছি। কখনো ভাবি নাই অভিনয় করব। সেটাও করা হয়ে গেল। ফলে এক ধরনের সংকোচ ভাবত আছেই। একই সঙ্গে উত্তেজনাও কাজ করছে। নিজেদের জীবনের গল্প বের করে আনার মধ্যে একটা ভালনারেবিলিটি আছে। কিন্তু হৃদয় খুঁড়ে বেদনা বের করে আনাইতো শিল্পীর কাজ।

ফারুকী আরও বলেন, নিজের সময়টার সাক্ষী হওয়া ছাড়া আমাদের আর কিই বা করার আছে। আমরা এখানে সেটাই করার চেষ্টা করেছি। বাবা মা হিসাবে আমরা বিশেষ কেউ না। সব বাবা-মায়ের গল্পই এক। সন্তানের জন্য সব বাবা মায়েরই স্পেশাল ত্যাগের গল্প আছে, আনন্দের গল্প আছে, বিব্রতকর গল্প আছে, এই ছবিটা যদি তাদের সেই সব অনুভূতির কথা মনে করিয়ে দেয় তাহলেই আমরা খুশি হব। 

আরও পড়ুন>> কাকে বিয়ে করছেন দর্শনা বণিক

অটোবায়োগ্রাফি-এর সিনেমাটোগ্রাফি করেছেন তাহসিন রহমান, সম্পাদনার কাজটি সুনিপুণভাবে করেছেন মোমিন বিশ্বাস। কালার গ্রেডিংয়ে ছিলেন দেবজ্যোতি ঘোষ। সাউন্ড ডিজাইনে ছিলেন রিপন নাথ ও ব্যাকগ্রাউন্ড স্কোর করেছেন পাভেন আরিন। আর্ট ডিরেকশন দিয়েছেন শিহাব নুরুন নবী। মেকআপের দায়িত্বে ছিলেন আতিয়া রহমান ও কস্টিউমে ইদিলা ফরিদ তুরিন।

ফারুকী ও তিশার সঙ্গে এই সিনেমায় অভিনয় করেছেনইরেশ যাকের, ডলি জহুর, শরাফ আহমেদ জীবনসহ আরও অনেকে।

অভিনেত্রী তিথি আর তার চলচ্চিত্র নির্মাতা ফারহানের পক্ষ থেকে তাদের সদ্যোজাত কন্যার উদ্দেশে লেখা লাভ লেটার সামথিং লাইক অ্যান অটোবায়োগ্রাফি। বাইরে থেকে দেখলে এটা সন্তানের দুনিয়াতে আগমন পর্যন্ত এক প্রকার দিনলিপি হলেও, ভেতরে লুকিয়ে আছে ব্যক্তি থেকে সমাজ হয়ে রাষ্ট্রের নানা চেহারা।


আরও খবর



এইচএসসির ফল প্রকাশ ২৬ নভেম্বর

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

২০২৩ সালের উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে আগামী ২৬ নভেম্বর।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আগামী ২৬ অথবা ২৮ নভেম্বরের যেকোনো একটি দিনের সম্মতি চাওয়া হয়েছিল। তিনি আগামী ২৬ নভেম্বর ফল প্রকাশের সম্মতি দিয়েছেন।

রেওয়াজ অনুযায়ী, সেদিন সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে ফল হস্তান্তর করা হবে। এরপর সারা দেশের শিক্ষার্থীরা একযোগে উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইট এবং মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে পরীক্ষার ফল জানতে পারবেন।

আরও পড়ুন>> ঢাবির টিএসসিতে ককটেল বিস্ফোরণ, আটক ৩

এর আগে, গত ১৭ আগস্ট সারা দেশের ৮টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে পিছিয়ে যাওয়া চট্টগ্রাম, মাদ্রসা ও বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা শুরু হয় ২৭ আগস্ট।

এ বছর দেশের ১১টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ১৩ লাখ ৫৯ হাজার ৩৪২ শিক্ষার্থী এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেন। এবার শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে আইসিটিতে ১০০ নম্বরের পরিবর্তে ৭৫ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে।


আরও খবর