আজঃ শনিবার ০২ মার্চ 2০২4
শিরোনাম

হামদর্দের উদ্যোগে বিশ্ব ইউনানী দিবস উদযাপিত

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

বিশ্ব ইউনানী দিবস উপলক্ষে হামদর্দ ল্যাবরেটরীজ (ওয়াক্ফ) বাংলাদেশের উদ্যোগে রাজধানীর বাংলামোটরে প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যালয়ের মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ধর্মমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান এমপি। গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকাস্থ ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় ভার্মা। সভাপতিত্ব করেন হামদর্দ ল্যাবরেটরীজ (ওয়াক্ফ) বাংলাদেশের চিফ মোতাওয়াল্লী ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. হাকীম মো. ইউছুফ হারুন ভূঁইয়া।

বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদ সদস্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি, হামদর্দ ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক ডা.প্রাণ গোপাল দত্ত, জাতীয় অধ্যাপক ও হামদর্দ বোর্ড অব ট্রাস্টিজের  ভাইস-চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এ কে আজাদ খান, ওয়াক্ফ প্রশাসক আবু সালেহ মহিউদ্দিন খাঁ, হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের ভিসি অধ্যাপক ড. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন হামদর্দ বাংলাদেশের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাকীম মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন রাসেল। কীনোট উপস্থাপন করেন হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের একাডেমিক ইউনানী চেয়ার অধ্যাপক ডা. মনোয়ার হোসেন কাজমী। হামদর্দের ইউনানী বিষয়ক তৎপরতা তুলে ধরেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক বিপণন মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন পরিচালক তথ্য ও গণসংযোগ আমিরুল মোমেনীন মানিক।

এ সময় প্রধান অতিথি ধর্মমন্ত্রী মো.ফরিদুল হক খান এমপি বলেন, বিকল্প চিকিৎসা ব্যবস্থাকে এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশেষভাবে উদ্যোগী হয়েছেন। তাঁর উৎসাহে বাংলাদেশের শহর বন্দর নগর, এমনকি প্রত্যন্ত জনপদেও বিকল্প চিকিৎসা ও শিক্ষা ব্যবস্থাকে ছড়িয়ে দেওয়ার কাজ চলছে। এর মধ্যে হামদর্দ বাংলাদেশের নাম উল্লেখ করার মতো। হামদর্দ সারা বাংলাদেশে ৩০০টি চিকিৎসা সেবা কেন্দ্রের মাধ্যমে ফ্রি চিকিৎসাপত্র দিচ্ছে। পাশাপাশি অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে মানব সেবা করে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানের গেস্ট অব অনার ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই কমিশনার প্রণয় ভার্মা হামদর্দের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, বাংলাদেশে ইউনানী-আয়ুর্বেদিক স্বাস্থ্য ও শিক্ষাসেবা বিস্তারে বিপ্লব করেছে হামদর্দ। এ সময় হামদর্দের মতো আরও অনেক প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, ভারত সবসময় বন্ধু রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশকে সহায়তা করতে প্রস্তুত রয়েছে।

সভাপতির বক্তব্যে ড. হাকীম মো.ইউছুফ হারুন ভূঁইয়া বলেন, ইউনানী আয়ুর্বেদিক শিক্ষা ও চিকিৎসা সেবা ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে হারবাল মেডিসিনকে অন্তর্ভূক্তকরাসহ নানা ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করে অবিরাম প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন এবং সংশ্লিষ্ট সবাইকে তাগাদা দিচ্ছেন। ইউনানী আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শিক্ষার জন্য ব্যাচেলর পর্যায়ে সমগ্র বাংলাদেশে সর্বসাকুল্যে চারটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে সরকারি ইউনানী আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল মিরপুর ছাড়া বাকি তিনটিই হামদর্দ কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত। হামদর্দের এই ৩টি প্রতিষ্ঠান হলো: চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক অনুমোদিত রওশন জাহান ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল লক্ষ্মীপুর, রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত হামদর্দ ইউনানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল বগুড়া এবং হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ ক্যাম্পাসে স্থাপিত হামদর্দ ইনস্টিটিউট অব ইউনানী অ্যান্ড আয়ুর্বেদিক মেডিসিন।

ড. হাকীম মো. ইউছুফ হারুন ভূঁইয়া আরও বলেন, ইউনানী আয়ুর্বেদিক শিক্ষা সম্প্রসারণ ও ব্যাপক উন্নয়নে ভারতের ন্যায় বাংলাদেশেও একটি আলাদা মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা করতে সরকারের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি। ইউনানী আয়ুর্বেদিক শিক্ষায় ব্যাচেলর ডিগ্রীপ্রাপ্তদের দেশের বিভিন্ন সরকারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়োগ প্রদানের সুযোগ দেওয়ায় সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ড. ইউসুফ হারুন ভূঁইয়া নিয়োগকৃত ইউনানী আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকদের যথাযথ পদমর্যাদাসহ অন্যান্য সিস্টেমের মতো সুযোগ সুবিধা প্রদান করতে জোর দাবি জানান। 

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের নিউরো সার্জন অধ্যাপক ডা. ফজলে এলাহী মিলাদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হিন্দি বিভাগের প্রধান ও একাডেমিক চেয়ার পুনম গুপ্তা, সরকারি ইউনানী আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল মিরপুরের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ডা. তৈয়বুর রহমান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেপুটি প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. হাসান ইমামসহ হামদর্দের পরিচালকবৃন্দ।


আরও খবর



বিশ্বে ২০৫০ সালের মধ্যে ক্যানসার বাড়বে ৭৭ শতাংশ : ডব্লিউএইচও

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
স্বাস্থ্য ডেস্ক

Image

বিশ্বে ২০৫০ সালের মধ্যে ক্যানসার প্রায় ৭৭ শতাংশ বাড়তে পারে। সর্বশেষ এক প্রতিবেদনে এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

ডব্লিউএইচও ও ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর রিসার্চ অন ক্যানসার (আইএআরসি) যৌথভাবে ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ক্যানসার দিবস উপলক্ষে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২২ সালে বিশ্বে নতুন করে প্রায় ২ কোটি মানুষ ক্যানসারে আক্রান্ত হয়েছে। একই বছর রোগটিতে প্রাণ হারিয়েছে প্রায় ৯৭ লাখ। ক্যানসার নিয়ে পাঁচ বছর বেঁচে আছে ২০২২ সালে বিশ্বে এমন মানুষের সংখ্যা ছিল প্রায় ৫ কোটি ৩৫ লাখ।

ডব্লিউএইচও ও আইএআরসির তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, বিশ্বে বর্তমানে প্রতি পাঁচজনের মধ্যে একজন মানুষ ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছে। ক্যানসার আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছে প্রতি নয়জন পুরুষের মধ্যে একজন। নারীর মধ্যে তা প্রতি ১২ জনের মধ্যে একজন।

সংস্থা দুটি বিশ্বের ১৮৫টি দেশ ও স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলে ৩৬ ধরনের ক্যানসার নিয়ে অনুসন্ধান চালিয়েছে।

২০২২ সালে প্রধানত তিন ধরনের ক্যানসারে বেশিরভাগ মানুষকে আক্রান্ত হতে ও মারা যোতে দেখা গেছে। ধরন তিনটি হলো ফুসফুস, স্তন ও কোলোরেক্টাল বা ক্লোন ক্যানসার।


আরও খবর



শাহজাহানপুরে একটি বাসায় দুই দফা বিস্ফোরণে ৭ জন দগ্ধ

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীর শাহজাহানপুরের ঝিল মসজিদের পাশের ১টি বাসায় গ্যাস লাইনের লিকেজ থেকে অগ্নিকাণ্ডে ৭ জন দগ্ধ হয়েছেন। তাদেরকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের অবজারভেশনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

গতকাল ২৭ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এর আগে একই বাসায় একই দিনে সকাল ৮টার

দগ্ধ আলী আকবর জানান, পঞ্চম তলা বাসার নিচতলায় রান্নাঘরে প্রায় সময় গ্যাসের গন্ধ পাওয়া যেত। সকাল ৮টার দিকে রান্না ঘরের পাশে হঠাৎ আগুন ধরে যায়। এতে হালকা শব্দ হয় তখনই ৭ জন দগ্ধ হন। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা হয়।

শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটের জরুরী বিভাগের চিকিৎসকরা জানান, গ্যাস লিকেজ থেকে দগ্ধ হয়ে আমার এখানে ৬ জন এসেছেন। এদের মধ্য মিন্টু হাওলাদারের শরীর ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে। বাকিদের শরীরের বিভিন্ন জায়গা আগুনে দগ্ধ হয়েছে। সবাইকে অবজারভেশনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

দগ্ধরা হলেন- মিন্টু হাওলাদার (৪০), তার মেয়ে মারিয়া ইশরাত (১৮), সেনেটারি মিস্ত্রি মনির হোসেন (৪১), দেলোয়ার হোসেন (৫৭), প্রতিবেশী আলী আকবর (৩৫), বাচ্চু মিয়া (৪৫) ও সিরাজ শেখ ( ৪৮)।


আরও খবর



চট্টগ্রামে কোল্ড স্টোরেজের আগুন নিয়ন্ত্রণে

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

Image

চট্টগ্রামের বাকলিয়াতে তাজা মাল্টিপারপাস কোল্ড স্টোরেজ লিমিটেডের আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। দশটি ইউনিটের প্রায় চার ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস। এ ঘটনায় কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক আব্দুল মালেক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

তিনি জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাকলিয়ার এক্সেস রোডের বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) পাশে তাজা মাল্টিপারপাস কোল্ড স্টোরেজে আগুনের সূত্রপাত হয়। তা নিয়ন্ত্রণে আসে আড়াইটার দিকে।

ফায়ার কর্মকর্তা আব্দুল মালেক বলেন, আমাদের তিনটি স্টেশনের সাতটি ইউনিট শুরুতে কাজ করে। পরে আরও তিনটি ইউনিট যোগ দেয়। আড়াইটার দিকে আমরা আগুন পুরোপুরি নির্বাপণ করেছি। পুরো ভবনটা বদ্ধ থাকায় আগুন নেভাতে বেগ পোহাতে হচ্ছিল। এ ঘটনায় কোনো হতাহত নেই।’

তদন্তের পর আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যাবে বলেন তিনি।


আরও খবর



ফের বিয়ে করলেন তামিম মৃধা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

ছোটপর্দার অভিনেতা তামিম মৃধা আবার বিয়ে করেছেন। শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক স্ট্যাটাসে নিজের বিয়ের খবর ভক্তদের সঙ্গে শেয়ার করেছেন তিনি।

তামিম জানান, তার স্ত্রীর নাম রাইসা ইসলাম। পারিবারিক আয়োজনে বিয়ের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সবার কাছে নিজেদের জন্য দোয়া চেয়েছেন এ নবদম্পতি।

যদিও তামিমের বিয়ের খবর বেশ অবাক করেছে ভক্তদের। কারণ ২০১৯ সালে দীর্ঘদিনের প্রেমিকা ফাইরোজ ইয়াসমিনকে বিয়ে করেছিলেন এ অভিনেতা। সেই বিবাহ বিচ্ছেদের খবর গোপন থাকতেই নতুন বিয়ের খবর জানালেন তামিম।

এ বিষয়ে কিছু স্পষ্ট না করলেও ফেসবুকে তামিম লিখেছেন, আমি অতীতে যেই সম্পর্কে ছিলাম সেটা অনেক আগেই ভেঙে গেছে। আমি কখনোই চাইনি আমার ব্যক্তিগত জীবনের কোনো ঘটনা নিয়ে জনসম্মুখে আলোচনা হোক। কারণ এগুলো খুবই স্পর্শকাতর বিষয়।

এসময় নিজের নতুন জীবনের জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়ে তামিম বলেন, রাইসার সঙ্গে আমার নতুন পথচলার শুরু। আপনারা সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।


আরও খবর
টেইলর সুইফট ইফেক্টে আক্রান্ত সিঙ্গাপুর

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বহুভাষার সংস্কৃতির মেলবন্ধন শান্তির পৃথিবী গড়বে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ সকল ভাষা সংরক্ষণের প্রেরণা। আর বহুভাষার সংস্কৃতির মেলবন্ধন পৃথিবীতে শান্তি, সৌহার্দ্য প্রতিষ্ঠায় বড় ভূমিকা রাখতে পারে।

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আজ বুধবার (২১শে ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর বেইলি রোডে ফরেন সার্ভিস একাডেমি মিলনায়তনে বহুভাষায় শিক্ষা: শেখা এবং প্রজন্মান্তরের শিক্ষার সোপান প্রতিপাদ্য নিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বক্তব্যের শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করে মন্ত্রী ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষার দাবিতে শহিদ সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, শফিউরসহ সকল ভাষা শহিদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বের ইতিহাস তুলে ধরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তখনকার তরুণ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান সেই সময় ভাষার দাবিতে আন্দোলনের কারণেই জেলে বন্দি ছিলেন। জেলখানায় বসে সহযোগীদের সঙ্গে সভা করে তিনি সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন ২১ ফেব্রুয়ারি প্রতিবাদ দিবস পালিত হবে।

একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে জাতিসংঘে স্বীকৃত হওয়ার প্রেক্ষাপট তুলে ধরে ড. হাছান বলেন, কানাডা প্রবাসী দুজন বাঙালি রফিক ও সালামের উদ্যোগ এবং বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্বরিৎ সিদ্ধান্তে জাতিসংঘে প্রস্তাব পাঠানোর পর ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কোর এক ঘোষণায় ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি পায়। 

আরও পড়ুন>> বাংলাকে জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষা করতে হবে : পরিবেশমন্ত্রী

এর মধ্য দিয়ে বাঙালির সেই আত্মত্যাগের দিনটি বিশ্বের প্রতিটি মানুষের মায়ের ভাষার অধিকার রক্ষার দিন হিসেবে স্বীকৃত হয়েছে এবং মানুষ বহুভাষাকে সযত্ন ধারণের প্রেরণা পেয়েছে, বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, সামুদ্রিক বিষয় ইউনিট সচিব রিয়ার এডমিরাল (অব.) মো. খুরশেদ আলম, অতিরিক্ত পররাষ্ট্র সচিব ড. মুহ. নজরুল ইসলামসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা ও বিদেশি কূটনীতিক এবং তাদের পরিবারবর্গ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। পররাষ্ট্র সচিব তার বক্তৃতায় মাতৃভাষা দিবসটিকে বিভিন্ন ভাষাভাষীর সম্প্রীতির দিন হিসেবে বর্ণনা করেন। ফরেন সার্ভিস একাডেমির রেক্টর মাশ্‌ফী বিন্তে শাম্‌স্ স্বাগত বক্তব্য দেন।

বহুভাষা নির্ভর এ অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উত্তর আমেরিকা অণুবিভাগের পরিচালক সামিয়া ইসরাত রনির পরিচালনায় কর্মকর্তা-শিল্পীবৃন্দের পাশাপাশি ইন্দোনেশিয়া, রাশিয়া ও ফ্রান্স দূতাবাসের শিল্পীরা গান ও কবিতাসহ নানা সাংস্কৃতিক পরিবেশনা উপস্থাপন করে। আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি গানটি বাংলা, পর্তুগিজ ও আরবিতে পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়।

এর আগে সকালে পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে এবং এরপর বিদেশি কূটনীতিকরা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে স্থাপিত শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে অমর শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।


আরও খবর
শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪