আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

ইবিতে ফের শিক্ষার্থীকে বিবস্ত্র করে রাতভর নির্যাতন

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ইবি প্রতিনিধি

Image

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি)'র ছাত্র হলের গণরুমে এক নবীন শিক্ষার্থীকে উলঙ্গ করে রাতভর র‌্যাগিং ও নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের লালন শাহ হলের ১৩৬ নম্বর কক্ষে এই ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী ওই ছাত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আল-ফিকহ অ্যান্ড লিগ্যাল স্টাডিজ বিভাগের ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

অভিযুক্তরা হলেন- শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়াবিজ্ঞান বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মুদাচ্ছির খান কাফী এবং ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের একই শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ সাগর। তারা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয়ের অনুসারী বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগী সূত্রে জানা গেছে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের লালন শাহ হলের ১৩৬ নম্বর কক্ষে পরিচয়পর্বের জন্য ডাকে অভিযুক্তরা। কক্ষে যাওয়ার পর তার সঙ্গে অমানবিক আচরণ করে অভিযুক্ত সিনিয়র শিক্ষার্থীরা। এসময় ভুক্তভোগীকে খারাপ ভাষায় গালিগালাজ, রড দিয়ে আঘাত করা, জোরপূর্বক উলঙ্গ করে বেঞ্চের উপর দাঁড় করিয়ে রাখা ও নাকে খত দেয়া এবং আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে বার বার রুম থেকে বের করে দেয়া হয় বলে জানায় ভুক্তভোগী। ওইদিন রাত সাড়ে ১২ টা থেকে ভোর সাড়ে ৪টা পর্যন্ত দফায় দফায় নির্যাতন চালানো হয় তার উপর। এছাড়াও ভয় দেখিয়ে বার বার বেডসহ জিনিস-পত্র বাইরে ফেলে দেয়া হয় বলে জানান ভুক্তভোগী।

এ দিকে ভয়ভীতি দেখানোয় ঘটনার চারদিন পরেও প্রশাসনের কাছে কোনো অভিযোগ দেয়নি ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী। ভুক্তভোগী বলেন, গত বুধবার আমার সঙ্গে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে। তবে পরে হলের ছাত্রলীগের সিনিয়র ভাইয়েরা বিষয়টা মিমাংসা করে দেয়। এরপর অভিযুক্তদের হলে তেমন একটা দেখা যায়নি। আমি চাই না কোন ঝামেলা হোক।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ছাত্রলীগ কর্মী জানান, ঘটনার পরের দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের জিয়া মোড় সংলগ্ন এলাকায় ডেকে নিয়ে ভুক্তভোগীর কাছে অভিযুক্তদের ক্ষমা চাইতে বলেন ছাত্রলীগ কর্মী মেহেদী হাসান হাফিজ ও নাসিম আহমেদ মাসুম। এ সময় অভিযুক্তদের চড়-থাপ্পড় দিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করে দেন তারা। পরে ওই দিন রাতে ফের ভুক্তভোগী ও অভিযুক্তদের হলে ডেকে নিয়ে দ্বিতীয় দফায় বিষয়টি মীমাংসা করে দেন ছাত্রলীগ কর্মী শাহিন আলম, মাসুম ও লিখন।

এদিকে র‌্যাগিংয়ের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত মোহাম্মদ সাগর। তিনি বলেন, এরকম কোনকিছু ঘটেনি। এই বিষয়ে আমি কিছু জানি না। আমি ওইদিন হলে ছিলাম না। তবে কথার একপর্যায়ে হলের পাশের রুমে ছিলেন বলে জানান সাগর। এদিকে অন্য অভিযুক্তদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাদেরকে পাওয়া যায়নি।

এ বিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয় বলেন, ব্যক্তিগতভাবে কেউ অপরাধ করলে দায় সংগঠন নেবে না। বিষয়টি মীমাংসা করা হয়েছে। ঘটনাটি শোনার পর আমরা ভুক্তভোগী ছাত্রের পাশে দাঁড়িয়েছি। তাকে গণরুম থেকে অন্য রুমে থাকার ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। এ ছাড়াও সার্বিক সহায়তা ভুক্তভোগীকে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

এই বিষয়ে ছাত্র উপদেষ্টা ড. শেলীনা নাসরীন বলেন, বিষয়টি আমি শুনিনি। তবে এই ধরনের ঘটনা ঘটলে ভয় না পেয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের লালন শাহ হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. আকতার হোসেন বলেন, আমি আনঅফিসিয়ালি বিষয়টা শুনেছি। পরে নিজের থেকেও খোঁজখবর নিয়েছি, হলের নেতাদের ডেকে কথা বলেছি। তারা বিষয়টি অস্বীকার করেছেন এবং মিউচুয়াল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন। তবে বিষয়টি আমার কাছে ভয়াবহ বলে মনে হচ্ছে। সুনির্দিষ্টভাবে অভিযোগ না আসলে এই বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা আমার পক্ষে কঠিন। আমি কোন কিছুর পরোয়া করবো না, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আসলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসনে আজাদ জানান, বিষয়টি শুনেছি, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ২০২৩ সালে নবীন ছাত্রী ফুলপরীকে বিবস্ত্র করে রাতভর র‌্যাগিং ও নির্যাতনের ঘটনায় দেশব্যাপী আলোচিত ছিল ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়। এই ঘটনায় জড়িত পাঁচ ছাত্রীকে আজীবন বহিষ্কার করে কর্তৃপক্ষ।


আরও খবর



যেসব এলাকায় ৩ দিন বন্ধ থাকবে ইন্টারনেট

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বগুড়া শহরের সাতমাথায় তিনতলা টেলিফোন ভবনটি বুয়েট কর্তৃক ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করা হয়েছে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল)। সংস্থাটি জানিয়েছে, ভবন স্থানান্তরের জন্য বগুড়া শহর ও উপজেলাগুলোতে তিন দিনের জন্য টেলিফোন ও ইন্টারনেট সেবা বন্ধ থাকবে। সংস্থাটির উপমহাব্যবস্থাপক (টেলিকমের) কার্যালয় থেকে টেলিফোন ও ইন্টারনেট বন্ধের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

তে বলা হয়েছে, ওই ভবন থেকে সুইচ রুমের যাবতীয় যন্ত্রপাতি অন্যত্র স্থানান্তর করা হবে। এ কারণে আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৫টা থেকে ২৫ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৫টা পর্যন্ত ৭২ ঘণ্টা বগুড়া শহর, উপজেলাসমূহ এবং জয়পুরহাট জেলায় বিটিসিএল কর্তৃক বাস্তবায়িত প্রকল্পের মাধ্যমে সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বেতার ও গ্রন্থাগারে সংযোগকৃত ইন্টারনেট সেবা বন্ধ থাকবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়েছে, এ অফিসের আওতায় টেলিফোন (AGW) কপার ক্যাবলের মাধ্যমে দেয়া সংযোগ বগুড়া শহরে ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩ মার্চ বিকেল ৫টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। পাশাপাশি ঘোষিত এই সময়ের মধ্যে কাজটি সম্পন্ন করার সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হবে বলে জানায় সংস্থাটি। এ ব্যাপারে সবার সহযোগিতা কামনা করে দুঃখ প্রকাশ করেছে বিটিসিএল।


আরও খবর
শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪




ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ট্রাক্টর উল্টে খাদে, নিহত ২

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মোঃ রাসেল আহমেদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে উপজেলায় বালুবোঝাই ট্রাক্টর উল্টে চালকসহ দুইজন নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে নাটঘর ইউনিয়নের নবীনগর-রাধিকা সড়কের বড়হিত এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানান নবীনগর থানার শিবপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আলী আক্কাস রুবেল। নিহতরা হলেন- ট্রাক্টর চালক মো. এনামুল (২৬) ও তার সহযোগী আমির হোসেন (১৪)।

এনামুল আখাউড়া উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের রুটি গ্রামের মো. শাহজাহানের ছেলে এবং আমির নবীনগর উপজেলার কাইতলা (উত্তর) ইউনিয়নের ব্রাহ্মণহাতা গ্রামের বজলু মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন ট্রাক্টর চালকের আরেক সহযোগী রাকিব (১৫)। তাকে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এসআই রুবেল জানান, সকালে কাইতলা (উত্তর) ইউনিয়নের নারুই গ্রাম থেকে বালুবোঝাই ট্রাক্টরটি শিবপুরের দিকে যাচ্ছিল। পথে বড়হিত এলাকায় বেপরোয়া গতির কারণে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ট্রাক্টরটি খাদে পড়ে উল্টে যায়।

এতে ঘটনাস্থলেই এনামুল ও আমির মারা যান। আহত হন ট্রাক্টর চালকের আরেক সহযোগী রাকিব। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে হতাহতদের উদ্ধার করে বলে জানান এসআই রুবেল।


আরও খবর



দিয়াসের গোলে লাইপজিগকে হারাল রিয়াল

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

ব্রাহিম দিয়াসের দুর্দান্ত এক গোল করে লাইপজিগকে ১-০ ব্যবধানে হারাল রিয়াল মাদ্রিদ। এ জয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার-ফাইনালের পথে এগিয়ে রইল কার্লো আনচেলত্তির শিষ্যরা।

মঙ্গলবার রাতে লাইপজিগের রেড বুল অ্যারেনায় শেষ ষোলোর প্রথম লেগে খেলতে নামে রিয়াল। যেখানে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে দিয়াস ব্যবধান গড়ে দেওয়া গোলটি করেন। তবে চোট পেয়ে শেষ দিকে মাঠ ছাড়েন স্প্যানিশ এই অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার।

এর আগে গত শনিবার লা লিগায় জিরোনার বিপক্ষে ৪-০ গোলে জয়ের ম্যাচে অ্যাঙ্কেলে চোট পেয়ে ছিটকে যান বেলিংহ্যাম। তিন সপ্তাহের মতো বাইরে থাকতে হবে এই ইংলিশ মিডফিল্ডারকে। তার জায়গায় খেলতে নেমে চোট পেলেন দিয়াসও।

ম্যাচে দ্বিতীয়ার্ধের তৃতীয় মিনিটে দুর্দান্ত এক গোলে রিয়ালকে এগিয়ে নেন দিয়াস। দানি কারভাহালের পাস ডান দিকের টাচলাইনের কাছে পান তিনি। সেখান থেকে একে একে প্রতিপক্ষের তিন খেলোয়াড়ের বাধা পেরিয়ে ঢুকে পড়েন বক্সে। এরপর তার বাঁ পায়ের শট গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়ে জালে আশ্রয় নেয় দূরের পোস্ট দিয়ে। গোল করে বেলিংহ্যামের মতোই দুই হাত দুই দিকে বাড়িয়ে উদযাপন করেন ২৪ বছর বয়সী দিয়াস।

আগামী ৬ মার্চ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে ফিরতি লেগ হবে।


আরও খবর



অবৈধ সম্পদ অর্জন

ডিআইজি মিজানের ১৪ বছরের সাজা বহাল

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের মামলায় বরখাস্ত হওয়া পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানের ১৪ বছরের কারাদণ্ড বহাল রেখেছেন হাইকোর্ট। বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় দেন।

২০২৩ সালের জুন মাসে পুলিশের বরখাস্তকৃত উপমহাপরিদর্শক মিজানুর রহমানকে ১৪ বছরের কারাদণ্ড দেন ঢাকার একটি আদালত। জ্ঞাত আয়ের বাইরে ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় এ সাজা দেয়া হয় তাকে।

এ অবৈধ সম্পদ অর্জনে সহযোগিতা করার দায়ে একই মামলায় মিজানের স্ত্রী সোহেলিয়া আনার রত্না, ভাগনে মাহমুদুল হাসান ও ভাই মাহবুবুর রহমানকে ৭ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হলেও তারা কেউই আপিল করেননি। 

আরও পড়ুন>> বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন

জ্ঞাত উৎসের বাইরে ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা অর্জনের অভিযোগে মিজান ও তার স্ত্রী সোহেলিয়া আনার রত্না এবং ভাগনে পুলিশের উপপরিদর্শক মাহমুদুল হাসানের বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের ২৪ জুন দুদক ঢাকার সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে মামলা দায়ের করে।

 তদন্ত শেষে ২০২০ সালের ৩০ জানুয়ারি দুদক তাদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করে। দুর্নীতির মামলায় কারাগারে থাকা ডিআইজি মিজানুর রহমানকে গত বছরের ৩ নভেম্বর চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। অপরদিকে দুদকের এক কর্মকর্তাকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ দেয়ার অভিযোগে মিজানকে গত বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারি ৩ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।


আরও খবর
জজ কোর্ট চত্বরে ককটেল বিস্ফোরণ

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




কাল মুক্তি পাচ্ছেন সাবেক থাই প্রধানমন্ত্রী থাকসিন সিনাওয়াত্রা

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

স্বেচ্ছানির্বাসন শেষে দেশে ফিরে জেলে যাওয়া থাইল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী থাকসিন সিনাওয়াত্রা মুক্তি পাচ্ছেন আগামীকাল রোববার। দেশটির বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শ্রেত্থা থাভিসিন আজ শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন। খবর এএফপির।

বিতর্কিত ধনকুবের ও থাইল্যান্ডের দুবারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী থাকসিন সিনাওয়াত্রা ২০০৬ সালে এক সামরিক অভ্যত্থানে ক্ষমতাচ্যুত হন। ক্ষমতার অপব্যবহার ও দুর্নীতির দায়ে পরে তার আট বছরের জেলও হয়। তবে ১৫ বছর স্বেচ্ছানির্বাসনে থেকে গত বছরের আগস্ট মাসে দেশে ফেরার পর গ্রেপ্তার হন তিনি। নেওয়া হয় জেলে। এর পরপরই থাইল্যান্ডের রাজা মাহা ভাজিরালঙ্কর্ন তার শাস্তি কমিয়ে এক বছরে নামিয়ে আনেন।

এ বিষয়ে আজ শনিবার থাই প্রধানমন্ত্রী শ্রেত্থা থাভিসিন বলেন, আইনের ধারা মেনে আগামীকাল (১৮ ফেব্রুয়ারি) মুক্তি পেতে যাচ্ছেন সিনাওয়াত্রা।

এর আগে থাইল্যান্ডের বিচারমন্ত্রী বলেছিলেন, ৭৪ বছর বয়সী থাকসিন সিনাওয়াত্রার নামসহ শাস্তির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে মুক্তি পেতে যাওয়া ৯৩০ জন বন্দির তালিকায় রয়েছে। তিনি জানিয়েছিলেন, স্বাস্থ্যগত জটিলতার কারণে ৭০ বছরের ঊর্ধ্বের যে গ্রুপটিকে মুক্ত করা হচ্ছে, তার মধ্যে সিনাওয়াত্রা রয়েছেন। 

আরও পড়ুন>> নিউইয়র্কে ট্রাম্পের ব্যবসা বন্ধ, সাড়ে ৩৫ কোটি ডলার জরিমানা

থাইল্যান্ডের গণমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়, থাকসিন সিনাওয়াত্রাকে আগামীকাল ভোরে মুক্ত করা হবে। তবে শ্রেত্থা থাভিসিন বলেছেন, এ বিষয়ে বিস্তারিত জানেন না তিনি।

থাকসিন সিনাওয়াত্রা দেশে ফেরার পর কাকতালীয়ভাবে তার পিউ থাই পার্টি সামরিক ধারার সমর্থক দলগুলোর সঙ্গে মোর্চা গঠনের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসে। তবে থাকসিনকে গ্রেপ্তারের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই খারাপ স্বাস্থ্যের জন্য কারা কর্তৃপক্ষ তাকে পুলিশ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। আর এর মাধ্যমে সিনাওয়াত্রার সঙ্গে শাসকদলের সমঝোতার গুজব ছড়িয়ে পড়ে দেশটিতে।

স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো জানায়, হাসপাতালে ভর্তির সময় উচ্চ রক্তচাপ ও বুকের সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। তার পরিবার জানায়, পরের মাসগুলোতে তার দুটি অস্ত্রোপচার করা হয়েছে।

থাকসিন সিনাওয়াত্রার মুক্তির বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানায়নি গণমাধ্যমগুলো। তবে মুক্তি পেলেও তিনি সার্বক্ষণিক নজরদারিতে থাকবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পিউ থাই পার্টির প্রধান ও থাকসিনের মেয়ে পায়েতংতার্ন সিনাওয়াত্রা মুক্তির এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এটি তার (থাকসিন) বাকি জীবন বিশ্রাম নিয়ে সুখে কাটানোর সময়।

থাইল্যান্ডের টেলিকম টাইকুন হিসেবে পরিচিত সিনাওয়াত্রাকে আধুনিক থাই ইতিহাসের অন্যতম প্রভাবশালী ব্যক্তি হিসেবে মনে করা হয়। তবে, তার বিরুদ্ধে বিভাজন সৃষ্টির অভিযোগও রয়েছে।


আরও খবর