আজঃ শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩
শিরোনাম

মিথ্যাচারের জন্য নোবেল থাকলে সেটা ফখরুল পেতেন : হুইপ

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

হুইপ সামশুল হক চৌধুরী এমপি বলেছেন, বিএনপি ক্ষমতায় যেতে ও ক্ষমতা ধরে রাখতে অতীতে ধর্ম নিয়ে মিথ্যাচার করেছে। তারা বলেছিল আওয়ামী লীগকে ভোট দিলে মসজিদের আজান বন্ধ হয়ে যাবে, উলুধ্বনি বাজবে। কই এখনতো আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে সারা দেশে একসাথে ৫৬০ টি মডেল মসজিদ নির্মান করে দিয়েছে। ওই মসজিদগুলোতে এখন একসাথে আজান হয়।

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে শেখ হাসিনা সকল ধর্মের মানুষকে নিজ নিজ ধর্ম পালনে শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছেন। মসজিদে যেমন আজান হয় তেমনি প্রত্যেক ধর্মের মানুষ নিজ উপাসনালয়ে ধর্ম পালন করে।

হুইপ বলেন, মিথ্যাচারের জন্য যদি কোনো নোবেল থাকত, তাহলে সেটা বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামই পেতেন।

তিনি বুধবার পটিয়ায় হরতাল-অবরোধ বিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। এসময় হুইপের সাথে ছিলেন উপজেলা আ.লীগের সভাপতি আ ক ম সামশুজ্জামান, জেলা আ.লীগ নেতা দেবব্রত দাশ, বিজন চক্রবর্তী, আবু সালেহ চৌধুরী, আবদুল খালেক, আবদুল্লাহ আল হারুন, আলমগীর খালেদ, এম. এজাজ চৌধুরী, মাজেদা বেগম শিরু, চেয়ারম্যান ইনজামুল হক জসিম, এম এ হাসেম, রবিউল হোসেন রুবেল, মিজানুর রহমান, উপজেলা যুবলীগ আহ্বায়ক হাসান উল্লাহ চৌধুরী, যুগ্ন আহ্বায়ক ইমরান উদ্দিন বশির, মাষ্টার রিটন নাথ, ছাত্রলীগ সভাপতি আরাফাত শাকিল, সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল নোমান প্রমুখ।

উল্লেখ্য, বুধবার অবরোধ-হরতালের বিরুদ্ধে পটিয়ায় উপজেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছোসেবকলীগের উদ্যোগে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের পৃথক পৃথক স্পটে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।


আরও খবর



এবার নতুন অস্ত্র বের করল লেবানন

প্রকাশিত:রবিবার ১২ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ১২ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় যুদ্ধ শুরুর পর থেকে লেবানন সীমান্তে ইসরায়েল ও হিজবুল্লাহর মধ্যে নিয়মিত সংঘর্ষ হচ্ছে। এই সংঘাতের মধ্যে এবার ইসরায়েলের বিরুদ্ধে নতুন ধরনের অস্ত্র ব্যবহার করেছে লেবাননভিত্তিক এই সশস্ত্র গোষ্ঠীটি।

ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ শুরুর পর গতকাল শনিবার দ্বিতীয়বারের মতো বক্তব্য দিয়েছেন হিজবুল্লাহর প্রধান সাইয়েদ হাসান নাসরাল্লাহ। ভক্ত-সমর্থকদের উদ্দেশে দেওয়া এই বক্তব্যে এই নতুন অস্ত্রের বিষয়টি সামনে নিয়ে আসেন তিনি।

নাসরাল্লাহ বলেছেন, ইসরায়েলের বিরুদ্ধে হিজবুল্লাহ যোদ্ধাদের অভিযান ও হামলার সংখ্যা বেশ বেড়েছে। ইসরায়েলি বিমান হামলার জবাবে প্রথমবারের মতো উত্তর ইসরায়েলের শহর কিরিয়াত শমোনায় আঘাত হেনেছে হিজবুল্লাহ। এ হামলায় চার ইসরায়েলি নিহত হয়েছে।

তিনি বলেন, এসব হামলায় সশস্ত্র ড্রোন ব্যবহার করা হয়েছে। এ ছাড়া প্রথমবারের মতো বুরকান ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহৃত হয়েছে।

হামাসের হামলার জবাবে ৭ অক্টোবর থেকে গাজায় হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েল। এই যুদ্ধ শুরুর পর থেকেই লেবাবনন সীমান্তে ইসরায়েলি সেনাদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত সংঘাতে জড়াচ্ছে হিজবুল্লাহ। এর ফলে এই যুদ্ধ মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়তে পারে, এমন আশঙ্কা করছেন নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা।

নিউজ ট্যাগ: গাজা উপত্যকা

আরও খবর
আটক ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ

শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩




জুমাবারের আমল

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইসলামে জুমার দিনকে সপ্তাহের সেরা দিন হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। রাসূল (সা.) বলেন, দিবসগুলোর মধ্যে শ্রেষ্ঠ হলো জুমার দিন এবং তা আল্লাহর কাছে অধিক সম্মানিত (ইবনে মাজাহ : ১০৮৪)। এ দিনে যেসব আমলের কথা কুরআন-হাদিসে পাওয়া যায় তা তুলে ধরা হলো-

আগেভাগে মসজিদে যাওয়া

আল্লাহ বলেন, হে মুমিনগণ! জুমার দিনে যখন নামাজের আজান দেওয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণে দ্রুত ছুটে যাও এবং বেচাকেনা বন্ধ করো। এটা তোমাদের জন্য কল্যাণকর যদি তোমরা উপলব্ধি করতে পার (সূরা জুমুআ, আয়াত : ০৯)।

সতেরোটি নির্দেশনা

গোসল করা, (বুখারি :)। মিসওয়াক করা, (ইবনে মাজাহ : ১০৯৮)। উত্তম পোশাক পরিধান করা, (ইবনে মাজাহ : ১০৯৭,)। সুগন্ধি ব্যবহার করা, (বুখারি : ৮৮০)। মসজিদে প্রবেশের পর অন্য মুসল্লিদের ফাঁক করে বা গায়ের ওপর দিয়ে টপকে সামনের দিকে না যাওয়া, (বুখারি : ৯১০)। কাউকে উঠিয়ে দিয়ে সেখানে বসার চেষ্টা না করা, (বুখারি : ৯১১)। সালাতের জন্য কোনো একটা জায়গাকে নির্দিষ্ট করে না রাখা, যেখানে যখন জায়গা পাওয়া যাবে, সেখানেই সালাত আদায় করা, (আবু দাউদ : ৮৬২)। নির্ধারিত নামাজ আদায় করা। এমনকি ফরজ সালাতের আগে ও পরে দুই-চার রাকাত করে নফল সালাত আদায় করা, (বুখারি : ৯৩০)। গায়ে তেল ব্যবহার করা, (বুখারি : ৮৮৩)। হেঁটে মসজিদে গমন করা, (মুসলিম : ১৪০০)। মসজিদে যাওয়ার আগে কাঁচা পেঁয়াজ, রসুন না খাওয়া ও ধূমপান না করা, (বুখারি : ৮৫৩)। ঘুমের ভাব বা তন্দ্রাচ্ছন্ন হলে বসার জায়গা পরিবর্তন করে বসা, (আবু দাউদ : ১১১৯)। ইমামের খুতবা দেওয়া অবস্থায় দুই হাঁটু উঠিয়ে না বসা, (আবু দাউদ : ১১১০, ইবনে মাজাহ : ১১৩৪)। খুতবার সময় ইমামের কাছাকাছি বসা, (আবু দাউদ : ১১০৮)। এতটুকু জোরে আওয়াজ করে কোনো কিছু না পড়া বা তেলাওয়াত না করা, যাতে অন্যের সালাত ক্ষতিগ্রস্ত হয় বা মনোযোগে বিঘ্ন ঘটে (আবু দাউদ : ১৩৩২)। ইমামের খুতবার জন্য বের হওয়া থেকে সালাত শেষ করা পর্যন্ত নীরবতা অবলম্বন করা। তবে কেউ কথা বলতে দেখলে তাকে চুপ করতে বা বারণ করতেও হাদিসে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে (আবু দাউদ : ১১১২) বেশি বেশি প্রার্থনা (দুআ) করা, (বুখারি : ৯৩৫)। ওই কাজগুলোর যথাযথ পালনের মাধ্যমে একজন ব্যক্তির জন্য এ জুমা ও তার পূর্ববর্তী জুমার মধ্যবর্তী যাবতীয় গুনাহের কাফফারা হয়ে যাবে। (আবু দাউদ, হাদিস : ৩৪৩)।

দরুদ পড়া

জুমার দিন বেশি বেশি দরুদ পাঠ করার ব্যাপারে রাসূল (সা.)-এর নির্দেশনা রয়েছে। তোমরা জুমার দিনে আমার ওপর বেশি বেশি দরুদ পাঠ করো, কেননা তোমাদের পাঠকৃত দরুদ আমার সামনে পেশ করা হয় (আবু দাউদ : ১০৪৭)। এছাড়া, মহান রব স্বয়ং রাসূল (সা.)-এর প্রতি দরুদ পাঠের তাগিদ দিয়েছেন। যেমন তিনি বলেছেন-আল্লাহ ও তাঁর ফেরেশতাগণ নবির প্রতি দরুদ পাঠান। হে ঈমানদারগণ! তোমরাও তাঁর প্রতি দরুদ ও সালাম পাঠাও (সূরা আহযাব, আয়াত : ৫৬)।

সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করা

রাসূল (সা.) বলেছেন-যে ব্যক্তি জুমার দিন সূরা আল কাহাফ পড়বে, তার (ইমানের) নূর এ জুমা থেকে আগামী জুমা পর্যন্ত চমকাতে থাকবে (সুনানুল কুবরা লিল বায়হাক্বী : ৫৯৯৬)।

এ ব্যাপারে হাদিসে চমৎকার এক ঘটনা পাওয়া যায়। একদা এক লোক সূরা কাহাফ পাঠ করছিল। তার পাশেই দুটি রশি দিয়ে একটি ঘোড়া বাঁধা ছিল। ইতোমধ্যে লোকটিকে একটি মেঘে ঢেকে নিল। মেঘটি লোকটির নিকটবর্তী হতে থাকলে ঘোড়াটি তা দেখে চমকাতে আরম্ভ করল। অতঃপর যখন সকাল হলো, তখন লোকটি রাসূল (সা.)-এর দরবারে হাজির হয়ে উক্ত ঘটনা বর্ণনা করল। তা (শুনে) তিনি বললেন, ওটি প্রশান্তি ছিল, যা তোমার কুরআন পড়ার দরুন অবতীর্ণ হয়েছে (বুখারি : ৫০১১)।

বেশি বেশি ইস্তেগফার করা

এ দিন বেশি বেশি ক্ষমা প্রার্থনা করা এবং দোয়া করা উচিত। হাদিসে এসেছে-জুমার দিনে একটা এমন সময় আছে, যে সময় কোনো মুমিন বান্দা আল্লাহর কাছে ভালো কোনো কিছু প্রার্থনা করলে, অবশ্যই আল্লাহ তাকে তা দান করবেন। (বুখারি : ৯৫৩)।

নিউজ ট্যাগ: জুমাবারের আমল

আরও খবর
ভূমিকম্প হলে যে দোয়া পড়তে হয়

শনিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২3




চীনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত ২৫

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৬ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

চীনের উত্তরাঞ্চলীয় শানসি প্রদেশে বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় অন্তত ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত ৫১ জনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে এই তথ্য বিট্রিশ সংবাদ সংস্থা বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল ৭টার দিকে শানসি প্রদেশের লুলিয়াং শহরে একটি বহুতল অফিস ভবনে আগুন লাগে। এতে ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আগুনের সূত্রপাত ওই ভবনের চতুর্থতলায় অবস্থিত ইয়ংজু কয়লা কোম্পানির অফিস থেকে হয়েছে। আগুন লাগার পর সেখান থেকে ৬৩ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৫১ জনকে লুলিয়াংয়ের একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেয়া হয়েছে। তবে আগুন লাগার কারণ সম্পর্কে তাৎক্ষণিক কিছু জানা যায়নি এবং এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। 

আরও পড়ুন>> হঠাৎ ওয়াশিংটন যাচ্ছেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

এদিকে চীনা সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ওয়েইবোতে পোস্ট করা ভিডিওতে ভবন থেকে আগুনের শিখা ওই ভবন থেকে ছড়িয়ে পড়ছে। এ ছাড়া ভবনের পার্কিংয়ের জায়গায় বেশ কিছু লোক জড়ো হয়ে আগুন জ্বলতে দেখছেন। এ সময় জরুরি বিভাগের লোকজনকে আগুন নেভানোর তৎপরতা চালাতে দেখা যায়।

গত অক্টোবরে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় ইনচুয়ান প্রদেশের একটি বারবিকিউ রেস্তোরাঁয় বিস্ফোরণে ৩১ জনের প্রানহানি হয়। এছাড়াও চলতি বছরের এপ্রিলে রাজধানী বেইজিংয়ের একটি হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডে ২৯ জনের মৃত্যু হয়।


আরও খবর
আটক ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ

শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩




ইসরাইলকে সমর্থন জানিয়ে বিপাকে বাইডেন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

হামাস-ইসরাইল সংঘাত মোকাবিলায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের পদক্ষেপ ও অবস্থান নিয়ে তার নিজ দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির মধ্যে বিভাজন ক্রমশ বাড়ছে। পুনরায় নির্বাচিত হতে আগ্রহী ৮১ বছর বয়সী নেতার জন্য এটি একটি গুরুতর সমস্যা হিসেবে হাজির হচ্ছে। বিশেষ করে তরুণ ভোটারদের মধ্যে তার জনপ্রিয়তা কমছে। একই সঙ্গে দলের ভিত্তিকে শক্তিশালী করতে তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। খবর দ্য হিলের।

ডেমোক্র্যাটিক কৌশলবিদ ও প্রগতিশীল অ্যাক্টিভিস্টরা বলছেন, যুদ্ধ ও ফিলিস্তিনি বেসামরিক হতাহতের চিত্র নিয়ে উদারপন্থি, বিশেষ করে তরুণ ডেমোক্র্যাট এবং সংখ্যালঘু ভোটারদের মধ্যে ক্রমবর্ধমান অসন্তোষ ২০২৪ সালের নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক ভোটবাক্সের ক্ষতি করতে পারে।

একাধিক প্রেসিডেন্ট ও ভাইস-প্রেসিডেন্টপ্রার্থীর হয়ে কাজ করা ডেমোক্র্যাটিক কৌশলবিদ ট্যাড ডেভাইন বলেন, সমর্থনকারী একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হতাশ হয়ে গেলে আমি এটিকে একটি প্রকৃত সমস্যা মনে করব। আমি মনে করি তরুণদের মধ্যে যা ঘটছে এবং ইসরাইল ও মধ্যপ্রাচ্যে যা ঘটছে, তা একটি সমস্যা।

তিনি বলেন, এই সমস্যা কত বড়? যদি আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে নির্বাচন হয় তাহলে একটি বড় সমস্যা। সৌভাগ্যবশত নির্বাচনের এখনো ১১ মাস দেরি আছে। আমি মনে করি, শুধু ইসরাইল ইস্যু নিয়ে নয়, বেশ কিছু ইস্যুতে প্রেসিডেন্ট ও তার প্রশাসনের অনেক উন্নতির সুযোগ আছে।

মার্কিন প্রশাসনের চাপের মুখে বুধবার ইসরাইল ও হামাস জিম্মি ও লড়াইয়ে বিরতির সমঝোতায় বাইডেন একটি জয় পেয়েছেন। এই সমঝোতায় হামাসের হাতে থাকা ৫০ জিম্মিকে মুক্তি দেওয়ার বিনিময়ে ইসরাইল চার দিন লড়াই বন্ধ রাখবে এবং ১৫০ ফিলিস্তিনি বন্দিকে মুক্তি দেবে। ইসরাইলি সরকার বলেছে, আরও জিম্মি মুক্তি দেওয়া হলে বিরতির মেয়াদ বাড়তে পারে। শুক্রবার থেকে এই বিরতি কার্যকর হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কিন্তু মার্কিন সংবাদমাধ্যম এনবিসি নিউজের পরিচালিত এক জনমত জরিপের ফল অনুসারে, ১৮ থেকে ৩৪ বছর বয়সী ভোটারদের মধ্যে ৭০ শতাংশ বাইডেনের যুদ্ধ নিয়ে পদক্ষেপকে সমর্থন করেন না। ১ হাজার নিবন্ধিত ভোটারদের মধ্যে হার্ট রিসার্চ অ্যাসোসিয়েটস অ্যান্ড পাবলিক অপিনিয়ন স্ট্র্যাটেজিস এই জরিপ পরিচালনা করে। সামগ্রিকভাবে ৫১ শতাংশ বাইডেনের পদক্ষেপের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

সংঘাত যত দীর্ঘায়িত হচ্ছে ডেমোক্র্যাটিক দলের ভেতরে বিভাজন ক্রমশ বাড়ছে। গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের একমাত্র ফিলিস্তিনি-আমেরিকান সদস্য রাশিদা তালেবকে সমর্থন করেছেন ২২ জন ডেমোক্র্যাটিক সদস্য। তারা গাজায় যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছেন।

এছাড়া গত সপ্তাহেই ডেমোক্র্যাটিক ন্যাশনাল কমিটির সদর দফতরের সামনে ফিলিস্তিনপন্থি বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের সহিংস সংঘর্ষ হয়। শনিবার গাজায় যুদ্ধবিরতির দাবিতে বিপুল মানুষের বিক্ষোভে ক্যালিফোর্নিয়ায় ডেমোক্র্যাটিক কনভেনশন বেশ কয়েক ঘণ্টা বন্ধ ছিল।

বাইডেন দৃঢ়তার সঙ্গে একটি যুদ্ধবিরতির আহ্বান প্রত্যাখ্যান করে আসছেন। ১৮ নভেম্বর ওয়াশিংটন পোস্টে লেখা একটি নিবন্ধে তিনি পুনরায় ইসরায়েলের প্রতিরক্ষার অধিকারের ওপর জোর দিয়েছেন।

কৌশলবিদরা বলছেন, এই সংঘাত বাইডেনের জন্য একাধিক বড় সমস্যা তৈরি করতে পারে। প্রথমত, যুদ্ধবিরতির পক্ষে বাইডেনের আহ্বান জানাতে অস্বীকৃতি প্রগতিশীলদের মধ্যে উত্তেজনা বাড়াচ্ছে। এই ইস্যুতে ইতোমধ্যে দুই ডেমোক্র্যাট সিনেটর বাইডেনের কাছ থেকে  দূরে সরে গেছেন। এদের একজন হলেন সিনেটে ডেমোক্র্যাট নেতৃত্বের দ্বিতীয় শীর্ষ নেতা হুইপ ডিক ডারবিন। অপরজন হলেন সিনেটর জেফ মার্কলি।

এছাড়া প্রতিনিধি পরিষদের ৪০ জনের বেশি ডেমোক্র্যাট সদস্য যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছেন। প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য রো খান্না প্রথমদিকে যুদ্ধবিরতির প্রস্তাবে স্বাক্ষর করতে অস্বীকৃতি জানানোর পর তার কার্যালয়ে ঢুকে পড়েছিল একদল অ্যাক্টিভিস্ট। পরে তিনি স্বাক্ষর দিতে রাজি হন।

দ্বিতীয়ত, বাইডেন ধৈর্যধারণের আহ্বান জানিয়ে আসছেন। কিন্তু তার এই আহ্বান মোটাদাগে উপেক্ষা করে যাচ্ছেন ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। এর ফলে সহিংসতা কমাতে ব্যর্থ হলে বাইডেন দুর্বল বলে ভাবমূর্তি তৈরি হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে।

সংঘাত যত দীর্ঘায়িত হবে, বৃহত্তর আঞ্চলিক সংঘাতে যুক্তরাষ্ট্রের জড়িয়ে পড়ার হুমকি তত বাড়বে। তখন বাইডেন বিভিন্ন রাজনৈতিক জটিলতার মুখোমুখি হতে বাধ্য হবেন।

চলতি সপ্তাহে ইসরাইলের একটি সামরিক ঘাঁটিতে হামলার দায় স্বীকার করেছে লেবাননের ইরানপন্থি শিয়া গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ। ৭ অক্টোবরের পর থেকে নিয়মিত ইসরায়েলের সঙ্গে লেবানন সীমান্তে পাল্টাপাল্টি গোলাবর্ষণ হচ্ছে। বলা হচ্ছে, এসব খণ্ড যুদ্ধ সীমিত পর্যায়ে ঘটছে। তবে আশঙ্কা রয়ে যাচ্ছে, গাজায় চলমান সংঘাতে ইরানপন্থি সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলো যে কোনো সময় জড়িয়ে পড়তে পারে।

নিউজ ট্যাগ: যুক্তরাষ্ট্র

আরও খবর
আটক ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ

শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩




বিচারক-আদালতের নিরাপত্তা নিশ্চিতে আইজিপি ও ডিএমপি কমিশনারকে চিঠি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

সারা দেশে বিচারক ও আদালতের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ও ঢাকার পুলিশ কমিশনারকে চিঠি পাঠিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।

মঙ্গলবার (৫ ডিসেম্বর) সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার মুন্সী মো. মশিয়ার রহমান এ চিঠি পাঠান।

ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি মহানগর দায়রা জজ আদালত, ঢাকা ও জেলা জজ আদালত এবং খুলনায় বোমা হামলা হয়েছে। ইতোপূর্বে কুমিল্লা আদালতে বিচারকের খাস কামরায় বিচারপ্রার্থীকে হত্যার ঘটনা ও সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোতে সারা দেশের বিচারকরা চরমভাবে উদ্বিগ্ন, আতঙ্কিত ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। দেশের বিচারব্যবস্থা সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য দেশের সবগুলো আদালত ও ট্রাইব্যুনাল প্রাঙ্গণ, বিচারকদের বহনকারী গাড়ি ও বাসভবনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা অতি জরুরি।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, প্রধান বিচারপতি সারা দেশের সবগুলো আদালত ও ট্রাইব্যুনাল প্রাঙ্গণ এবং বিচারকদের বহনকারী গাড়ি ও বাসভবনের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা বৃদ্ধির নির্দেশনা দিয়েছেন। এমতাবস্থায় সারা দেশের সবগুলো আদালত ও ট্রাইব্যুনাল প্রাঙ্গণ, বিচারকদের বহনকারী গাড়ি এবং বাসভবনে সার্বক্ষণিক পুলিশি পাহারা ও পর্যাপ্ত পুলিশ ফোর্স মোতায়েনসহ সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করা হলো।


আরও খবর
জামিন পেলেন না মির্জা ফখরুল

বৃহস্পতিবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২৩