আজঃ শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

পাকিস্তানে আজ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন, ৯ মার্চ প্রেসিডেন্ট

প্রকাশিত:রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের পার্লামেন্টে আজ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন। শনিবার পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) সভাপতি শাহবাজ শরিফ এবং পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) মহাসচিব ওমর আইয়ুব প্রধানমন্ত্রীর পদের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

শনিবার দুপুর ২টায় মনোনয়নপত্র গ্রহণের সময় শেষ হয়েছে। যাচাই-বাছাইয়ের সময় শেষ হয়েছে বিকাল ৩টায়। রোববার প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনের পর ৯ মার্চ নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করবেন দুই কক্ষের নবনির্বাচত সংসদ-সদস্যরা।

পিএমএল-এন এবং তাদের মিত্ররা জাতীয় পরিষদের সচিবের কাছে আটটি মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিপরীতে এসআইসি তার নামে চারটি মনোনয়নপত্র দাখিল করে। যাচাই-বাছাই শেষে উভয় প্রার্থীর মনোনয়নপত্র গ্রহণ করা হয়েছে।

পিএমএল-এন নেতা ইসহাক দার, হানিফ আব্বাসি এবং পিপিপি নেতা খুরশিদ শাহ শাহবাজের পক্ষে নথি জমা দিয়েছেন।  ওমর আইয়ুবের মনোনয়নপত্র নিম্নকক্ষের সচিবের কাছে জমা দিয়েছে পিটিআই সমর্থক সুন্নি ইত্তেহাদ কাউন্সিল (এসআইসি)।

মুতাহিদা কওমি মুভমেন্ট-পাকিস্তান (এমকিউএম-পি), ইন্তেহকাম-ই-পাকিস্তান পার্টি এবং পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) সবাই পিএমএল-এন-এর প্রার্থীকে সমর্থনে রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য বিজয়ীকে কমপক্ষে ১৬৯ ভোট পেতে হবে।

এরই মধ্যে পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন (ইসিপি) আনুষ্ঠানিকভাবে আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তফশিল ঘোষণা করেছে। প্রকাশিত সময়সূচি অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা আগামী ৯ মার্চ। স্থানীয় সময় সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত পাকিস্তানের পার্লামেন্ট হাউজ এবং ৪টি প্রাদেশিক অ্যাসেম্বলিতে এই ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, আগ্রহী প্রার্থীদের নির্বাচনের আগে আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া শুরু করে ২ মার্চের মধ্যে তাদের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। যেগুলো ৪ মার্চ পর্যন্ত একটি সূক্ষ্ণভাবে যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যাবে।

ইসলামাবাদের সংসদ ভবন এবং ৪টি প্রাদেশিক পরিষদ এই গণতান্ত্রিক অনুশীলনের মূল ক্ষেত্র হিসাবে কাজ করবে। সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের মিত্ররা প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসাবে পশতুন-খোয়া মিলি আওয়ামী পার্টি (পিকেএমএপি) প্রধান মাহমুদ খান আচাকজাইয়ের মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

অন্যদিকে পিপিপির ফরুক এইচ নায়েক এবং সেলিম মান্ডভিওয়ালা প্রেসিডেন্ট পদের জন্য জোট সরকারের মনোনীত প্রার্থী হিসাবে দলের কো-চেয়ারপারসন আসিফ জারদারির মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রিসাইডিং অফিসার হিসাবে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র গ্রহণ করবেন বিচারপতি আমির ফারুক।

এদিকে শনিবার যাচাই-বাছাই পর্বের মধ্য দিয়েই দেশব্যাপী শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করেছে পিটিআই। লাহোরে পিটিআই নেতাকর্মীদের ধরপাকড়ও করেছে পুলিশ। নির্বাচনি কারচুপির বিরুদ্ধে সারা দেশে বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ ও সমাবেশ করেছে তারা।

নিউজ ট্যাগ: পাকিস্তান

আরও খবর



এক দিনের ব্যবধানে ফের বাড়ল স্বর্ণের দাম

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে আরেক দফা বাড়ানো হলো স্বর্ণের দাম। এক দিনের ব্যবধানে ভরিতে ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে একভরি ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ১৭ হাজার ৫৭৩ টাকা, যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ।

আজ সোমবার এক বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস) জানিয়েছে, আগামীকাল মঙ্গলবার থেকে নতুন এ দাম কার্যকর হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পিওর গোল্ড) মূল্য বেড়েছে। ফলে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

নতুন দাম অনুযায়ী প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) ২২ ক্যারেটের স্বর্ণের দাম পড়বে ১ লাখ ১৭ হাজার ৫৭৩ টাকা। এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি ১ লাখ ১২ হাজার ২০৮ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি ৯৬ হাজার ২২৮ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৮০ হাজার ১৯০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এর আগে, গত ৬ এপ্রিল সবচেয়ে ভালো মানের ২২ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণ ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে ১ লাখ ১৫ হাজার ৮২৪ টাকা নির্ধারণ করেছিল বাজুস। আর ২১ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণের দাম ১ লাখ ১০ হাজার ৫৭৫ টাকা, ১৮ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণের ৯৪ হাজার ৭৭০ টাকা ও সনাতন পদ্ধতির এক ভরি স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছিল ৭৮ হাজার ৯৬৫ টাকা। যা ৭ এপ্রিল থেকে কার্যকর হয়েছিল।

চলতি বছর এ নিয়ে ৭ বার স্বর্ণের দাম সমন্বয় করল বাজুস। আর ২০২৩ সালে দাম সমন্বয় করা হয়েছিল ২৯ বার।


আরও খবর



চবির ভিসি পদে যোগদান করলেন অধ্যাপক আবু তাহের

প্রকাশিত:বুধবার ২০ মার্চ ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ২০ মার্চ ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য ড. মোহাম্মদ আবু তাহের ভাইস-চ্যান্সেলর (ভিসি) পদে বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদান করেছেন।

বুধবার (২০ মার্চ) সকালে ভিসি দপ্তরে যোগদান করেন তিনি। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীন, চবির সদ্য বিদায়ী ভিসি অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার ও দুই প্রো-ভিসি উপস্থিত ছিলেন।

যোগদান শেষে চবি নবনিযুক্ত ভিসি, প্রো-ভিসিদ্বয় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনবৃন্দকে সাথে নিয়ে চবি বঙ্গবন্ধু চত্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। পরে চবি ভিসি দপ্তরের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় এক মতবিনিময় ও সংবর্ধনা সভা।

সংবর্ধনা সভা শেষে চবি নবনিযুক্ত ভিসি সকলকে সাথে নিয়ে চবি স্বাধীনতা স্মৃতি ম্যূরাল, শহীদ মিনার, শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতি সৌধ ও চবি স্মরণ চত্বরে পুস্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। 

মতবিনিময় সভায় অনুভূতি ব্যক্ত করে বক্তব্য রাখেন চবির নবনিযুক্ত ভিসি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবু তাহের, সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. আলমগীর মোহাম্মদ সিরাজুদ্দীন, দুই প্রো-ভিসি, চবি সিনেট সদস্য অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, চবি সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শামীম উদ্দিন খান, চবি কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মাহবুবুল হক, চবি বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ নাসিম হাসান, চবি সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সিরাজ উদ দৌল্লাহ, চবি ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক মো. হেলাল উদ্দিন নিজামী, চবি আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আবদুল্লাহ আল ফারুক প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন চবি রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) কে এম নুর আহমদ।

এসময় ভিসি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে জ্ঞান চর্চা, জ্ঞান সৃজন ও জ্ঞান বিতরণের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ। এ বিশ্ববিদ্যালয়কে শিক্ষা ও গবেষণাবান্ধব একটি বিশ্বমানের বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তর করতে সকলকে সর্বোচ্চ সততা, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে দ্বায়িত্ব পালন করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ৪৬ বছর আগে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আমি ছাত্র হিসেবে এসেছি; আজ ভিসির দ্বায়িত্ব নিয়েছি। রাষ্ট্র আমাকে যে দ্বায়িত্ব দিয়েছে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অ্যালামনাই হিসেবে আমি তা যথাযথভাবে পালন করে যাব।


আরও খবর
১১ মের মধ্যেই এসএসসির ফল প্রকাশ

শুক্রবার ০৫ এপ্রিল ২০২৪




তিতুমীরে সাংবাদিক পেটানোর ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৩ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

Image

তিতুমীর কলেজ সাংবাদিক সমিতির সাবেক সভাপতি ও দৈনিক সময়ের আলোর প্রতিবেদক সাব্বির আহমেদকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে কলেজ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। গুরুতর আহত অবস্থায় মহাখালীর লাইফ লাইন হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর তাকে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা এস এম ইমরুল রুদ্রকে বহিষ্কার করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

শুক্রবার (২২ মার্চ) রাতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক মুজিবুল বাশার স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই বহিষ্কারাদেশ প্রদান করা হয়।

এর আগে শুক্রবার বিকালে ইফতার মাহফিল থেকে অফিসে যাওয়ার পথে তিতুমীর কলেজের আক্কাছুর রহমান আঁখি হলের সামনের প্রধান সড়কে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, একটি ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রিপন মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক জুয়েল মোড়লের নেতৃত্বে কলেজ ছাত্রলীগের সহ সম্পাদক এস এম ইমরুল রুদ্র এই হামলা করে।

ঘটনার বিষয়ে সাব্বির আহমেদ বলেন, আমার ডিপার্টমেন্টে আয়োজিত ইফতার মাহফিলে অংশ নিতে ক্যাম্পাসে যাই। সেখানে ছাত্রলীগের নেতা এস এম ইমরুল রূদ্র এসে আমার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে।  ইফতার শেষে রূদ্র আক্কাসুর রহমান আঁখি হলের নেতাকর্মীদের নিয়ে আমার ওপর অতর্কিত হামলা চালায়।’

তিনি আর‌ও বলেন, তারা রড, লাঠিসোটা নিয়ে এলোপাথাড়ি আঘাত করে। একপর্যায়ে আমি অজ্ঞান হয়ে যাই।’

সাব্বির আহমেদ বলেন, কলেজ প্রশাসনকে পরিচালনা করছেন তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রিপন মিয়া ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক জুয়েল। ক্যাম্পাসে কোন ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটলেও কলেজ প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নেয় না।’

হামলার বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনানকে অবগত করা হয়। তারা বলেন, সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনার নিশ্চয়ই অনাকাঙ্ক্ষিত। ছাত্রলীগের কোনো নেতাকর্মী হামলার সঙ্গে জড়িত হলে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই ঘটনার বিষয়ে জানতে তিতুমীর কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রিপন মিয়ার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলে তার নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়।


আরও খবর
১১ মের মধ্যেই এসএসসির ফল প্রকাশ

শুক্রবার ০৫ এপ্রিল ২০২৪




আমার এলাকায় দ্বৈত শাসন চলবে না: সাবেক ভূমিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৯ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মো.আমজাদ হোসেন, আনোয়ারা

Image

আমি স্পষ্ট ভাবে বলতে চাই সাংবিধানিকভাবে আমি নির্বাচিত প্রতিনিধি, আমার এলাকায় দ্বৈত শাসন চলবেনা বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ।

শুক্রবার (২৯ মার্চ) বিকালে চট্টগ্রামের আনোয়ারায় দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের আয়োজনে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্থ ৩৫ পরিবারের মাঝে ঢেউটিন বিতরণ ও গৃহমঞ্জুরি অর্থ বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

জাবেদ বলেন, আমি আনোয়ারা-কর্ণফুলীর মানুষের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, এই এলাকার প্রশাসন ও দিকনির্দেশনা আমিই দেব, জনগণকে কিভাবে শান্তিতে রাখতে হয় সেই বিষয়টি দেখার দায়িত্ব আমার, কে কি হয়েছে কোন পদ পেয়েছে সে বিষয় দেখার দায়িত্ব আমার নয়। প্রশাসনের কর্মকর্তাদের আমি নির্দেশ দিচ্ছি এখন থেকে যে কোন সভা-সমাবেশ এক সপ্তাহ আগেই অনুমতি নিয়ে করতে হবে। অনুমতি না নিয়ে কোন সমাবেশ করতে দেওয়া হবেনা।

তিনি আরও বলেন, আমি কখনো কোন অন্যায়কে প্রশ্রয় দেয়নি, ভূমি দখল, থানায় হামলা,দালালী, মানুষের উপর অত্যাচার কোন ধরনের অন্যায় কাজ করতে দেইনি। যারা এসব করতে পারেনি তারা আজ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে, এসব লোকদের আনোয়ারাবাসী সবাই চেনে, তাদেরকে আমি দুরে রেখেছিলাম বলেই মানুষ শান্তিতে ছিল।

ইউএনও মো. ইশতিয়াক ইমনের সভাপতিত্বে ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবু নাছেরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক এমএ মান্নান চৌধুরী।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগ নেতা এম এ মালেক, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান নোয়াব আলী, সুগ্রীব মজুমদার দোলন, চেয়ারম্যান আমিন শরিফ, এমএ কাইয়ুম শাহ, অসিম কুমার দেব, আফতাব উদ্দিন চৌধুরী সোহেল, কলিম উদ্দিন, মোহাম্মদ ইদ্রিস, ত্রাণ ও সমাজকল্যান সম্পাদক বোরহান উদ্দিন চৌধুরী মুরাদ প্রমুখ।


আরও খবর



রাখাইনে জান্তা বাহিনীর বিমান হামলায় ২৩ রোহিঙ্গা নিহত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৯ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মিনবিয়া শহরে বিমান হামলা চালিয়েছে জান্তা বাহিনী। দেশটির সামরিক বাহিনীর এই হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন ২৩ সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা। আহত হয়েছে আরও ৩৩ জন।

সোমবারের (১৮ মার্চ) এই বোমা হামলা সামরিক শাসকরা বিনা উসকানিতে চালিয়েছে বলে দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের। খবর ইরাবতীর।

স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, সোমবার সকালের দিকে দুটি বোমা থার্ডার গ্রামে ফেলা হয়। এতে গ্রামটির ধর্মীয় গুরু, তার স্ত্রী ও তাদের সন্তানসহ ২৩ জন প্রাণ হারিয়েছেন। তিনি আরও জানান, বোমা হামলায় আহত ১৮ আহতকে চিকিৎসা দিচ্ছে আরকান আর্মি (এএ)। আর স্থানীয় ক্লিনিক থেকে আরও ১৫ আহত চিকিৎসা নিয়েছেন।

ইরাবতী জানিয়েছে, থার্ডার গ্রামে ৩০০ বাড়িতে দুই হাজারের মতো রোহিঙ্গা বাস করে। বোমা হামলার পর তারা বাস্তুচ্যুত হয়েছে। পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলোতে তারা আশ্রয় নিয়েছে।

রোহিঙ্গা অধিকারকর্মী নেয় সান লিয়ন বলেন, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী যে অপরাধ করছে তার জন্য তারা কখনও শাস্তি পায়নি। তারা শুধু রোহিঙ্গা নয়, অন্যান্য জাতিগত মানুষের সঙ্গে অপরাধ করে চলেছে। এই অপরাধগুলো তখনই শেষ হবে যখন এর দায়মুক্তি শেষ হবে।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি মিনবিয়া শহরের নিয়ন্ত্রণ নেয় এএ। এরপর থেকেই সেখানে ক্রমাগত বিমান হামলা চালাচ্ছে জান্তা বাহিনী। ইরাবতী জানিয়েছে, সিত্তওয়েতে অবস্থিত জান্তা ব্যাটালিয়নরা ৮ মার্চ রাত ১১টার দিকে মিনবিয়া শহরে গোলাবর্ষণ করে।


আরও খবর