আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

রয়্যাল এনফিল্ডের মডেলগুলোতে কী কী ফিচার পাবেন মোটরসাইকেলপ্রেমীরা

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রাচীনতম ব্রিটিশ টু-হুইলার ব্র্যান্ড রয়্যাল এনফিল্ড-৩৫০-এর মাধ্যমে মোটরসাইকেলের ইঞ্জিন ক্ষমতার নতুন মাত্রায় পৌঁছতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ২০২৩ সালের ৭ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত ৩৭৫ সিসির (কিউবিক সেন্টিমিটার) মাইলফলকের দিকে এই যুগান্তকারী পদক্ষেপটি সম্পন্ন হতে যাচ্ছে চলতি বছরের জুলাইতে। স্থানীয়ভাবে ইফাদ মোটরস নামক একটি মোটরসাইকেল কারখানাজাত প্রতিষ্ঠান দেশের বাজারে চালু করবে রয়্যাল এনফিল্ড

ইতোমধ্যে জানানো হয়েছে যে, বিশ্ব বাজারে এর নামকরা ক্লাসিক, বুলেট, হান্টার ও মিটিওর সিরিজগুলো দেশের ভেতরেই প্রস্তুত করা হবে। কী কী ফিচার পাওয়া যাবে রয়্যাল এনফিল্ড-৩৫০ মোটরসাইকেলের মডেলগুলোতে? আর কতটুকু নাগালের মধ্যে থাকতে যাচ্ছে এগুলোর দাম। চলুন জেনে নেওয়া যাক।

নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের ঐতিহ্যের সঙ্গে আধুনিক প্রযুক্তির এক সঙ্গত সংমিশ্রণ রয়্যাল এনফিল্ড ক্লাসিক ৩৫০। বাতাস চলাচলের মাধ্যমে শীতলীকরণ প্রক্রিয়া সমৃদ্ধ একক সিলিন্ডার ও ৩৪৯ সিসির ইঞ্জিন একটি আদর্শ মোটরসাইকেল হিসেবে মডেলটিকে ন্যায্যতা দেয়।

৬,১০০ আরপিএম (ইভোলিউশন পার মিনিট)-এর সঙ্গে রয়েছে ২০.২ বিএইচপির (ব্রেক হর্সপাওয়ার) হর্সপাওয়ার এবং চার হাজার আরপিএমের সঙ্গে প্রতি ফুট দূরত্বে ১৯ পাউন্ডের টর্ক। তাই শহুরে যানজট বা খোলা-রাস্তা উভয় ক্ষেত্রেই চালনায় ভারসাম্য নিয়ে কোনো চিন্তা নেই।

রয়্যাল এনফিল্ড ক্লাসিক ৩৫০ : এনফিল্ড ঐতিহ্যের সমগ্র নান্দনিকতার ছোঁয়া পড়েছে নকশায়। স্টিলের ফ্রেমটি চালক ও যাত্রী উভয়ের জন্যই স্বাভাবিক হ্যান্ড গ্রিপ্স, হ্যান্ডেলবার ও সামঞ্জস্যপূর্ণ ফুট পেগ নিশ্চিত করে। বাইক চড়ার মুহূর্তগুলোকে আরামদায়ক করার জন্য সামনের সাসপেনশনে রয়েছে ৪১ মিলিমিটার টেলিস্কোপিক ফর্ক আর পেছনেরটাতে একটি টুইন সাইড সুইং আর্ম। যথাযথ নিরাপত্তার স্বার্থে এবিএস (অ্যান্টি-লক ব্রেকিং সিস্টেম) হিসেবে কাজ করবে সামনে এবং পিছনে উভয় দিকের হাইড্রোলিক ডিস্ক ব্রেক। সতর্ক সংকেত দেওয়ার জন্য যন্ত্রাংশ প্যানেলে রয়েছে চিরাচরিত স্পিডোমিটার ও একটি ফুয়েল লেভেল লাইট।

এছাড়াও সঙ্গে বহন করার জন্য আছে হার্ডসাইড কেস, পেছনের র‍্যাক ও ব্যাগ লাইনারসহ আনুষঙ্গিক নানাবিধ সংযোজনের ব্যবস্থা।

রয়্যাল এনফিল্ড বুলেট ৩৫০ : বুলেট মডেলকে রয়্যাল এনফিল্ড ঐতিহ্যের প্রতীক বলা যেতে পারে। ক্লাসিকের মতো এটাতেও রয়েছে ৩৪৯ সিসির জে-সিরিজ ইঞ্জিন ও ৬,১০০ আরপিএম-এ ২০.২ বিএইচপি হর্সপাওয়ার। পাশাপাশি এটি চার হাজার আরপিএম-এ প্রতি ফুট দূরত্বে ১৯.৯ পাউন্ড টর্ক দিতে সক্ষম। অর্থাৎ উচ্চগতির জন্য নয়; এটি বরং প্রতি ঘণ্টায় ৫০ থেকে ৬০ মাইল যাত্রার জন্য উত্তম।

সিরিজটি ইতিহাসের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী মোটরসাইকেল ডিজাইন। ১৯৫৫ সালে মূল প্রতিষ্ঠান এনফিল্ড সাইকেল কোম্পানি ভারতের মাদ্রাজ মোটরসের সঙ্গে অংশীদারিত্বে গঠন করেছিল এনফিল্ড অব ইন্ডিয়া। মাদ্রাজ (বর্তমানে চেন্নাই) কেন্দ্রিক এনফিল্ড সাইকেলের উত্তরসূরি তাদের কার্যক্রম শুরু করেছিল এই রয়্যাল এনফিল্ড বুলেট অ্যাসেম্বলির মাধ্যমেই। বুলেটের চিত্তাকর্ষক নকশায় এখনও সেই ঐতিহাসিক ছাপ বিদ্যমান, যা অনায়াসেই যেকোনো মোটরসাইকেল চালকের মন জয় করে নেয়। বুলেটের ভিনদেশী নকশা এবং ইউএসবি চার্জিং পোর্ট বিশেষভাবে নজর কাড়ে।

স্বাচ্ছন্দ্যপূর্ণ হ্যান্ডলিং, সাসপেনশন, এবং ডুয়্যাল সিট সেটআপ একা একা বা কাউকে সঙ্গে নিয়ে চালানো উভয় ক্ষেত্রে ন্যাভিগেশনটা চালকের জন্য সহজাত করে তোলে। সিটটি মোটা-প্যাডের হওয়ায় তা ৮০৫ মিলিমিটার উচ্চতায় চালক ও যাত্রী দুইজনের জন্যই বেশ সহজসাধ্য এবং আরামপ্রদ। ১৩ লিটার ধারণক্ষমতার জ্বালানি ট্যাঙ্ক একবার ভরে নিলে ৩০০ মাইলেরও বেশি নিশ্চিন্তে ভ্রমণ করা যাবে।

রয়্যাল এনফিল্ড হান্টার ৩৫০ : উন্নত প্রযুক্তিতে সুসজ্জিত হওয়ায় রয়্যাল এনফিল্ড পরিবারের সবচেয়ে আধুনিক সদস্য হচ্ছে হান্টার। অবশ্য ক্লাসিক মডেলের ধারা অব্যাহত রেখে এর একক সিলিন্ডার ও ৩৪৯ সিসির ইঞ্জিনের ক্ষমতা একই রাখা হয়েছে। অর্থাৎ ৬,১০০ আরপিএমে ১৪.৮৭ কিলোওয়াট এবং চার হাজার আরপিএমে ২৭ এনএম টর্ক।

সামগ্রিক নকশা অনুসারে এই সিরিজ শহুরে পরিবেশের জন্য উপযুক্ত। স্টিলের ফ্রেমটি ন্যাভিগেশন এবং চালক ও যাত্রী দুজনের ফুটপেগের সহায়ক। এখানেও আছে সামনের সাসপেনশনে টেলিস্কোপিক ফর্ক এবং পেছনের সাসপেনশনে টুইন সাইড সুইং আর্ম।

এর আকার ও সর্বোচ্চ ১৮১ কেজি ওজন শামাল দিতে কোনো প্রাপ্তবয়স্ক মোটরসাইকেল চালককে হিমশিম খেতে হয় না। ৩১.১ ইঞ্চি বা ৭৯০ মিলিমিটারের উচ্চতায় বসার জায়গাটি যেকোনো চালক ও যাত্রীর জন্য স্বাভাবিক। তাছাড়া চলন্ত অবস্থায় সুরক্ষার জন্য সামনে এবং পিছনে এবিসসহ হাইড্রোলিক ডিস্ক ব্রেক তো থাকছেই। হান্টার-৩৫০-এর যন্ত্রাদি ডিজিটাল হওয়ায় পাওয়ার আউটলেট, হার্ডসাইড কেস এবং স্টোরেজ কভারের সুবিধা আছে। অ্যালুমিনিয়ামের চাকাগুলোতেও লাগানো আছে টিউবলেস টায়ার।

অন্যান্য সিরিজগুলোর সঙ্গে খুব একটা তারতম্য নেই রয়্যাল এনফিল্ড মিটিওর ৩৫০-এর। ৩৪৯ সিসির একক সিলিন্ডার ইঞ্জিনে অপরিবর্তিত আছে চার হাজার আরপিএমে ২৭ এনএম (নিউটন-মিটার) টর্ক এবং ৬,১০০ আরপিএমে ২০.২ বিএইচপির ক্ষমতা। টেকসই ও পালিশ করা সর্বাঙ্গে জেনুইন মোটরসাইকেল এক্সেসরিজের (জিএমএ) বিশাল বহর। ইঞ্জিন এবং গিয়ারের মাঝে সুষ্ঠু যোগসাজশ এক মসৃণ রাইডিং অভিজ্ঞতা দেয়। প্রতি ঘণ্টায় গতি ৯০ থেকে ১১০ কিলোমিটার ছাড়িয়ে গেলেও কম্পন অনুভূত হবে না।

মিটিওর-৩৫০ ও সমস্বরে জানান দেয় স্টিল ফ্রেম এবং সামনের ও পেছনের সাসপেনশনে যথাক্রমে টেলিস্কোপিক ফর্ক ও টুইন সাইড সুইং আর্মের উপস্থিতি। গ্রাউন্ড থেকে ৩০.১ ইঞ্চি বা ৭৬৪.৫ মিলিমিটারের উচ্চতায় ডুয়্যাল সিট এবং সামনের-পেছনের দুই চাকাতে এবিএসের হাইড্রোলিক ডিস্ক ব্রেক পূর্ণ নিরাপত্তার পরিপূরক। স্পিডোমিটার, ট্যাকোমিটার, ট্রিপ ওডোমিটার, কম্পাস এবং ন্যাভিগেশন সিস্টেমের ডিজিটাল যন্ত্রাংশ বিশ্বমানের সুবিধা হিসেবে আলাদা আকর্ষণ রাখে।

রয়্যাল এনফিল্ড-৩৫০ এর সম্ভাব্য মূল্য : পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে বিচিত্র রঙ ও এবিএস চ্যানেল ভেদে ক্লাসিক সিরিজের দাম চলছে এক লাখ ৯৩ হাজার ৮০ রুপি থেকে দুই লাখ ২৪ হাজার ৭৫৫ রুপি পর্যন্ত। যেটি বাংলাদেশি টাকায় আড়াই লাখ থেকে দুই লাখ ৯৭ হাজার ৩৬ টাকা (১ ভারতীয় রুপি = ১.৩২ বাংলাদেশি টাকা)। বেশকিছু নতুন রঙের ভার্সন সংযোজন হয়ে বুলেট মডেলগুলোর মূল্য দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৭৩ হাজার ৫৬২ থেকে এক লাখ ৯৭ হাজার ৪৩৬ রুপি, যা প্রায় দুই লাখ ২৯ হাজার ৩৭৯ টাকা থেকে দুই লাখ ৬০ হাজার ৯৩১ টাকার সমপরিমাণ।

এক লাখ ৪৯ হাজার ৯০০ থেকে ১ লাখ ৭৪ হাজার ৬৫৫ রুপি (প্রায় এক লাখ ৯৮ হাজার ১০৭ থেকে দুই লাখ ৩০ হাজার ৮২৩ টাকা) দামে ভারতীয় গ্রাহকদের নিকট পরিবেশিত হচ্ছে বর্ণীল হান্টারগুলো। আর দুই লাখ পাঁচ হাজার ৯০০ থেকে দুই লাখ ২৯ হাজার ৯০০ রুপি (প্রায় দুই লাখ ৭২ হাজার ১১৭ টাকা থেকে তিন লাখ তিন হাজার ৮৩৫ টাকা) দামের পরিধি নিয়ে মোটরসাইকেল চালকদের নজর কেড়েছে অবকাশ রাইডিংয়ের মিটিওর-৩৫০ ক্রুজগুলো।

বাংলাদেশে মোটরসাইকেলগুলোর দাম নির্ভর করছে উদ্বোধনকালীন বাজার পরিস্থিতি এবং ডলার মূল্যের ওপর। ইফাদ মোটরসের তথ্যমতে, ডলার রেট প্রায় ১২৫ (বাংলাদেশি) টাকা হলে রয়্যাল এনফিল্ড-৩৫০ সিরিজগুলোর দাম হতে পারে প্রায় পাঁচ থেকে ছয় লাখ টাকা।

পরিশিষ্ট : রয়্যাল এনফিল্ড-৩৫০ এর চারটি সিরিজই প্রতিনিধিত্ব করছে বিশ্বমানের মোটরসাইকেল শিল্পকে। তবে বাংলাদেশের প্রতিক্রিয়ায় বৈচিত্র্য আসতে পারে মোটরসাইকেলপ্রেমীদের ভিন্ন চাহিদার ভিত্তিতে। বয়সের সীমারেখা নির্বিশেষে ঐতিহ্যবাহী মোটরসাইকেল চালকরা তাদের নস্টালজিয়া অনুশীলনে সাদরে গ্রহণ করে নিতে পারেন ক্লাসিক মডেলটিকে। সাবলীলতা ও নির্ভরযোগ্যতায় ব্যবহারের প্রতি গুরুত্ব দেওয়া শ্রেণির প্রথম পছন্দ হতে পারে বুলেট সিরিজ। শহুরে চালকদের বিশেষ করে স্বল্প বয়সীদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষস্থানটি দখল করতে পারে হান্টার ও মিটিওর। তবে এবিএস থাকলেও এগুলোর উচ্চগতি বাংলাদেশের মহাসড়কগুলোতে সতর্কতার দাবি রাখে। আর খারাপ সড়ক বা গ্রাম্য পথে দূর পাল্লায় হান্টারকে পরখ করে দেখা মোটেই উচিত হবে না।

নিউজ ট্যাগ: রয়্যাল এনফিল্ড

আরও খবর
হ্যালোইন কী, কেন পালিত হয় এ উৎসব?

বুধবার ০১ নভেম্বর ২০২৩




এফবিসিসিআই-এর স্ট্যান্ডিং কমিটির কো-চেয়ারম্যান হলেন ড. মো. সাদী-উজ-জামান

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Image

বাংলাদেশে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই-এর স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ল্যান্ড ডেভেলপার্স-এর কো-চেয়ারম্যান (২০২৩-২০২৫) হওয়ার অসামান্য গৌরব অর্জন করলেন নতুনধরা গ্রুপের সম্মানিত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মোঃ সাদী-উজ-জামান।

যিনি বাংলাদেশ ল্যান্ড ডেভেলপার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএলডিএ) হতে মনোনীত হয়ে এফবিসিসিআই- এ আবাসন খাতে প্রতিনিধিত্বকারী শীর্ষস্থানীয় ব্যবসায়ীদের একজন! গত সোমবার এফবিসিসিআই এর মহাসচিব মোহাম্মদ আলমগীর এর স্বাক্ষরিত চিঠিতে এই তথ্য জানানো হয়।

কমিটির ডিরেক্টর-ইন-চার্জ হয়েছেন জেসিএক্স ডেভেলপমেন্টস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. ইকবাল হোসেন চৌধুরী। দেশের স্বনামধন্য ও শীর্ষস্থানীয় আবাসন ব্যবসায়ীদের সমন্বয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে গঠিত হয় এফবিসিসিআই এর এই স্থায়ী কমিটি!


আরও খবর



পি‌পিএম পদক পেলেন ঠাকুরগাঁও‌য়ের পু‌লিশ সুপার

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রেদওয়ানুল হক, ঠাকুরগাঁও

Image

গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কার রাষ্ট্রপতি পুলিশ মেডেল (পিপিএম-সেবা) পদকে ভূষিত হয়েছেন ঠাকুরগাঁও জেলা পুলিশ সুপার উত্তম প্রসাদ পাঠক।

গতকাল মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স প্যারেড গ্রাউন্ডে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঠাকুরগাঁও জেলার পুলিশ সুপারকে সম্মানজনক এ পদকটি প্রদান করেন। এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ও আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন, বিপিএম (বার), পিপিএম উপস্থিত ছিলেন।

এ পুরস্কার প্রাপ্তিতে তিনি প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপি, রেঞ্জ ডিআইজি, রংপুরসহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। পুলিশ সুপার এ পদক প্রাপ্তিকে ঠাকুরগাঁও জেলা পুলিশের সকল সদস্যের অর্জন বলে উল্লেখ করেন। তিনি তার সকল সহকর্মীসহ  জেলাবাসীর প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

পুলিশ সুপার উত্তম প্রসাদ পাঠক গত বছরের ৭-ই জুলাই ঠাকুরগাঁও জেলা পুলিশে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। অত্যন্ত মেধাবী, দক্ষ ও বুদ্ধিদীপ্ত এ কর্মকর্তা পুলিশ সুপার হিসেবে ঠাকুরগাঁও জেলায় দায়িত্ব গ্রহণের পর হতেই জেলা পুলিশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে আধুনিকায়ন ও অপরাধ দমনে সাফল্য অর্জন, একই সাথে জনগণের আস্থা ও ভালোবাসা প্রতিটি ক্ষণেই বৃদ্ধি পায় সে লক্ষ্যে নিরলস কাজ করছেন।

এ পর্যন্ত জেলায় সংঘটিত ডাকাতি, মোটরসাইকেল ছিনতাই, ট্রাকভর্তি ভুট্রা ডাকাতি, মাইক্রোবাসে ছিনতাই, অটো-চার্জারচালক হত্যা, মাদ্রাসার ছাত্র হত্যা, ডিবি পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা, মাদক ও চাঞ্চল্যকর মামলাগুলোর দ্রুততম সময়ে আসামী সনাক্ত, গ্রেপ্তার ও লুণ্ঠিত মালামাল উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তার করা হয়েছে বিপুল পরিমান মাদক উদ্ধার ও মাদকের সাথে জড়িতদের।

অপরাধ ও অপরাধীদের দমনে ইস্পাত কঠিন মনোভাব নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন এসপি পাঠক। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশা, ধর্ম-বর্ণ তথা সকলস্তরের সাধারণ মানুষের সাথে গভীর সম্পর্ক স্থাপন করেছেন তিনি। সহকর্মী, অন্যান্য বিভাগ/প্রতিষ্ঠানের সাথে পারস্পারিক সৌহার্দ সম্পর্ক বজায় রাখায় জেলা পুলিশের সাথে অন্যান্যদের সেতুবন্ধন নিয়ে গেছেন এক উচ্চমাত্রায়। তিনি ২৭তম বিসিএসর একজন চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা।


আরও খবর



অবশেষে নাভালনির মৃত্যুর কারণ জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পুতিনের সমালোচক রাশিয়ার বিরোধী দলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনির মৃত্যুর কারণ কারা কর্তৃপক্ষ। বিবিসির খবর অনুসারে, রাশিয়ার ইয়ামালো-নেনেতেস কারাগার কর্তৃপক্ষ কীভাবে নাভালনির মৃত্যু হয়েছে; সে বিষয়টি তার মাকে জানিয়েছে।

মৃত্যুর কারণ হিসেবে তারা সাডেন ডেথ সিন্ড্রোমকে উল্লেখ করেছে। যার অর্থ তার মৃত্যুটা আকস্মিকভাবে হয়েছে।

ব্রিটিশ হার্ট ফাউন্ডেশনের তথ্য অনুযায়ী, সাডেন ডেথ সিন্ড্রোম হলো একটি বিশেষ অবস্থা। এই সময় আক্রান্ত ব্যক্তির হার্ট অ্যাটাক হয় এবং কোনো লক্ষণ ও কারণ ছাড়া মৃত্যু হয়। কিন্তু সাডেন ডেথ সিন্ড্রোম হলে হার্ট অ্যাটাকের কারণ জানা যায় না।

সাধারণত হার্ট অ্যাটাক হলে হার্টে ও শরীরে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে শ্বাস-প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে যায় এবং ব্রেন সজাগ থাকার জন্য কোনো অক্সিজেন পায় না।

রাশিয়ার প্রধান বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনির জীবনের শেষ মুহূর্তের বিবরণ দিয়েছে ইয়ামালো-নেনেত্স কারা কর্তৃপক্ষ। এই কারাগারেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি।


আরও খবর



নতুন শিক্ষা পদ্ধতিতে মেধাবী জাতি তৈরি হবে: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী আশা প্রকাশ করে বলেছেন, নতুন শিক্ষা পদ্ধতিতে মেধাবী একটি জাতি তৈরি হবে। তিনি বলেছেন, নতুন শিক্ষাব্যবস্থা পরিবর্তনের কোনো পরিকল্পনা নেই। তবে নতুন পদ্ধতি আরো কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করার বিষয়ে শিক্ষা বিশেষজ্ঞদের মাধ্যমে কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে এ তথ্য জানান তিনি।

জাসদের সংসদ সদস্য এ কে এম রেজাউল করিম তানসেনের প্রশ্নের লিখিত জবাবে শিক্ষামন্ত্রী আরো বলেন, দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যে শিক্ষা পদ্ধতি চালু হচ্ছে, তাতে মেধাবী জাতি তৈরি হবে। নতুন শিক্ষাব্যবস্থা মূলত নতুন শিক্ষাক্রমের ওপর ভিত্তি করে পরিচালিত হচ্ছে, যা আমাদের আগামী প্রজন্মকে প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে টিকে থাকার সঙ্গে সঙ্গে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব, বিশ্বায়ন, জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবিলা এবং মধ্যম আয়ের দেশ থেকে উন্নত দেশে রূপান্তরের পথকে সুগম করবে।

একই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, অতীতে মুখস্থনির্ভর ও সনদসর্বস্ব শিক্ষাব্যবস্থা থেকে বের হয়ে বর্তমানে যোগ্যতাভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা যুগের চ্যালেঞ্জগুলোকে আরো কার্যকরভাবে মোকাবেলা করতে পারবে। শিক্ষার্থীরা মেধাশূন্য নয়, নতুন শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষার্থীরা আরো দক্ষ ও যোগ্য হয়ে উঠবে।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য মশিউর রহমান সজলের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, নতুন শিক্ষাক্রমে পরীক্ষা নেই, তেমন নয়। আগের মুখস্থনির্ভর ও সনদসর্বস্ব শিক্ষাব্যবস্থা থেকে বের হয়ে আসার জন্য নতুন শিক্ষাব্যবস্থা ও মূল্যায়ন পদ্ধতি চালু হয়েছে, যা প্রচলিত পরীক্ষার ধারণা থেকে ভিন্ন। ফলে আগের মতো মুখস্থনির্ভর পরীক্ষা না থাকার কারণে অনেকেই নতুন পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেই বলে মনে করছেন।

নতুন শিক্ষাক্রমে ধারাবাহিক ও সামষ্টিক মূল্যায়নের সমন্বয়ে একটি আধুনিক কার্যকরী মূল্যায়ন পদ্ধতি চালু করা হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এখানে লিখিত মূল্যায়নের পাশাপাশি সমস্যা সমাধান, একক কাজ, দলীয় কাজের মূল্যায়ন করা হচ্ছে।

উপস্থাপন ও যোগাযোগ সক্ষমতা, সহযোগিতা, নেতৃত্ব, অর্জিত জ্ঞানের প্রয়োগ ইত্যাদি পর্যবেক্ষণসহ আরো নানা উপায়ে শিখন মূল্যায়ন করা হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী জানান, সরকার গত ১৫ বছরে ৮২৮টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারীকরণ করছে। এর মধ্যে ৫৪টি স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ৩৭৪টি কলেজ, ৩৪৭টি স্কুল এবং ৪৯টি কারিগরি।

একই দলের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুলের প্রশ্নের জবাবে মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, জেএসসি এবং পিএসসি সমাপনী পরীক্ষা পুনরায় চালু করার কোনো পরিকল্পনা বর্তমান সরকারের নেই।


আরও খবর
শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪




পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির তলবি সভায় হামলা : আহত চার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মশিউর রাহাত (পিরোজপুর)

Image

পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির তলবি সভা এবং এডহক কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে বহিরাগতদের হামলায় ৪জন আইনজীবী গুরুতর আহত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সভা চলাকালীন বহিরাগত সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে অ্যাডভোকেট তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবির হিমুকে আহত করে। আহত তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবিরকে জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে নেয়া হয়। এরপরই তলবি সভা পন্ড হয়ে যায়। পরবর্তীতের আহতদের দেখতে যাওয়ার পথে আরও দুই আইনজীবী রাজ্জাক খান বাদশা ও সাইদুর রহমান টিটুকে আহত করে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

আইনজীবীরা জানান, আমাদের কার্যকরি কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় আমারা জেলা আইজীবী সমিতিতে সাধারণ আইনজীবী সদস্যদের নিয়ে এক তলবি সভা এবং এডহক কমিটি গঠনের জন্য এ সভা আয়োজন করা হয়। সেই সভা চলকালীন সময়ে কতিপয় আইনজীবীর অসলগ্ন ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণে বহিরাগতরা সভা স্থলে প্রবেশ করে। তারা অনুপ্রবেশ করে তারা অ্যাডভোটেক তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবির হিমু মারধোর করে। এরপরই তলবি সভা স্থগিত করে আহতদের হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

তারা আরও জানায়, তলবি সভা স্থগিত হলে আহত তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবিরকে দেখতে জেলা হাসপাতালের দিকে রিক্সায় করে রওয়ানা হয় অ্যাডভোকেট রাজ্জাক খান বাদশা ও সাইদুর রহমান টিটু। তারা ফায়ার সার্ভিসের সামনে পৌছালে ৮/১০ জনের সন্ত্রাসী দল লোহার রড, জিআই পাইপ, ধারালো দাও নিয়ে তাদের উপর আক্রমণ করে। এসময় তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি মারতে থাকে। এসময় অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান টিটুর দুই পা রড ও জিআই পাইপ দিয়ে থেতলে দেয় সন্ত্রাসীরা।

এসময় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অনিরুজ্জামান অনিক ওই পথ দিয়ে কয়েকজনকে নিয়ে যাওয়ার সময় তাদেরকে মারতে দেখে মটরসাইকেল থেকে নেমে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিস আহত দুইজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

গুরুতর আহত সাইদুর রহমান টিটু বলেন, আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আলাউদ্দিন খান ও অ্যাডভোকেট শহিদুল হক খান পান্নার নির্দেশে শংকর পাশা ইউনিয়নের আলাউদ্দিন হাওলাদার ও আইনজীবী সহকারি হুমায়ূন কবিরসহ ৮/১০ জন তাদের উপর হামলা করে। 

জেলা হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডাক্তার আসিফ আহমেদ বলেন, আহত সাইদুর রহমান টিটুর দুই পা গুরুতর জখম আছে। শরীরেও কিছু আঘাতের চিহ্ন আছে। অবস্থা খারপের দিকে যেতে পারে। অবস্থা খারাপ হলে আমরা উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল অথবা খুলনায় স্থানন্তর করে দেবো। রোগী যতক্ষণ আমাদের এখানে আছে আমাদের সাধ্যমত চিকিৎসা দিবো।   

এ বিষয়ে আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল আউয়াল বলেন, বহিরাগতদের দ্বারা আইনজীবীদের আহতের ঘটনায় আমরা মামলা করার প্রস্তুতি নিয়েছি। অচিরেই বিচারের দ্বারস্থ হবো। যাতে করে বহিরাগতরা আমাদের আইজীবী সদস্যদের ওপর নগ্ন হস্তক্ষেপ না করতে পারে। এ জন্য আমরা বিচার বিভাগের হস্তক্ষেপ কামনা করি। 

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আসিকুজ্জামান বলেন এ ঘটনায় আমার এখনও কোন অভিযোগ পাই নাই। অভিযোগ পেলে মামলা গ্রহণ করবো।


আরও খবর