আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

শিগগিরই মন্ত্রিপরিষদে যাচ্ছে শিক্ষা আইন : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | ১২১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত হয়েছে, শিগগিরই তা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বুধবার (৯ জুন) অনলাইনে চাইল্ড পার্লামেন্টে সেশন ২০২১ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা শিক্ষা আইন দীর্ঘদিন ধরে করার চেষ্টা করছি। আমরা সেই শিক্ষা আইনের খসড়াটি করোনাকালেই চূড়ান্ত করেছি। এখন মন্ত্রিপরিষদে যাবে। এরপর আরও কয়েকটি প্রক্রিয়া আছে সেগুলো সম্পন্ন করে পার্লামেন্টে যাবে। সংসদে পাস হয়ে গেলে আমরা আইনটি বাস্তবায়ন করতে পারবো।

চাইল্ড পার্লামেন্টে অনলাইন শিক্ষাসহ শিক্ষায় বাংলাদেশের নেওয়া পদক্ষেপের বিভিন্ন তথ্য উঠে আসে। চাইল্ড পার্লামেন্টে বিভিন্ন প্রস্তাবনা ও সমস্যা সমাধানের বিষয় তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী।

চাইল্ড পার্লামেন্টে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অন্যের জরিপ নয়, নিজেরা জরিপ করে প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরতে হবে। সমস্যা সমাধানের জন্য সুপারিশ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক চাইল্ড পার্লামেন্টে উত্থাপিত বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

আরও খবর



বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ

প্রকাশিত:সোমবার ২১ জুন 20২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২১ জুন 20২১ | ৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ ব্যাংকের ১ বিলিয়ন ডলার ২০১৬ সালে চুরির পরিকল্পনা করে উত্তর কোরিয়ার হ্যাকাররা। যদিও তারা মাত্র ৮১ মিলিয়ন ডলার সরাতে সক্ষম হয়। কিন্তু বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র এবং বিচ্ছিন্ন দেশটি কীভাবে এলিট সাইবার ক্রিমিনাল টিম তৈরি করল সেটিই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কীভাবে হয়েছিল এ ঘটনা, এ নিয়ে তদন্তে নানা বিষয় উঠে আসে। হ্যাকারদের পরিচয় এবং কোথা থেকে তারা এসেছিলো, সেই বিস্তারিত বিবিসির এক প্রতিবেদনে বিস্তারিতভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনাটি তুলে ধরা হয়েছে। ১০ পর্বের নতুন প্রতিবেদন রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির কাহিনি।

প্রতিবেদনে জানা যায়, কীভাবে বিপুল অর্থ সরানোর জন্য একদল হ্যাকার ভয়াবহ পরিকল্পনা করে। চুরির যে আলামত এখন পর্যন্ত পাওয়া গেছে তাতে উত্তর কোরিয়া এ ঘটনায় জড়িত বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

বিবিসি অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে জানা যায়, হ্যাকাররা এ ঘটনার জন্য যে মূল যন্ত্র ব্যবহার করে তা হলো বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি ত্রুটিযুক্ত প্রিন্টার। মতিঝিলে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের দশম তলায় অত্যন্ত সুরক্ষিত ঘরের অভ্যন্তরে বসানো ছিলো প্রিন্টারটি। কোটি কোটি ডলারের ট্রান্সফার ব্যাংকের বাইরে ও ভেতরে প্রবাহিত হওয়ার রেকর্ড ছাপানো হতো এটি দিয়ে।

শুরুতে কর্মকর্তাদের কাছে ত্রুটিপূর্ণ এ প্রিন্টার ছিলো কেবল একটি ঝামেলা। প্রযুক্তির সমস্যা ছাড়া তেমন একটা বড় ব্যাপার বলে মনে হয়নি কারও। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক হলো দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যারা কিনা এমন একটি দেশের মূল্যবান মুদ্রার মজুত তদারকির জন্য দায়বদ্ধ, যেখানে লাখ লাখ মানুষ দারিদ্র্যের মধ্যে বাস করে।

২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা ৪৫ মিনিট থেকে প্রিন্টারটি কাজ করছিলো না। কেউ আসলে বিষয়টি নিয়ে তেমন মাথাব্যথা দেখাননি। সে সময় ডিউটি ম্যানেজার ছিলেন জুবায়ের বিন হুদা। পরে তিনি পুলিশকে বলেন, আমরা ধরে নিয়েছিলাম যে এটি অন্য যেকোনো দিনের মতো একটি সাধারণ সমস্যা, এর আগে এমন হয়েছে।


আরও খবর



৫ দিনের রিমান্ডে আমির হামজা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | ২৬৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ওয়াজের নামে ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে উগ্রবাদ ছড়ানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার আলোচিত বক্তা মুফতি আমির হামজাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

মঙ্গলবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পুলিশ পরিদর্শক কাজী মিজানুর রহমান ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে আমির হামজার ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন।

অন্যদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করলে রাষ্ট্রপক্ষ তার বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলাম পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আদালতের সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) পুলিশের উপ-পরিদর্শক আসাদুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে দুপুর দেড়টার দিকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আমির হামজাকে হাজির করা হয়। এরপর তাকে আদালতে হাজতখানা রাখা হয়।

গতকাল সোমবার দুপুরে কুষ্টিয়ায় অভিযান চালিয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের একটি টিম আমির হামজাকে গ্রেপ্তার করে। কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটে তদন্তাধীন একটি মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। সেই মামলায় তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে তাকে কুষ্টিয়া থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।


আরও খবর



ভারতে মুসলমান ছাড়া সব ধর্মের লোকদের নাগরিকত্ব দেয়ার ঘোষণা

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৯ মে ২০২১ | ১০৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুসলমান ছাড়া সব ধর্মের লোকদের নাগরিকত্ব দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ভারত। শুক্রবার ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে পক্ষ থেকে ওই বড় ধরনের ঘোষণা দেয়া হয়। খবর জিনিউজের।

খবরে বলা হয়, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং গুজরাট, রাজস্থান, ছত্তিসগড়, হরিয়ানা, পাঞ্জাবের মতো রাজ্যে বসবাসকারী অ-মুসলিমদের (হিন্দু, শিখ, জৈন এবং বৌদ্ধ) ভারতীয় নাগরিকত্ব দেওয়া হবে এমনটাই জানিয়েছে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। 

একই সঙ্গে মুসলমান ছাড়া অন্য সবাই যাতে অবিলম্বে আবেদন করেন, সেই আমন্ত্রণবার্তাও দেওয়া হয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে।

জিনিউজের খবরে আরও বলা হয়, নাগরিকত্ব আইন ১৯৫৫ এবং ২০০৯ সালে প্রণীত নাগরিকত্ব সংশোধন আইনের (সিএএ) অধীনে এই বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। ২০১৯ সালে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন অনুযায়ী নয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ এর নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) পাসের পর থেকেই দেশজুড়ে শুরু হয়েছিল বিক্ষোভ। এমনকি দাঙ্গাও বাঁধে দিল্লিতে৷ ২০২০ সালেও সেই সিএএ বিরোধী ঝড় অব্যাহত থাকে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন সিএএ ২০১৯-এর মাধ্যমে ভারতে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে আসা হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, জৈন, শিখ ও পার্সিদের সহজেই নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রক্রিয়া করা শুরু করা হচ্ছে। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, নাগরিকত্ব সংশোধন আইন ২০১৯ বাংলাদেশ থেকে আসা হিন্দু উদ্বাস্তুদের চিহ্নিত করবে, ফলে অনাগরিক অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করা সহজ হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব অনিল মালিকের স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছিল, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন ২০১৯, ধারা ১, উপধারা ২ মেনে ১০, জানুয়ারি ২০২০ থেকে আইন কার্যকর করা হল।' পরবর্তীতে করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে বন্ধ হয়েছিল সিএএর সব প্রক্রিয়া।


নিউজ ট্যাগ: ভারত

আরও খবর
করোনার ডেল্টা প্লাসে প্রথম মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১




হেফাজতের তেঁতুল হুজুররা জঙ্গিবাদ লালনকারী: সংসদে ইনু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ৮৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বিএনপি তাদের পুরনো স্বভাব না বদলে জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।তারা এখনও জঙ্গি-সন্ত্রাসী তেঁতুল হুজুরদের রক্ষা করার জন্য বক্তব্য বিবৃতি দিয়েই চলেছে

জামায়াত-হেফাজতের তেঁতুল হুজুররা আসলে কোনও আলেম নয়। এরা মুখোশ পরে জঙ্গিবাদ লালন করে, বলেছেন জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু। তিনি বলেন, তারা রাজাকারপন্থী ও পাকের অনুচর। এদের খাটো করে দেখার কোনও সুযোগ নেই।

মঙ্গলবার (১৫ জুন) জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় করোনা, জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতিকে তিনটি ভাইরাস বলে আখ্যায়িত করেন তিনি।

ইনু বলেন, বিএনপি তাদের পুরনো স্বভাব না বদলে জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।তারা এখনও জঙ্গি-সন্ত্রাসী তেঁতুল হুজুরদের রক্ষা করার জন্য বক্তব্য বিবৃতি দিয়েই চলেছে। এই তিন ভাইরাস পুষে রেখে জীবনও বাঁচবে না। জীবিকাও বাঁচবে না। তাদের কোনও ছাড় না দিয়ে এখনই ধ্বংস করতে হবে। জঙ্গি-দুর্নীতি-করোনা এই তিন ভাইরাসকে ধ্বংস করে সুশাসন ও সমাজতন্ত্রের পথে এগিয়ে যেতে হবে বলে জানান হাসানুল হক ইনু।

বাজেট প্রসঙ্গে জাসদ সভাপতি বলেন, এবারের বাজেট অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের নীতির নয়। এটি একবছর পেটে ভাতে চলার বাজেট। বাজেটে প্রবৃদ্ধি হবে, কিন্তু পুষ্টিসম্মত অর্থনীতির সূচনা হবে না। এবার বাজেটে গতানুগতিকতার বাইরে যাওয়ার সুযোগ ছিল। সুযোগ ছিল করোনা মোকাবিলার, অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের কৌশলগত সুদূর প্রসারী পরিকল্পনার সুস্পষ্ট ছক করার। কিন্তু তা করা হয়নি।

তিনি বলেন, এখন জাতির এক নম্বর অগ্রাধিকার হওয়া উচিত টিকা সংগ্রহ, টিকা নিয়ে সমন্বয়হীনতা ও তুঘলকিকাণ্ড বন্ধ করে দেশে টিকা উৎপাদনের ব্যবস্থা করতে হবে। এক বছরের মধ্যে সবাইকে টিকা দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। করোনাভাইরাসকে পরাজিত করতে না পারলে সব অর্থহীন হয়ে যাবে।

সুশাসন প্রতিষ্ঠার দাবি করে ইনু বলেন, প্রতিবছরই বাজেটের আকার বাড়ছে। দেশের উন্নয়ন হচ্ছে। মানুষ সুফল পাচ্ছে। কিন্তু উন্নয়নের সঙ্গে দুর্নীতিও বাড়ছে। অনেকে দুর্নীতিকে উন্নয়নের অনুষঙ্গ মনে করলেও আমি তা মনে করি না। আমি বিশ্বাস করি দুর্নীতিমুক্ত উন্নয়ন সম্ভব। এতে উন্নয়নের গতি কয়েকগুণ বেড়ে যাবে। দেশ শাসনেও সুশাসন দরকার। বাজেটে বাস্তবায়নেও সুশাসন দরকার।

নিউজ ট্যাগ: হাসানুল হক ইনু

আরও খবর



করোনার ডেল্টা প্লাসে প্রথম মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১ | ৪৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের ডেল্টা প্লাস প্রজাতিতে আক্রান্ত হয়ে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। ভারতের মধ্যপ্রদেশে এই প্রজাতিতে আক্রান্ত হওয়া এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। রাজ্যটিতে এই প্রজাতিতে আক্রান্ত হওয়া রোগীদের মধ্যে তিনিই প্রথম মারা গেলেন। মৃত্যু হওয়া নারী উজ্জয়িনীর বাসিন্দা। সেখানকার স্থানীয় প্রশাসন বুধবার এই মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে। খবর ইন্ডিয়া টুডের।

এখনও পর্যন্ত মধ্যপ্রদেশে পাঁচজনের শরীরে ডেল্টা প্লাস প্রজাতির সন্ধান পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে তিনজন ভোপালের এবং দুইজন উজ্জয়িনীর। এই পাঁচজনের মধ্যে উজ্জয়িনীর ওই নারীই প্রথম প্রাণ হারালেন। বাকি চারজন সুস্থ হয়েছে বলে জানা গেছে।

তবে প্রায় এক মাস ওই নারীর মৃত্যু হয়েছিল। কিন্তু জিনোম বিশ্লেষণ করে ডেল্টা প্লাস প্রজাতির বিষয়টি বুধবার নিশ্চিত হওয়া গেছে। এরপর উজ্জয়িনীর নোডাল কোভিড অফিসার রৌনক জানান, ২৩ মে ওই নারীর মৃত্যু হয়েছিল। ওই নারীর স্বামী তার আগে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন। জানা গেছে, ওই নারীর স্বামী দুটি টিকাই নিয়েছিলেন। কিন্তু ওই নারীর একটি টিকা নেয়া বাকি ছিল।

এ বিষয়ে মধ্যপ্রদেশের মেডিকেল এডুকেশন মন্ত্রী বিশ্বাস সরঙ্গ বলেছেন, সরকার বিষয়টির উপর নজর রাখছে। ডেল্টা প্লাস প্রজাতিতে আক্রান্ত হওয়া রোগীদের সংস্পর্শে যারা এসেছেন তাদের যত দ্রুত সম্ভব খুঁজে বের করে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। তবে ডেল্টা প্লাসে এটাই ভারতের প্রথম মৃত্যু কিনা তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়নি দেশটির সরকার।



আরও খবর