আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

ঝটপট ওজন কমাতে রাতের খাবারে কিছু কৌশল

প্রকাশিত:শনিবার ০১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ মে ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সারাদিন কম খেয়ে রাতে ভারী খাবার খাওয়া অনেকেরই অভ্যাস। এই অভ্যাসের কারণে ওজনটাও বেড়ে যায় দ্রুত। তখন আবার অনেকেই রাতের খাবার একেবারেই বাদ দিয়ে ফেলেন। এই অভ্যাসটাও ক্ষতির কারণ। তাহলে কী করবেন? জেনে নিন কিছু কৌশল।

ছোট প্লেট: ছোট এবং সমতল প্লেটে রাতের খাবার খাবেন। তাহলে খুব বেশি খাবার খেয়ে ফেলার ঝুঁকি অনেকটাই কমে যাবে।

সেদ্ধ বা কম তেল: ওজন কমাতে চাইলে রাতে তেল ছাড়া সেদ্ধ খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। আর যদি সেদ্ধ খাবার একেবারেই ভালো না লাগে, তাহলে খুব অল্প পরিমাণে অলিভ ওয়েল বা নারিকেল তেল দিয়ে খাবার রান্না করুন।

বিকেলের নাস্তা: বিকেল বেলা হালকা নাস্তা করুন। এতে পেট ভরা থাকবে এবং রাতে খাওয়ার সময়ে অতিরিক্ত খেয়ে ফেলার সম্ভাবনা অনেকটাই কমে যাবে।

দেরিতে না খাওয়া: রাত ৮টার মধ্যে খাবার খেয়ে নিন। দেরীতে রাতের খাবার খাওয়ার অভ্যাসের কারণে ওজন বাড়ে।

টেবিলে বসে খাওয়া: চেষ্টা করুন পরিবারের সঙ্গে খাবার টেবিলে বসে খেতে। খাওয়ার সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার করবেন না এবং টেলিভিশন দেখবেন না। কারণ, এতে অন্যমনস্ক হয়ে বেশি ক্যালরি গ্রহণ করার সম্ভাবনা থাকে।

এক গ্লাস পানি: খেতে বসার আগে এক গ্লাস পানি খেয়ে নিন। তাহলে অতিরিক্ত খেয়ে ফেলার সম্ভাবনা কমে যাবে। 


আরও খবর



প্রশিক্ষণ, লাইসেন্স, বয়স-স্পিডবোট চালাতে লাগে না কিছুই!

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | ১০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাদারীপুর থেকে দেলোয়ার হোসাইন

দীর্ঘদিন ধরেই মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া থেকে মাদারীপুরের বাংলাবাজার নৌপথে স্পিডবোট চালান হালিপ মিয়া (২৬)। মুঠোফোনে আলাপকালে তিনি বলেন, আমরা কোনো প্রশিক্ষণ পাইনি। তবে অভিজ্ঞ চালকের সঙ্গে চার-পাঁচ দিন থাকলেই বোট চালানো শেখা যায়। তবে ফুল লোড নিয়ে বোট চালাতে হলে খুব সর্তক হতে হয় জানিয়ে এই চালক বললেন, এখানে অনেক চালক, সবাই তো আর সর্তক নন। কারও কারও বয়স কম, ইচ্ছেমতো চালায়।

মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের বাংলাবাজার নৌপথে লঞ্চ ও ফেরির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে যাত্রী বহন করে প্রায় আড়াইশ স্পিডবোট। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, চলাচলরত এসব স্পিডবোটের চালকদের প্রাতিষ্ঠানিক কোনো প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেই। এমনকি চালকদের বড় একটি অংশ অপ্রাপ্তবয়স্ক। অবৈধ স্পিডবোট, অদক্ষ চালকের কারণে এই নৌপথে ঘটছে দুর্ঘটনা। নৌযানগুলোতে লাইফ জ্যাকেটের মতো সুরক্ষাব্যবস্থা না থাকায় দুর্ঘটনায় প্রাণহানিও বেশি।

এদিকে এই নৌপথে চলাচলরত ৫০টির মতো স্পিডবোট বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃক লাইসেন্স নিয়েছে। যে কটির লাইসেন্স আছে, তারও আবার নবায়ন নেই। ফলে চলাচলরত স্পিডবোটগুলোর সব কটি অবৈধ।

এ সম্পর্কে বাংলাবাজার ঘাটের ট্রাফিক পরিদর্শক আক্তার হোসেন বলেন, উভয় ঘাটে আড়াই শ স্পিডবোট চলে, যার একটিরও লাইসেন্স বা কোনো কাগজপত্র নেই। এরপরও প্রতিবছর মন্ত্রণালয় থেকে ইজারা হয়। কিন্তু কেন হয়, তা বলতে পারবেন না তিনি। তিনি আরও বলেন, স্পিডবোট লাইসেন্সের জন্য আমরা স্পিডবোট মালিকপক্ষকেও চাপ দিয়েছি। আশা করছি, শিগগিরই লাইসেন্স হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

বাংলাবাজার কাঠালবাড়ি ঘাট সূত্র জানায়, দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের সঙ্গে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্থানে যাতায়াতের জন্য অন্যতম শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথ। এই নৌপথ দিয়ে দৈনিক গড়ে ৩০ হাজার মানুষ যাতায়াত করে। যাত্রীদের বড় একটি অংশ পারাপার হয় স্পিডবোটে। বর্তমানে এই নৌপথে প্রায় ২৫০টি স্পিডবোট চলাচল করে। এ ছাড়া ফেরি, লঞ্চ ও ট্রলারেও যাত্রী পারাপার হয়। যদিও করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে লকডাউন থাকায় এই নৌপথে ফেরি ছাড়া সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়। তবে লঞ্চগুলো সেই নিয়ম মেনে চললেও দিন-রাত ২৪ ঘণ্টাই অবাধে চলাচল করে স্পিডবোট।

স্পিডবোট চালক শাহিন মিয়া বলেন, আমি ৬ বছর ধরে স্পিডবোট চালাই। উভয় ঘাটে নতুন কিছু ২০০ সিসির বোট নামানো হয়েছে। এগুলোর চালকের বয়স বেশির ভাগই ১৮ এর নিচে। ১৪ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে অন্তত ৩০ জন আছে, যারা খুব তাড়াহুড়া করে বোট চালায়। এদের কারণে আজ সব চালকের সমস্যা।

ইমরান মিয়া নামের এক তরণ চালক বলেন, কাউন্টার থেকে আমাদের যতজন নিতে বলে, আমরা ততজনই নিই। এখানে আমাদের লাভ কম। কাউন্টারে যারা থেকে নেতৃত্ব দেয়, তারাই সব ম্যানেজ করে চালায়।

স্পিডবোটের মালিকেরা বলছেন, আরও এক বছর আগেই স্পিডবোটের লাইসেন্সের জন্য বিআইডব্লিউটিএর বন্দর বিভাগের কাছে আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু কর্তৃপক্ষ মালিকদের লাইসেন্স দিচ্ছে না। নানা অজুহাতে লাইসেন্স বাতিলও করে দিচ্ছে। স্পিডবোটের চালকদের প্রশিক্ষণের জন্য নামের তালিকা দিলেও প্রশিক্ষণের কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি।

বাংলাবাজার স্পিডবোট মালিক সমিতির সভাপতি ও পাঁচ্চর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, আমাদের পারে ১০টি স্পিডবোটের লাইসেন্স আরও দেড় বছর আগে দিছে বিআইডব্লিউটিএ। এরপর এক বছর আগে ৩৯ টি বোটের লাইসেন্সের জন্য কাগজপত্র ও তালিকা নেয়। চালকের প্রশিক্ষণের জন্য নামের তালিকা নেয়। কিন্তু লাইসেন্সও দেয় না আর চালকদের প্রশিক্ষণও দেয় না।

তিনি আরোও বলেন, শিমুলিয়া ঘাটের স্পিডবোটগুলো নিয়ন্ত্রণের বাইরে। তারা লকডাউনের মধ্যে ছাড়ে। তবে বাংলাবাজার ঘাটে তারা আসতে পারে না। তারা চরে যাত্রীদের নামিয়ে দেয়। সোমবারের দুর্ঘটনাটিও চরে যাত্রী নামাতে গিয়ে বাল্কহেডের পেছনে ধাক্কা লাগিয়ে দেয় স্পিডবোটের চালক।

বিআইডব্লিউটিএর শিমুলিয়া ঘাটের সহকারী পরিচালক মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, প্রায় ৫০টি স্পিডবোটের লাইসেন্স নেওয়া। তবে এগুলোর হয়তো নবায়ন নেই। এখানে আমাদের লাইসেন্স দিতে কোনো সমস্যা নেই। মালিকপক্ষ কখনো আমাদের কাছে আসছে, কখনো আসেনি। সবার মধ্যে একটি সমন্বয়হীনতা ছিল। এরপরও আমরা অতিদ্রুত স্পিডবোটগুলো লাইসেন্সসহ চলাচলে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসব।

বাংলাবাজার ঘাটের দায়িত্বরত চরজানাজাত নৌ পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক আবদুল রাজ্জাক বলেন, লকডাউন কার্যত থাকার পরও কিছু বোট চুরিচামারি করে চলে। এগুলোয় লাইফ জ্যাকেটও ব্যবহার করা হয় না। সোমবারের দুর্ঘটনায় কোনো যাত্রীর সঙ্গে লাইফ জ্যাকেট ছিল না। দুর্ঘটনায় যাঁরা মারা গেছেন, তাঁদের বেশির ভাগই মুমূর্ষু হয়ে পানিতে ডুবে মারা গেছেন। লাইফ জ্যাকেট থাকলে অনেকেই বেঁচে যেত।


আরও খবর



গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ২৭৬৭ জনের মৃত্যু দেখল ভারত

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ এপ্রিল ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভারতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ২৭৬৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ১ লাখ ৯২ হাজার ৩১১ জনে।

এদিন আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৪৯ হাজার মানুষ। ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় রোববার (২৫ এপ্রিল) এসব তথ্য জানায়। ভারতে গত কয়েকদিন ধরে দৈনিক ২ হাজারের বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে করোনায়।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্য অনুযায়ী, ২০ এপ্রিল ভারতে ২ হাজার ২০ জনের মৃত্যু হয়। এরপর ২১ এপ্রিল ২ হাজার ১০২, ২২ এপ্রিল ২ হাজার ২৫৬, ২৩ এপ্রিল ২ হাজার ৬২১ এবং ২৪ এপ্রিল ২ হাজার ৭৬৭ জনের মৃত্যু হয়।

এদিকে দেশটিতে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় অক্সিজেন সংকট দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন রাজ্যে করোনার সংক্রমণ রোধে জারি করা হয়েছে বিধিনিষেধ।


আরও খবর



ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ১৭ কিলোমিটার তীব্র যানজট

প্রকাশিত:বুধবার ১২ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ মে ২০২১ | ৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
অফিস বন্ধ হয়েছে বুধবার। তাই আজ স্ত্রী ও ছয় মাসের মেয়েকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার জন্য ভোর পাঁচটায় রওনা হই। ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে বাসে উঠি। সায়েদাবাদ থেকে মোগরাপাড়া চৌরাস্তা আসতে ৪ ঘণ্টা সময় লেগেছে

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ঈদকে সামনে রেখে তীব্র যানজট শুরু হয়েছে। এদিকে মেঘনা সেতুর টোল প্লাজা থেকে কাঁচপুর ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ১৭ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজট রয়েছে। বুধবার (১২ মে) সকাল থেকে এ দৃশ্য দেখা যায় মহাসড়কে। দীর্ঘ যানজটের কারণে যাত্রী ও চালকদের দুর্ভোগ চরমে।

ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী প্রাইভেটকারের চালক কামাল বলেন, সকাল ৬টায় ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে চট্টগ্রাম দিকে রওনা দিয়েছি। পথে পথে শুধু যানজট আর যানজট। গণপরিবহন ছাড়াই মহাসড়কে এমন পরিস্থিতি।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে বুধবার (১২ মে) ভোর থেকে তীব্র যানজট শুরু হয়। মেঘনা সেতুর টোল প্লাজা থেকে কাঁচপুর ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ১৭ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজট রয়েছে। দীর্ঘ যানজটে আটকে যাত্রী ও চালকদের দুর্ভোগ চরমে।

চট্টগ্রামের বাসিন্দা হান্নান বলেন, অফিস বন্ধ হয়েছে বুধবার। তাই আজ স্ত্রী ও ছয় মাসের মেয়েকে নিয়ে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার জন্য ভোর পাঁচটায় রওনা হই। ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে বাসে উঠি। সায়েদাবাদ থেকে মোগরাপাড়া চৌরাস্তা আসতে ৪ ঘণ্টা সময় লেগেছে।

রায়পুরের বাসিন্দা রাসেল রহমান বলেন, ঢাকা থেকে রায়পুরে যাওয়ার জন্য ভোর পৌনে ৫টায় ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে রায়পুরের দিকে রওনা দিয়েছি। পথে পথে শুধু যানজট আর যানজট। গণপরিবহন ছাড়াই মহাসড়কে এমন পরিস্থিতি। গণপরিবহন চলাচল করলে অবস্থা কী হতো?

কাচঁপুর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান জানান, মেঘনা সেতুর টোলপ্লাজায় টোল আদায়ে কিছুটা ধীরগতি রয়েছে। আর ঈদে ঘরমুখী মানুষের অতিরিক্ত গাড়ির চাপের কারণে যানজটের তৈরি হয়েছে।


আরও খবর



খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে : ফখরুল

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ মে ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৯ মে ২০২১ | ৬৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে বলে জানিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রবিবার (৯ মে) দুপুর সাড়ে ১২টায় ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে যাচ্ছে। তাকে এখনও সিসিইউতে রেখেই চিকিৎসা দিতে হচ্ছে। তার চিকিৎসায় গঠিত মেডিক্যাল বোর্ড অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে তার চিকিৎসা করছেন।

তিনি বলেন, শনিবার (৮ মে) বিকেল সাড়ে ৪টায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই বৈঠকে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় দোয়া করা হয়েছে। আমরাসহ দেশবাসী তার স্বাস্থ্যের অবস্থা নিয়ে উদ্বিগ্ন। আমরা দোয়া করি তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ইতোমধ্যে দেশনেত্রী খালেদা জিয়া করোনামুক্ত হয়েছেন।

গত ২৭ এপ্রিল থেকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি আছেন খালেদা জিয়া। ৩ মে তার শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ায় তাকে সিসিইউতে রাখা হয়েছে। তাকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়ার জন্য পরিবারের সদস্যরা সরকারের কাছে আবেদন করেছে। সরকারি অনুমতি পেলে তাকে যুক্তরাজ্যে পাঠানো হবে বলে দলীয় সুত্র জানিয়েছে।


আরও খবর



ইন্দোনেশিয়ায় ৬ মাত্রার ভূমিকম্প

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | ৮৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইন্দোনেশিয়ার পশ্চিমাঞ্চলের নিয়াস অঞ্চলে ভূ-কম্পন অনুভূত হয়েছে। দেশটির উত্তর সুমাত্রার পাডাংসিডেমপুয়ান শহরের ৩২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এই ভূমিকম্প অনুভূত হয়। রিখটার স্কেলে এর তীব্রতার মাত্রা ছিল ৬।

ইউরোপিয়ান-মেডিটেরিনিয়ান সিমোলজিক্যাল সেন্টারের (ইএমএসসি) বরাত দিয়ে মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছে রয়টার্স। ইএমএসসি জানিয়েছে, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল ভূপৃষ্ঠ থেকে ১০ কিলোমিটার গভীরে।


আরও খবর