আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

কৃত্রিমভাবে শামুক ও ঝিনুকের চাষাবাদ শুরু হয়েছে: মৎস্য ও প্রণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | ১০১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশীয় প্রজাতির মাছ, শামুক ও ঝিনুক সংরক্ষণের গুরুত্ব আরোপ করে মৎস্য ও প্রণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এমপি বলেন, বিলুপ্তপ্রায় দেশীয় প্রজাতির মাছ, শামুক ও ঝিনুকের প্রজনণ বৃদ্ধি করে এবং কৃত্রিমভাবে চাষাবাদের ব্যবস্থা করতে হবে। আর এ বিষয়ে মৎস্য অধিদপ্তর ব্যাপক গবেষণা করে ইতিমধ্যে বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া দেশীয় প্রজাতির মাছের রেনু ও পোনা তৈরী করছে। যা দেশের খাল-বিল, নদী, হাওর-বাওর ও জলাশয়ে ছড়িয়ে দেয়া হবে। এছাড়া কৃত্রিমভাবে শামুক ও ঝিনুকের চাষাবাদও শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার পিরোজপুর জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত অবহিতকরণ সভায় পিরোজপুর জেলা মৎস্য দপ্তর ও মৎস্য অধিদপ্তরের দেশীয় প্রজাতির মাছ এবং শামুক সংরক্ষণ ও উন্নয়ন প্রকল্প, গোপালগঞ্জ এর আয়োজনে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন।

সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মৎস্য অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় উপ-পরিচালক আনিছুর রহমান তালুকদার এবং প্রকল্প বিষয়ে স্বাগত বক্তব্য রাখেন দেশীয় প্রজাতির মাছ এবং শামুক সংরক্ষণ ও উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক এস এম আশিকুর রহমান। অবহিতকরণ সভায়, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, মৎস্য কর্মকর্তা, সরকারী কর্মকর্তা, মৎস্য খামারী ও মৎস্য চাষী, জেলেসহ বিভিন্ন পেশার নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ ট্যাগ: শ ম রেজাউল করিম

আরও খবর



প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হলেন গণমাধ্যমবান্ধব সরকার : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ১১ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১১ জুন ২০২১ | ৩৩৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পিরোজপুর প্রতিনিধি:

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হলেন গণমাধ্যমবান্ধব সরকার। তিনি চান গণমাধ্যম বিকশিত হোক, এই সরকার যত বেশি গণমাধ্যমের অনুমোদন দিয়েছেন ৫০ বছরের ইতিহাসে তা কেউ করতে পারেনি। শেখ হাসিনার সরকার আমলে তথ্য আইন হয়েছে। শেখ হাসিনা প্রেস মিটিং করলে সাংবাদিকদের যত প্রশ্ন আছে তিনি তার সব প্রশ্নের জবাব দেন।

শুক্রবার সকালে নব নির্মিত পিরোজপুর প্রেসক্লাব কমপ্লেক্স ভবনের পরিদর্শন উপলক্ষে সাংবাদিকদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, আমাদের পরিকল্পনা রয়েছে প্রতিটি উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত তথ্য অধিদপ্তরের শাখা বিস্তার করা হবে। যাতে মানুষের মধ্যে তথ্যের অবাধ প্রবাহ ছড়িয়ে দেওয়া যায়। রাষ্ট্রের মালিক জনগণ। জনগণকে অন্ধকারের মধ্যে রেখে একটা রাষ্ট্র সুষ্ঠভাবে পরিচালিত হতে পারে না।   

পিরোজপুর প্রেসক্লাব আহবায়ক গৌতম রায় চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন, পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম খান, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রেবেকা খান, জেলা তথ্য দপ্তরের উপপরিচালক আমিরুল আজম।


আরও খবর



যে ছত্রাক বছরে কেড়ে নেবে কোটি প্রাণ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | ১২৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
যদি কোনোভাবে ভয়াবহ এই ছত্রাক মানুষের মধ্যে সংক্রমণ শুরু করে, তাহলে বছরে ১ কোটিরও বেশি মানুষের প্রাণ যেতে পারে। কিন্তু কেন এত বিপজ্জনক এই ক্যানডিডা অরিস

একে মহামারি করোনার দাপট তার ওপর নতুন আতঙ্ক ব্ল্যাক, ইয়োলা ও হোয়াইট ফাঙ্গাস। সবমিলে নাস্তানাবুদ ভারতে এবার মুর্তিমান আতঙ্ক হিসেবে দেখা দিয়েছে আরেক ছত্রাক।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিক খবরে জানা গেছে, ভারতের আন্দামানে সন্ধান মিলেছে নতুন এক ছত্রাকের। যা কিনা আসলে একটি সুপারবাগ

ক্যানডিডা অরিস নামের ওই ছত্রাক এতটাই বিপজ্জনক যে গবেষকদের আশঙ্কা এ ছত্রাকটি মানুষের শরীরে সংক্রমণ ছড়ানো শুরু করলে মৃত্যু হতে পারে লাখ লাখ মানুষের। আর এটির ভয়াবহতা আরো বেশি, কারণ এই মুহূর্তে বাজারে পাওয়া যাওয়া প্রায় সব ওষুধেরই মোকাবিলা করতে পারে জীবাণুটি। ২০০৯ সালে জাপানে প্রথম এই ক্যানডিডা অরিসের অস্তিত্বের সন্ধান মেলে। পরবর্তীকালে ব্রিটেনসহ মোট ৪০টি দেশের সমুদ্রের তীরবর্তী অঞ্চলে বিশেষজ্ঞরা এই ছত্রাকের সন্ধান পান। তবে ভারতে এই ছত্রাকের সন্ধান মিলেছে অতি সম্প্রতি। আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের মোট আটটি এলাকা থেকে ৪৮টি নমুনা সংগ্রহ করে এর খোঁজ মিলেছে।

সাগরপাড়ের পাথুরে এলাকায়, লবণাক্ত জলাভূমিতে এই প্রাণঘাতী ছত্রাকের আধিক্য দেখা গেছে। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষকদল এই ছত্রাকের সন্ধান পান। তাদের দাবি, যদি কোনোভাবে ভয়াবহ এই ছত্রাক মানুষের মধ্যে সংক্রমণ শুরু করে, তাহলে বছরে ১ কোটিরও বেশি মানুষের প্রাণ যেতে পারে। কিন্তু কেন এত বিপজ্জনক এই ক্যানডিডা অরিস? গবেষকদের দাবি, এই ধরনের সুপারবাগগুলো তৈরি হয় হাসপাতালের পরিবেশে। এই ক্যানডিডা অরিস বাজারে থাকা প্রায় সব ওষুধই প্রতিরোধী। তাই এর সংক্রমণ ঠেকানো বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে প্রায় অসম্ভব!

দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানাচ্ছেন, এটি আসলে এক ধরনের ছত্রাক। যা হাসপাতালের বাইরে দেখাই যেত না। এই প্রথম এটি হাসপাতালের পরিবেশের বাইরে পাওয়া গেল। যা আগামী দিনে ভয়ংকর বিপদের ইঙ্গিত হতে পারে। যদিও অনেক গবেষকের মতে, এখনো প্রাণীদেহের উচ্চ তাপমাত্রার সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারেনি প্রাণঘাতী এই ছত্রাক। তাই এখনই আতঙ্কের কোনো কারণ নেই বলেও দাবি তাদের। সূত্র : এনডিটিভি


আরও খবর
করোনায় আরও ৭৬ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার ২২ জুন ২০২১




অর্থ পাচারকারীদের নাম জানতে চেয়েছেন অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ০৭ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৭ জুন ২০২১ | ১০১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ থেকে অর্থ পাচারে যারা জড়িত, এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য বিরোধী দলের কারও কাছে থাকলে তা দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। সম্পূরক বাজেটের উপর আলোচনায় বিরোধীদলীয় সদস্যরা অর্থ পাচারের প্রসঙ্গ আনার পর অর্থমন্ত্রী আজ সোমবার সংসদে বলেন, কারা টাকা নিয়ে যায়, লিস্ট আমার কাছে নেই। নামগুলো আমাদের দেন। কাজটি করা আমাদের জন্য সহজ হবে।

এসময় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা বলেন, অর্থ পাচার ঠেকাতে সরকার সক্রিয় রয়েছে। এখনো অনেকেই জেলে আছে। বিচার হচ্ছে। আগে যেমন ঢালাওভাবে চলে যেত, এখন তেমন নেই।

এর আগে আলোচনায় বিএনপির রুমিন ফারহানা বলেন, বিদেশে এক লাখ কোটি টাকার ওপরে চলে যাচ্ছে। ওভার আর আন্ডার ইনভয়েসিংয়ের মাধ্যমে যাচ্ছে। এর বাইরে হুন্ডির পরিমাণ ধরলে আল্লাহ মাবুদ জানেন কত টাকা বিদেশে গেছে! এছাড়া জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, এক ব্যাংকের পরিচালক আরেক ব্যাংকের টাকা নিচ্ছে। টাকা নিয়ে হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশ পাঠাচ্ছে।

সমালোচনার জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষের কষ্টে অর্জিত টাকা বিদেশে চলে যাবে, আপনাদের যেমন লাগে, আমারও লাগে। আমি অনিয়ম, বিশৃঙ্খলার বিরুদ্ধে। আমরা সবাই চাই, এগুলো বন্ধ করতে হবে।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ১৮ নভেম্বর পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে কানাডায় টাকা পাচারের সত্যতা পাওয়ার কথা জানান। ওইসময় তিনি জানিয়েছিলেন, প্রাথমিকভাবে অর্থপাচারে যারা জড়িত, যাদের তথ্য পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে সরকারি কর্মচারীই বেশি। এছাড়া রাজনীতিক এবং ব্যবসায়ী থাকার কথাও জানান তিনি। তবে তিনি কারও নাম প্রকাশ করেননি।


আরও খবর



বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ

প্রকাশিত:সোমবার ২১ জুন 20২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২১ জুন 20২১ | ৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ ব্যাংকের ১ বিলিয়ন ডলার ২০১৬ সালে চুরির পরিকল্পনা করে উত্তর কোরিয়ার হ্যাকাররা। যদিও তারা মাত্র ৮১ মিলিয়ন ডলার সরাতে সক্ষম হয়। কিন্তু বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র এবং বিচ্ছিন্ন দেশটি কীভাবে এলিট সাইবার ক্রিমিনাল টিম তৈরি করল সেটিই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কীভাবে হয়েছিল এ ঘটনা, এ নিয়ে তদন্তে নানা বিষয় উঠে আসে। হ্যাকারদের পরিচয় এবং কোথা থেকে তারা এসেছিলো, সেই বিস্তারিত বিবিসির এক প্রতিবেদনে বিস্তারিতভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনাটি তুলে ধরা হয়েছে। ১০ পর্বের নতুন প্রতিবেদন রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির কাহিনি।

প্রতিবেদনে জানা যায়, কীভাবে বিপুল অর্থ সরানোর জন্য একদল হ্যাকার ভয়াবহ পরিকল্পনা করে। চুরির যে আলামত এখন পর্যন্ত পাওয়া গেছে তাতে উত্তর কোরিয়া এ ঘটনায় জড়িত বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

বিবিসি অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে জানা যায়, হ্যাকাররা এ ঘটনার জন্য যে মূল যন্ত্র ব্যবহার করে তা হলো বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি ত্রুটিযুক্ত প্রিন্টার। মতিঝিলে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের দশম তলায় অত্যন্ত সুরক্ষিত ঘরের অভ্যন্তরে বসানো ছিলো প্রিন্টারটি। কোটি কোটি ডলারের ট্রান্সফার ব্যাংকের বাইরে ও ভেতরে প্রবাহিত হওয়ার রেকর্ড ছাপানো হতো এটি দিয়ে।

শুরুতে কর্মকর্তাদের কাছে ত্রুটিপূর্ণ এ প্রিন্টার ছিলো কেবল একটি ঝামেলা। প্রযুক্তির সমস্যা ছাড়া তেমন একটা বড় ব্যাপার বলে মনে হয়নি কারও। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক হলো দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যারা কিনা এমন একটি দেশের মূল্যবান মুদ্রার মজুত তদারকির জন্য দায়বদ্ধ, যেখানে লাখ লাখ মানুষ দারিদ্র্যের মধ্যে বাস করে।

২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা ৪৫ মিনিট থেকে প্রিন্টারটি কাজ করছিলো না। কেউ আসলে বিষয়টি নিয়ে তেমন মাথাব্যথা দেখাননি। সে সময় ডিউটি ম্যানেজার ছিলেন জুবায়ের বিন হুদা। পরে তিনি পুলিশকে বলেন, আমরা ধরে নিয়েছিলাম যে এটি অন্য যেকোনো দিনের মতো একটি সাধারণ সমস্যা, এর আগে এমন হয়েছে।


আরও খবর



স্পেনের কারাগারে ম্যাকাফি অ্যান্টিভাইরাস আবিষ্কারকের ‘আত্মহত্যা’

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১ | ২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্পেনের কারাগার থেকে অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার ম্যাকাফির আবিষ্কারক জন ম্যাকাফির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে তিনি আত্মহত্যা করেছেন। বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানায় ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

খবরে বলা হয়, স্পেনের বার্সেলোনার এক কারাগার থেকে ম্যাকাফির লাশ উদ্ধার করা হয়।  কর ফাঁকির অভিযোগে অভিযুক্ত ম্যাকাফিকে যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দেওয়ার অনুমোদন দিয়েছিলেন স্পেনের একটি আদালত। এর কয়েক ঘণ্টা পর কারাগারে ম্যাকাফির মরদেহ পাওয়া যায়।

গত বছরের অক্টোবরে স্পেন পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যারের নির্মাতা ম্যাকাফি। কাতালান বিচার বিভাগ বলেছে, কারাগারের চিকিৎসকরা তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু সফল হননি।

এক বিবৃতিতে তারা বলেছেন, সব কিছুই ইঙ্গিত করে ম্যাকাফি নিজেকে নিজেই শেষ করে (আত্মহত্যা) দিয়েছেন। তবে ম্যাকাফির আইনজীবী রয়টার্সকে বলেন, ৭৫ বছর বয়সি ম্যাকাফি কারাগারে তার কক্ষে নিজেকে ফাঁসিতে ঝুলিয়েছেন।

প্রযুক্তি বিশ্বে বিতর্কিত জন ম্যাকাফি প্রথম বাণিজ্যিকভাবে অ্যান্টিভাইরাস বাজারে ছাড়েন। ধীরে ধীরে ম্যাকাফি অ্যান্টিভাইরাস দ্রুতই জনপ্রিয়তা পায়। এর পর তা টেক জায়ান্ট ইন্টেল ৭.৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি দামে কিনে নেয়।

১৯৪৫ সালের সেপ্টেম্বরে ইংল্যান্ডে ব্রিটিশ-আমেরিকান কম্পিউটার প্রোগ্রামার ও সফটওয়্যার নির্মাতা জন ম্যাকাফির জন্ম।  ইনকরপোরেট প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয় ছিলেন ম্যাকাফি। ১৯৮০-এর দশকে নিজ নামে ম্যাকাফি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি।  ২০১১ সালে ইনটেলের কাছে ম্যাকাফি বিক্রি করে দেওয়ার পর আর কোনো ব্যবসায় জড়াননি তিনি।



আরও খবর
করোনার ডেল্টা প্লাসে প্রথম মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১