আজঃ শনিবার ০২ মার্চ 2০২4
শিরোনাম

কুয়াকাটায় বাসর রাতের পর বরের গলাকাটা লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
সাইফুল ইসলাম, কলাপাড়া(পটুয়াখালী)

Image

পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় বাসর রাতের পর সকালে ওমর আলী (২৪) নামের এক যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার সকাল নয়টার দিকে উপজেলার লতাচাপলী ইউপির তাহের পুর গ্রামে মৃতের বাড়ির পাশের একটি মরিচ ক্ষেত থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মৃত ওমর আলী ওই এলাকার শাহজাহান ফরাজীর ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত রোববার ওমর আলীর সঙ্গে একই ইউনিয়নের তাজেপাড়া গ্রামের শাহ-আলমের মেয়ে রুকাইয়ার (১৮) বিয়ে সম্পন্ন হয়। সোমবার কনের বাড়িতে বৌভাত শেষে নববধূকে বরের বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। ভোররাতে ওমর নামাজ পড়ার জন্য ঘর থেকে বের হলে পরে সকাল সাতটার দিকে স্থানীয়রা মরিচ ক্ষেতে তার লাশ দেখতে পায়।

তবে স্থানীয় অনেক ব্যক্তিরা জানান, মৃতদেহের পাশে ধারালো যে দাটি পাওয়া গেছে ওই দা দিয়ে খেজুর গাছ কাটার কাজে ব্যবহার করতেন ওমর।

একাধিক স্থানীয়রা জানান, ওমর কিংবা তার পরিবারের সাথে তেমন কোন বিরোধ ছিলনা না। ধারনা করা হচ্ছে বাসর রাতে সুন্দরী নববধূর সাথে কালো রঙের ওমরের সাথে মান অভিমান নিয়ে এ ঘটনা ঘটতে পারে। তবে এটি হত্যা না আত্নহত্যা এবিষয়ে কেউ নিশ্চত করতে পারেনি।

মহিপুর থানার ওসি আনোয়ার তালুকদার জানান, ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশীয় দা উদ্ধার করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজ ট্যাগ: কুয়াকাটা

আরও খবর



লালদিঘীরপাড়ে হকার্স পুনবার্সনের কাজ শুরু করেছে সিসিক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
সিলেট প্রতিনিধি

Image

সিলেট নগরীর লালদিঘীরপাড়ে ফুটপাত ব্যবসায়ীদের পুনবার্সনের জন্য পুনরায় কাজ শুরু হয়েছে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে। ইতোমধ্যে সিলেট সির্টি কর্পোরেশন টেন্ডারের মাধ্যমে হকার্সদের পুনবার্সনের জন্য উপযোগী করে তোলার জন্য পুরোদমে কাজ চলছে।

ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করা সিলেট নগরের অন্যতম প্রধান সমস্যা। শুধু ফুটপাত নয়, নগরের অনেক সড়কেরও বহুলাংশ দখল করে রেখেছেন ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ীরা। ফলে নগরজুড়ে লেগে থাকে যানজট। হাঁটাচলায় প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হয় পথচারীদের।

সিলেট সির্টি কর্পোরেশনের মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী ক্লিন সির্টি, গ্রীন সিটি, একটি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন নগরী গড়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন আর নগরীকে যানজট মুক্ত নগরী করতে ফুটপাত থেকে হকার্সদের সরিয়ে নিয়ে লালদিঘীর পাড়ে পুনবার্সন করে দেয়ার জন্য কাজ শুরু করা হয়েছে লালদিঘীর পাড় মাঠে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ইতোমধ্যে বিভিন্ন সরঞ্জামাদি ও সির্টি কর্পোরেশনের লেভারদের নিয়ে লালদিঘী মাঠে কাজ শুরু করা হয়েছে। 

হকার্স ঐক্য কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মোঃ রকিব আলী জানান, বর্তমান মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী একজন দয়াবান মানুষ এবং একজন ক্লিন ইমেজের মানুষ। তিনি আমাদের আশ্বস্ত করেছেন যে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন যাতে এখানে ব্যবসার পরিবেশ গড়ে ওঠে এবং যাতে ক্রেতারা এখানে আসেন। যার ফলে মেয়র টেন্ডারের মাধ্যমে মাঠে দ্রুত গতিতে কাজ করানোর জন্য দায়িত্ব প্রদান করেছেন। মেয়র আমাদের আশ্বস্ত করেছেন আমরা কেউ নিরাশ হব না আশা করি। আমাদের চাহিদা মত ব্যবস্থা করে দিবেন এবং আগামী পনের দিনের ভিতরে এখানে হকারদের নিয়ে আসা হবে কাজ হওয়ার পর। আর রমজানের আগে ফুটপাত থেকে সকল হকারদের লালদিঘীরপাড়ে নিয়ে আসা হবে।

উল্লেখ্য যে, ২০২১ সালে হকার পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেয় সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। ওই বছরের জানুয়ারিতে নগরভবন-লাগোয়া লালদিঘীর পাড়ের খোলা মাঠে হকারদের জন্য অস্থায়ী ভাবে পুনবার্সনের ব্যবস্থা করলেন। কিন্তু ব্যবসায়ীরা বেশি দিন সেখানে থাকে নি। তার কারণ ছিল তাদের লাইটিং সমস্যা,  রাস্তার সমস্যা ছিল প্রধান করাণ।

প্রাথমিক অবস্থায় ২০২১ সালে নগরের বিভিন্ন এলাকা থেকে ১ হাজার ৭০ জন হকারকে পুনর্বাসন করা হয়। তবে দুই বছর ঘুরতে না ঘুরতেই ভেস্তে যায় হকার পুনর্বাসনের এ উদ্যোগ। সিসিক নির্মিত অস্থায়ী মার্কেটে হাতে গোনা কয়েকটি দোকান ছাড়া আর বসেন না কেউ। উল্টো নগরের ফুটপাত ছাপিয়ে সড়কেরও বহুলাংশও দখল করে নেন তারা। ফলে দিনভর নগরে লেগে থাকে যানজট।

লালদিঘীর মাঠে এবার দুই হাজার হকারের পুনবার্সনের ব্যবস্থা করা হবে। এই দুই হাজার হকারের মধ্যে রয়েছে কাপড়, সবজি, মাছ, মাংস সহ বিভিন্ন সামগ্রীর দোকান। বর্তমানে যদি সুন্দর পরিবেশ এবং ক্রেতা আশার উপযোগী করে দেয়া হয় তাহলে হকাররা এখানে ব্যবসা করবেন।

নিউজ ট্যাগ: সিলেট লালদিঘী

আরও খবর



শেখ হাসিনাকে চিঠি পাঠিয়ে যা বললেন বাই‌ডেন

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে চিঠি পাঠিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক লক্ষ্য অর্জনে একসঙ্গে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করে চিঠি দিয়েছেন তিনি। চিঠিতে একটি অবাধ ও উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের জন্য অভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিতে বাংলাদেশের অংশীদার হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন জো বাইডেন। বাইডেনের লেখা চিঠিটি ঢাকার মা‌র্কিন দূতাবাস সম্প্রতি পররাষ্ট্র মন্ত্রণাল‌য়ে হস্তান্তর ক‌রে‌ছে।

বাইডেন তার চিঠিতে লিখেছেন, বাংলাদেশের উচ্চাভিলাসী অর্থনৈতিক লক্ষ্যগুলোতে সমর্থন করে যুক্তরাষ্ট্র। একই সঙ্গে একটি অবাধ ও উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের জন্য আমাদের অভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে অংশীদার হতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

দুই দেশ যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ অংশীদারত্বের পরবর্তী অধ্যায়ে প্রবেশ করতে যাচ্ছে। আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক নিরাপত্তা, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, জলবায়ু পরিবর্তন ও জ্বালানি, বৈশ্বিক স্বাস্থ্য, মানবিক সহায়তা বিশেষ করে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য এবং আরও অনেক বিষয়ে তাদের কাজ অব্যাহত রাখার আন্তরিক আকাঙ্ক্ষার কথা জানাতে চান তিনি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট লিখেছেন, সমস্যা সমাধানে আমাদের একসঙ্গে কাজ করার দীর্ঘ ও সফল ইতিহাস রয়েছে এবং আমাদের জনগণের সঙ্গে জনগণের শক্তিশালী বন্ধনই এই সম্পর্কের ভিত্তি।


আরও খবর
শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪




আজ রোজ ডে : কোন রঙের গোলাপের কী অর্থ

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জীবন ধারা ডেস্ক

Image

ফেব্রুয়ারির ৭ তারিখ শুরু হয়ে যায় প্রেমের সপ্তাহ। শেষ হয় গিয়ে ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে। এর আগে একেকদিন একেক দিবস। ৭ তারিখ যেমন রোজ ডে। এইদিন হলো প্রিয় মানুষটিকে গোলাপ দেওয়ার দিন। আমাদের হৃদয়ে লুকিয়ে থাকা ভালোবাসার প্রকাশে গোলাপের ভূমিকা অস্বীকার করার উপায় নেই। একেক রঙের গোলাপ একেক ধরনের অনুভূতি প্রকাশ করে। চলুন, জেনে নেওয়া যাক-

১. সাদা গোলাপ : সাদা মানেই পবিত্রতার এক রূপ। অনেক দেশে বিয়ের সময় কনের হাতে রাখা হয় সাদা গোলাপ। কারণ এই ফুলকে মনে করা হয় নতুন শুরুর প্রতীক। এটি কারও অনুপস্থিতিতে তাকে অনুভব করাও বোঝায়। তাই প্রিয় মানুষটিকে মনে পড়লে আর এই মুহূর্তে তার কাছে যাওয়ার সুযোগ না থাকলে তার ঠিকানায় পাঠিয়ে দিতে পারেন একগুচ্ছ সাদা গোলাপ।

২. লাল গোলাপ: লাল গোলাপ কীসের প্রতীক সেকথা আর আলাদা করে বলে দিতে হবে না নিশ্চয়ই? অসংখ্য কবির লেখা কবিতায়, গীতিকারের লেখা গানে, লেখকের লেখা গল্প কিংবা উপন্যাসে প্রেমের প্রতীক হিসেবে এসেছে লাল গোলাপের কথা। এই গোলাপ ভালোবাসা, মুগ্ধতা, বিশ্বস্ততা, সৌন্দর্যের প্রতীক। প্রেম নিবেদনের ক্ষেত্রে লাল গোলাপের আবেদন কখনো পুরনো হবে না।

৩. হলুদ গোলাপ: গোলাপ মানেই সুন্দর। হলুদ রঙের গোলাপ আসলে কীসের প্রতীক? এটি আসলে প্রেমেরও আগের ধাপ, অর্থাৎ বন্ধুত্বের প্রতীক। হৃদয়ে আনন্দ উপচে পড়লে একগুচ্ছ হলুদ গোলাপ দিতে পারেন বন্ধুর হাতে। আবার কারও আরোগ্য কামনায়ও এই গোলাপ উপহার দেওয়া যায়। কারণ এটি সুস্থতারও প্রতীক।

৪. গোলাপি গোলাপ: প্রেমের ভাষা যে কেবল লাল গোলাপই তুলে ধরে, তা কিন্তু নয়। গোলাপী রঙের গোলাপও এক্ষেত্রে কম যায় না। আপনার মনের ভাষা মুখে না বলতে পারলে প্রিয় মানুষটির হাতে তুলে দিন একগুচ্ছ গোলাপি রঙের গোলাপ। এটি কৃতজ্ঞতা, স্বীকৃতি, ভালোবাসার প্রতীক। আবার প্রিয় বন্ধুর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশের গোলাপি রঙের গোলাপ দিতে পারেন।

৫. কমলা গোলাপ : কমলা গোলাপ ব্যবহার করা হয় হৃদয়ের আবেগ, উৎসাহ, উদ্দীপনা বোঝাতে। নিজের সঙ্গী কিংবা মনের মানুষকে কোনো বিষয়ে সমর্থন দেওয়ার জন্য এই গোলাপ উপহার দিতে পারেন। কমলা রঙের গোলাপ উপহার দেওয়ার অর্থ হলো আপনি তার সঙ্গী হয়ে আছেন। এতে সে স্বপ্ন জয়ের পথে আরও দৃঢ় পায়ে এগিয়ে যেতে পারবে।


আরও খবর
২৯ ফেব্রুয়ারি: ইতিহাসের এই দিনে

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মায়ার্স তাণ্ডবে কুমিল্লাকে উড়িয়ে বিপিএলের প্রথম শিরোপা তামিমের বরিশালের

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

কাইল মায়ার্স তাণ্ডবে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসকে উড়িয়ে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) শিরোপা ঘরে তুলেছে ফরচুন বরিশাল। এর আগে তিনবার ফাইনালে উঠলেও শিরোপা না পাওয়ার বেদনা ছিল বরিশালের। অবশেষে সেই ক্ষতে তারা প্রলেপ দিতে সক্ষম হলো।

শুক্রবার (১ মার্চ) মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে অঙ্কনের ৩৮ ও শেষ দিকে রাসেলের ১৪ বলে ২৭ রানে ১৫৪ রান সংগ্রহ করে কুমিল্লা। জবাবে ৬ উইকেট ও ৬ বল হাতে রেখেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বরিশাল।

কুমিল্লার দেয়া টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে দারুণ সংগ্রহ পায় বরিশাল। দুই উদ্বোধনী ব্যাটার তামিম ইকবাল ও মেহেদি মিরাজ ৭৬ রানের জুটি গড়েন। তামিম ব্যক্তিগত ২৬ বলে ৩ ছক্কা ও সমান চারে ৩৯ রান সংগ্রহ করে মঈন আলির বলে বোল্ড হলে ভাঙে জুটি। তামিমের বিদায়ের ৬ রান পরই বিদায় নেন আরেক ওপেনার মেহেদি মিরাজ। তখন বরিশালের রান ৮২। এরপর তৃতীয় উইকেটে কাইল মায়ার্স ও মুশফিকুর রহিম ৫৯ রানের জুটি গড়েন।

এরপর দলীয় ১৪১ রানে মায়ার্সকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন ইনজুরি কাটিয়ে দলে ফেরা মুস্তাফিজ। তার আগে মায়ার্স ৩০ বলে ২ ছক্কা ও ৫ চারে করেন ৪৬ রান। মায়ার্সের বিদায়ের তিন রান পরেই মুশফিককে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান মুস্তাফিজ। ম্যাচে এটি ছিল ফিজের দ্বিতীয় শিকার। পঞ্চম উইকেটে মিলার ও মাহমুদউল্লাহ মিলে আর কোনো উইকেট না হারিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন।

এর আগে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বরিশালের বোলারদের তোপে পড়ে কুমিল্লা। দলীয় ৬ রানেই সুনীল নারাইনকে হারায় তারা। দ্বিতীয় উইকেটে লিটন-হৃদয় জুটি গড়ার আগেই ব্যক্তিগত ১৫ রানে ফুলারের বলে বিদায় নেন তিনি। হৃদয়ের বিদায়ের ১২ রান পর ব্যক্তিগত ১৬ রান করে ফুলারের বলে মাহমুদউল্লাহর হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন লিটন।

এরপর দ্রুতই ফিরে যান জনসন চার্লস ও মঈন আলি। এরপর ৬ষ্ঠ উইকেটে অঙ্কন ও জাকের আলী ৩৬ রানের জুটি গড়েন। তবে দলীয় ১১৫ রানে ব্যক্তিগত ৩৮ রানে আউট হয়ে যান অঙ্কন। সপ্তম উইকেটে আন্দ্রে রাসেল ১৪ বলে ২৭ রানের ছোট্ট ইনিংস খেলেন। যেখানে ছিল ৪টি ছয়ের মার। শেষ পর্যন্ত কুমিল্লার সংগ্রহ গিয়ে দাঁড়ায় ১৫৪ রানে। বরিশালের হয়ে ফুলার ২টি, কাইল মায়ার্স, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও ওবেদ ম্যাককয় প্রত্যেকে একটি করে উইকেট লাভ করেন।


আরও খবর
৪ বছরের জন্য ফুটবলে নিষিদ্ধ বিশ্বকাপজয়ী পগবা

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




আমরা হানাহানি চাই না: নওয়াজ শরিফ

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার পথে নেই। এ পর্যন্ত পাওয়া ফলাফলে সবচেয়ে এগিয়ে আছেন ইমরানপন্থি স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে নওয়াজ শরিফের দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএল-এন)। এমন পরিস্থিতিতে জোট গঠন ছাড়া সরকার গঠন অসম্ভব। তাই জোট গঠনে মরিয়া হয়ে উঠেছেন পিএমএল-এন সুপ্রিমো নওয়াজ শরিফ।

নওয়াজ শরিফ বলেছেন, পিএমএল-এন হানাহানি চায় না, কারণ পাকিস্তানের সেই সামর্থ্য নেই। তিনি পাকিস্তানের নাজুক অর্থনৈতিক অবস্থার কথা মনে করিয়ে দিয়ে বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় পাকিস্তানের অন্তত ১০ বছর স্থিতিশীলতা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, জোট সরকারের জন্য তার দল পিপিপি, এমকিউএম-পি, জেআইআই-এফের সঙ্গে যোগাযোগ করছে।

নওয়াজ শরিফ বলেছেন, তিনি তার ছোট ভাই শাহবাজকে জোট সরকার গঠনের জন্য পির আসিফ আলী জারদারি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের ফজলুর রেহমান এবং এমকিউএম-পির খালিদ মকবুল সিদ্দিকীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেছেন।

পিএমএল-এন নেতা আরো বলেছেন, পাকিস্তান বর্তমানে যে সমস্যার মধ্যে রয়েছে তা থেকে বের করে আনতে সব রাজনৈতিক দলের একসঙ্গে বসে সরকার গঠন করা দরকার।

পাকিস্তানকে এই সংকট থেকে বের করে আনতে দেশের সব প্রতিষ্ঠান, প্রত্যেকের একসঙ্গে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করা উচিত উল্লেখ করে নওয়াজ বলেন, এটা সবার পাকিস্তান, শুধু পিএমএল-এনের নয়। সবার উচিত মিলেমিশে বসে পাকিস্তানকে সমস্যা থেকে বের করে আনা।

এর আগে ইমরানপন্থি স্বতন্ত্র প্রার্থীদেরকে তার দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। নির্বাচনে জয়লাভের জন্য স্বতন্ত্র প্রার্থীদের তাদের অভিনন্দনও জানিয়েছেন নওয়াজ শরিফ।


আরও খবর