আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪
শিরোনাম

পাহাড়তলী-দোহাজারী ডুয়েলগেজ নির্মাণে ব্যয় হবে ১১ হাজার কোটি টাকা

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | পত্রিকায় প্রকাশিত
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

চট্টগ্রামের দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথের সাথে ট্রেন চলাচলের সুফল পেতে পাহাড়তলী-ষোলশহর হতে দোহাজারী পর্যন্ত ৪৪ কিলোমিটার মিটারগেজ (এমজি) রেলপথকে ডুয়েলগেজে উন্নীত করার কাজ শুরু হবে ২০২৫ সালে। তিন বছরের প্রকল্পে ২০২৮ সালে কাজ শেষ হবে। নবনির্মিত দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথের সাথে সঙ্গতি রেখে এই পথ ডুয়েলগেজ করার উদ্যোগ নিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

এ প্রকল্পে ব্যয় বহুল নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ হাজার ৭৯৭ কোটি টাকা উপরে। প্রকল্পে সরকারের অর্থায়ন আছে ৩ হাজার ৭১১ কোটি টাকা, এডিবির ঋণ রয়েছে ৭ হাজার ৮৬ কোটি টাকা। প্রকল্পের জন্য বেশিরভাগ জায়গা রেলওয়ে রয়েছে। তবে ৫৬ একর জায়গা রিকুজেশন করা হবে, এতে ৫০০ কোটি টাকা ব্যয় হবে।

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, পর্যটন নগরী কক্সবাজারের সাথে নিরাপদ ও দ্রুতগতিসম্পন্ন নিরবচ্ছিন্ন রেল যোগাযোগ স্থাপনকল্পে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থেকে দোহাজারী পর্যন্ত বিদ্যমান মিটারগেজ রেলপথটি ব্রডগেজ রেললাইনে উন্নীতকরণের মাধ্যমে ট্রেনের গতিসীমা বৃদ্ধি এবং সেকশনাল ক্যাপাসিটি দৈনিক ২৬ জোড়া ট্রেনে উন্নীত করা হবে।

এ প্রকল্পের আওতায় চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থেকে ঝাউতলা রেলস্টেশন পর্যন্ত ডাবল লাইন ডুয়েলগেজ বাইপাস ট্র্যাক নির্মাণ, চট্টগ্রামের ষোলশহর স্টেশন থেকে কালুরঘাট ব্রিজের সংযোগ সড়ক পর্যন্ত ডুয়েলগেজ ডাবল ট্র্যাক নির্মাণ, গুমদণ্ডী থেকে দোহাজারী পর্যন্ত ডুয়েলগেজ ট্র্যাক নির্মাণ এবং ওই সেকশনের তিনটি রেলস্টেশন নতুন করে পুনঃনির্মাণ ও ১৪টি রেলস্টেশন সংস্কারকরণ করা হবে।

পর্যটন নগরী কক্সবাজারের সাথে সরাসরি রেল যোগাযোগ স্থাপনের জন্য ইতোমধ্যে দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথটির নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। ঢাকা-কক্সবাজার নিরবচ্ছিন্ন দ্রুতগতিসম্পন্ন ব্রডগেজ ট্রেন পরিচালনার জন্য চট্টগ্রাম-দোহাজারী সেকশনে বিদ্যমান মিটারগেজ ট্র্যাকটি ব্রডগেজে রূপান্তরসহ বিভিন্ন রেলস্থাপনা ও সিগন্যালিং ব্যবস্থার আধুনিকায়ন জরুরি হয়ে পড়ে। আর এটি বাস্তবায়নের ফলে ঢাকা থেকে কক্সবাজার নিরবচ্ছিন্নভাবে দ্রুতগতির ট্রেন পরিচালনা করা সম্ভব হবে এবং এ অংশের সেকশনাল ক্যাপাসিটি (দৈনিক ২৬ জোড়া ট্রেন) বৃদ্ধি পাবে। এছাড়াও পাহাড়তলী-ঝাউতলায় বাইপাস নির্মাণ করা হচ্ছে তা বাস্তবায়ন হলে ঢাকা থেকে কক্সবাজারগামী ট্রেনগুলোকে আর চট্টগ্রামে প্রবেশ করে অতিরিক্ত সময় অপচয় করতে হবে না। এতে এক ঘণ্টা রানিং টাইমও সাশ্রয় সম্ভব হবে। চট্টগ্রামের ষোলশহর থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত উচ্চগতির ট্যুরিস্ট এক্সপ্রেস ট্রেন ছাড়াও ঢাকা ও সিলেট এলাকা থেকে উচ্চগতির ট্রেন পরিচালনা করা সম্ভব হবে ওই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে।

 প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানায়, দোহাজারী হতে কক্সবাজার পর্যন্ত নবনির্মিত নির্ধারিত ১০১ কিলোমিটার রেলপথটি সিঙ্গেল ট্র্যাক ডুয়েলগেজে নির্মিত হয়েছে। অন্যদিকে দোহাজারী হতে নগরীর পাহাড়তলী রেলওয়ে স্টেশন পর্যন্ত রেলপথটি মিটারগেজে নির্মিত রেলপথটি ডুয়েলগেজে উন্নীত করতে উদ্যোগ নেয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ।

গত ২০২৩ বছরের নভেম্বরে প্রকল্পটি সভায় অনুমোদন পায়। খুব শীঘ্রই প্রকল্পের টেন্ডার হবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী গোলাম মোস্তফা। তিনি বলেন, ঢাকা থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত সরাসরি ট্রেন চলাচলে জনসাধারণ সুফল ভোগ পেতে পাহাড়তলীষোলশহর হয়ে দোহাজারী পর্যন্ত মিটারগেজ (এমজি) রেললাইনকে ডুয়েলগেজে উন্নীত করা হবে। নির্মাণ কাজে ব্যয় হবে ১০ হাজার ৭৯৭ কোটি টাকা উপরে। উক্ত প্রকল্পে সরকারি অর্থায়ন রয়েছে ৩ হাজার ৭১১ কোটি টাকার উপরে। প্রকল্পে এডিবির ঋণ আছে ৭ হাজার ৮৬ কোটি টাকা। প্রকল্পের মেয়াদ তিন বছর। ২০২৫ সালে প্রকল্পের কাজ শুরু হবে, প্রকল্পের টেন্ডার হলেও কাজ শেষ হতে ২০২৭ সাল পর্যন্ত লাগবে। পাহাড়তলীর ঝাউতলায় বাইপাস নির্মাণ করা হলে ঢাকা থেকে কক্সবাজারগামী যে ট্রেনগুলো চলাচল করছে তা আর চট্টগ্রাম স্টেশনে অতিরিক্ত সময় থাকতে হবেনা। ঢাকা থেকে কক্সবাজারগামী সবগুলো ট্রেন সরাসরি ঢাকা থেকে পাহাড়তলী হয়ে ঝাউতলা এবং ষোলশহর দিয়ে কক্সবাজার চলে যাবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে ষোলশহর থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত উচ্চগতির ট্যুরিস্ট এক্সপ্রেস ট্রেন ছাড়াও ঢাকা ও সিলেট এলাকা থেকে উচ্চগতির ট্রেন পরিচালনা করা সম্ভব হবে।

 উক্ত প্রকল্পের প্রধান কার্যক্রমগুলো হলো চট্টগ্রামের গোমদন্ডী-দোহাজারী মেইনলাইন রেলপথ ২৯ দশমিক ৩২ কিলোমিটার, পাহাড়তলীঝাউতলা বাইপাস রেলপথ ডুয়েলগেজ ডবল ট্র্যাক ৫ দশমিক ৫০ কিলোমিটার, লুপ ও অন্যান্য লাইন ১০ দশমিক ৮৮ কিলোমিটারসহ মোট ৬২ দশমিক ৮৮ কিলোমিটার ট্র্যাককে ডুয়েলগেজ রেললাইনে রূপান্তর করে  নতুন করে নির্মাণ করা।ষোলশহর থেকে কালুরঘাট ব্রিজের সংযোগ সড়ক পর্যন্ত ডুয়েলগেজ ডবল ট্র্যাক নির্মাণ ১৭ দশমিক ১৮ কিলোমিটার এবং ২৫ টি স্টেশন (পাহাড়তলী, ষোলশহর, পটিয়া, কাঞ্চননগর ও দোহাজারী) কম্পিউটার বেইজড ইন্টারলকিং (সিবিআই) সিগন্যাল ও ইন্টারলকিং পদ্ধতি চালু করা; তিনটি স্টেশন ভবন (পাহাড়তলী, ষোলশহর ও ঝাউতলা) পুনঃনির্মাণ এবং ১৪টি স্টেশন ভবনের সংস্কারকাজ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে । প্রকল্পের মধ্যে ২০টি মেজর ও ৬৮টি মাইনর ব্রিজ পুনঃনির্মাণ প্রক্রিয়া দিন রয়েছে।  প্রকল্পে ৩টি রেল ওভারপাস নির্মাণ করা হচ্ছে। ৩০টি মিটারগেজ ডিজেল ইলেকট্রিক (ডিই) লোকোমোটিভও সংগ্রহ হবে জানায় কর্তৃপক্ষ।

নিউজ ট্যাগ: চট্টগ্রাম

আরও খবর



ঢাকাসহ ১৬ জেলায় বইছে মৃদু তাপপ্রবাহ

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আবারও শুরু হয়েছে তাপপ্রবাহ। ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবের পর সারাদেশে কিছুটা স্বস্তি বিরাজ করলেও গত কয়েকদিন থেকে বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকায় ভ্যাপসা গরম অনুভূত হচ্ছে। দেশের ১৬টি জেলায় মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। তবে আবহাওয়া অফিস বলছে, তাপপ্রবাহ বয়ে গেলেও সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা কিছুটা কমতে পারে। রবিবার (২ জুন) সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ঢাকা, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, মাদারীপুর, রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, রংপুর, মৌলভীবাজার, চাঁদপুর, নোয়াখালী, বাগেরহাট, যশোর, বরিশাল, পটুয়াখালী ও ভোলা জেলাসমূহের ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা কিছু কিছু জায়গা হতে প্রশমিত হতে পারে। একই সময়ে সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য হ্রাস পেতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

অন্যদিকে, রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায়, ঢাকা, রাজশাহী ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে, সেই সঙ্গে রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

পূর্বাভাস বলছে, এবার একটু আগেই মৌসুমি বায়ু সারাদেশে বিস্তার লাভ করেছে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু ঢাকা, বরিশাল, চট্টগ্রাম, সিলেট, ময়মনসিংহ, রংপুর এবং রাজশাহী বিভাগ পর্যন্ত অগ্রসর হয়েছে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু আরো অগ্রসর হওয়ার জন্য পরিস্থিতি অনুকূলে রয়েছে।

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, মৌসুমি বায়ু সারাদেশে বিস্তার হলে বৃষ্টির সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তবে মৌসুমি বায়ু সক্রিয় হবে আরও এক সপ্তাহ পর। তখন সারাদেশে বৃষ্টিপাত বাড়বে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাস জানিয়ে আবহাওয়াবিদ তরিফুল নেওয়াজ কবির জানান, সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা (১-২) ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় হালকা থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি আরও জানান, শনিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে ৩৭.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়াও রংপুর বিভাগ ও সিলেট জেলা ছাড়া কোথাও বৃষ্টি হয়নি। এই দুই জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হয়েছে।


আরও খবর



সাপে কামড়ের পর ওঝার ঝাড়ফুঁক, অতঃপর মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
শাওন মিয়া (জাজিরা) শরীয়তপুর

Image

শরীয়তপুরের জাজিরায় বিষধর সাপের কামড়ে রহিমা বেগম (৬২) নামের এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (৪ জুন) দুপুরে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পালেরচর ইউনিয়নের ইয়াসিন আকন কান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মারা যাওয়া বৃদ্ধা রহিমা বেগম একই এলাকার নুর মোহাম্মদ তালুকদারের স্ত্রী।

স্থানীয় ও নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবার দুপুরে পরিবারের সদস্যদের জন্য খাবার রান্না করছিলেন রহিমা বেগম। এসময় তার বাম পায়ে একটি বিষধর সাপ কামড় দেয়। তিনি চিৎকার দিলে পরিবারের লোকজন ও স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে আজিমউদ্দিন মোড়ল নামের এক স্থানীয় ওঝার কাছে নিয়ে যান। সেখানে তার অবস্থা খারাপ হলে, জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের ছেলে রহমান তালুকদার বলেন, সাপে কামড় দিলে মাকে স্থানীয় ওঝা আজিমউদ্দিন মোড়লের কাছে নিয়ে যাই। তিনি ঝাড়ফুঁক দেওয়ার এক পর্যায়ে মায়ের শারীরিক অবস্থা আরও খারাপ হয়। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মাকে মৃত ঘোষণা করেন। সাপে কামড়ের সঙ্গে সঙ্গে যদি মাকে ওঝার কাছে না নিয়ে হাসপাতালে যেতাম, তাহলে হয়তো আমার মাকে বাঁচাতে পারতাম।

এ ব্যাপারে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ কবির আলম বলেন, সাপে কামড়ানো এক বৃদ্ধাকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়। আমরা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে তাকে মৃত ঘোষণা করি। তার বাম পায়ে সাপে কামড়ের ক্ষতস্থান দেখে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে রাসেলস ভাইপার সাপের কামড়ের কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে।

জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ হাফিজুর রহমান বলেন, সাপের কামড়ে বৃদ্ধার মৃত্যুর বিষয়ে অপচিকিৎসা সংক্রান্ত কেউ থানায় অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



শিশু শিক্ষার্থীকে বেধড়ক পেটালেন অধ্যক্ষ

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাজশাহী প্রতিনিধি

Image

শিশু শিক্ষার্থীকে বেদম পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে রাজশাহীর শহীদ মামুন মাহমুদ পুলিশ লাইনস স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম মওলার বিরুদ্ধে।

পুলিশ লাইনস স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির ওই শিশু শিক্ষার্থীর নাম সারোয়ার হাসান সিফাত (১২)। সে নগরীর কাশিয়াডাঙা কোর্ট কলেজ এলাকার সাইদ হাসানের ছেলে।

আহত শিশু শিক্ষার্থী সিফাতের বাবা জানান, গত শনিবার স্কুল চলাকালীন সিফাতকে বেদম পেটান অধ্যক্ষ গোলাম মওলা। স্কুল থেকে বাসায় ফিরে বাসায় কাউকে বিষয়টি না জানিয়ে শুয়ে পড়ে সিফাত। বিকেলে প্রচন্ড জ্বরে কাঁপতে থাকলে তার বাবা-মা হাতে পায়ে বেতের বাড়ীর দাগ দেখতে পান। এরপর পোশাক খুলে সারা শরীরে মারের দাগ দেখতে পান তারা। এ অবস্থায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে ওষুধ-পথ্য লিখে ছেড়ে দেন চিকিৎসক। এরপর তার বাবা ও দাদা আরএমপি'র কাশিয়াডাঙা থানায় গেলে তারা ঘটনাস্থল রাজপাড়া থানায় অভিযোগ দেয়ার পরমর্শ দেন। রাজপাড়া থানায় গেলে তারাও রাত দুটো পর্যন্ত বসিয়ে রেখে অভিযোগ গ্রহণ করেননি। পরেরদিন জেলা প্রশাসক কার্যলয়ে গেলে তারা বলেন, যেতেতু এটি পুলিশ পরিচালিত প্রতিষ্ঠান আপনারা পুলিশ কমিশনার বরাবর অভিযোগ করুন। এরপর আমরা পুলিশ কমিশনারকে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

কথা বলার একপর্যায়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন সিফাতের বাবা, তিনি বলেন, মার খেতে খেতে একপর্যায়ে সিফাত স্যারের দুই পা জড়িয়ে ধরে, আমাকে আর মারবেন না স্যার, আমাকে মাফ করে দেন। আবারও পেটাতে থাকলে সিফাত সিট বেঞ্চের নীচে পড়ে যায়, তখন অধ্যক্ষ বলেন, দোষ স্বীকার কর, তাহলে আর মারবো না। আমার এ কথা বিশ্বাস না হলে পুলিশ লাইনস স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির কক্ষে বসানো সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করলেই বোঝা যাবে। এদিন সকাল ১০ টা থেকে ১১ টার মধ্যে এ ঘটনা ঘটেছে।

কি অপরাধে পিঠিয়েছে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, সাদা কাগজে সহপাঠি মেয়েদের প্রথম অক্ষর লেখার কারণেই নাকি তাকে পেটানো হয়েছে। এ কথা তার সহপাঠীরা বলেছে। তবে, সিফাত বলছে মেয়েদের নামের প্রথম অক্ষর লিখিনি আমি, আমি আমার ছেলে বন্ধুদের নামের প্রথম অক্ষর প্লাস প্লাস দিয়ে লিখেছি সাদা কাগজে। 

এই সংবাদ লেখার আগ মুহুর্তে (আজ সোমবার বিকাল ৪ টা) সিফাতের বাবা ইউনিসেফ'র মাধ্যমে রাজশাহীর আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ সহযোগিতা না করায় অধ্যক্ষ বারবার সমাধান করার চাপ দিচ্ছেন আর টাকার লোভ দেখাচ্ছেন। এ কারণে আজ ইউনিসেফ এর সহযোগিতা নিয়েছি।

এদিকে, সিফাতের দাদা আব্দুল হান্নান শিশুটির শরীরে ক্ষতসহ ছবি ফেসবুকে পোষ্ট দিলে ফেসবুক জুড়ে নিন্দার ঝড় ওঠে। এতে নানা সময়ে নানা অপকর্মের তথ্য বেরিয়ে আসে গোলাম মওলার বিরুদ্ধে।

এর আগেও বেশ কয়েকবার নানা অপকর্ম নিয়ে সংবাদের শিরোনাম হন অধ্যক্ষ ড. গোলাম মওলা। এরমধ্যে সম্প্রতি জাতীয় নির্বাচন নিয়ে তার ফাঁশ হওয়া অডিও ক্লিপে তিনি বলেন 'বাদশা না জিতলে এ সরকারের পতন নিশ্চত। রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের এক কর্মকর্তাকে পুলিশ দিয়ে পিঠিয়ে হাত-পা বেঁধে নদীতে ভাসিয়ে দেয়া, হত্যার হুমকি সহ নানা অপকর্ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। অভিযোগ রয়েছে তার ডক্টরেট ডিগ্রি ভুয়া। এ কারণে ইত:পূর্বে ডক্টরেট ডিগ্রিধারী এক পুলিশ কমিশনার তাকে ডক্টরেট ডিগ্রি ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, চাকুরী জীবনের প্রথমে তিনি রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (আরডিএ) রেন্ট কালেক্টর ছিলেন। পরবর্তীতে রাজশাহীর দুর্গাপুর কলেজে কর্মরত ছিলেন। জামায়াত বিএনপি সরকারের আমলে তৎকালীন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র মিজানুর রহমান মিনু ও বিএনপি নেতা প্রয়াত সালাউদ্দিন বেবীর জোর সুপারিশে গোলাম মওলাকে রাজশাহী পুলিশ লাইনস্ স্কুল এন্ড কলেজে অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।  নিম্ন মধ্যবিত্ত ঘরের সন্তান গোলাম মওলা মানুষ গড়ার কারিগরের ট্যাগ লাগিয়ে অর্থাৎ শিক্ষক হয়েও তিনি শিক্ষার বিষয়ে মিথ্যের আশ্রয় নেন। তিনি নিজেকে পিএইচডি ডিগ্রিধারী বলে প্রচার করে নামের পূর্বে ডক্টরেট ডিগ্রির ড. ব্যবহার  করেন। অথচ যে আমেরিকা ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি থেকে তিনি ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করেছেন বলে দাবী করেন সেই বিশ্ববিদ্যালয় ইউজিসি কর্তৃক অনুমোদিত নয়। অপরদিকে নামের পূর্বে ডক্টরেট ডিগ্রি ব্যবহারের ক্ষেত্রে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি প্রয়োজন। যা তিনি তোয়াক্কা করেন না। রাজশাহী মহানগরীর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের কাছে তিনি পাঁচতলার একটি আলিশান বাড়ীর মালিক। অথচ তিনি এবং তার চাকুরীজীবি স্ত্রী'র এযাবৎকালের পাওয়া বেতন দিয়ে এমন আলিশান বাড়ীর মালিক হওয়া কোনোক্রমেই সম্ভব নয়।

এত ঘটনার পরেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ গোলাম মওলার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় সাধারণের মনে এখন একটাই প্রশ্ন তার খুঁটির জোর কোথায়?

এসব বিষয়ে কথা বলতে অধ্যক্ষ গোলাম মওলার মুঠোফোনে কল দিলে তিনি বলেন, ছাত্রের অভিভাবকের সাথে আমার একটা সুন্দর সমাধান হয়ে গেছে। আসলে আমার-ই তো ছাত্র। এসব কথা আমি মোবাইলে বলতে চাচ্ছি না আপনি অফিসে চা খেতে আসলে সব বলতে পারবো।

নগর পুলিশের মিডিয়া মুখপাত্র এডিশনাল পুলিশ কমিশনার জামিরুল ইসলাম বলেন, এরকম একটি অভিযোগ কমিশনার স্যার পেয়েছেন, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজ ট্যাগ: রাজশাহী

আরও খবর



ব্লগার নাজিমুদ্দিন হত্যা, জিয়াসহ চারজনের বিচার শুরু

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) আইন বিভাগের ছাত্র ব্লগার নাজিমুদ্দিন সামাদ হত্যা মামলায় পলাতক আসামি চাকরিচ্যুত মেজর সৈয়দ জিয়াউল হক জিয়াসহ চার আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। এর মধ্য দিয়ে মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু হয়েছে।

একই সঙ্গে এ মামলার দায় থেকে পাঁচ আসামিকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ৬ আগস্ট ধার্য করা হয়েছে। সোমবার (২৪ জুন) ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমান এ আদেশ দেন।

সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালের সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর মো. গোলাম ছারোয়ার খান জাকির এ তথ্য জানিয়েছেন।

বিচার শুরু হওয়া অপর তিন আসামি হলেন- রশিদুন নবী ভূইয়া ওরফে রায়হান, মো. শেখ আব্দুল্লাহ ও আকরাম হোসেন। অব্যাহতি পাওয়া পাঁচ আসামি হলেন-মোজাম্মেল হুসাইন ওরফে সায়মন, মো. আরাফাত রহমান, ওয়ালিউল্লাহ ওরফে ওলি ওরফে তাহের ওরফে তাহসিন, সাব্বিরুল হক চৌধুরী ওরফে আকাশ ওরফে কনিক ও মাওলানা জুনেদ আহাম্মেদ ওরফে সাব্বির ওরফে জুনায়েদ।

২০১৬ সালের ৬ এপ্রিল রাতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস শেষে পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়ার মেসে ফেরার পথে লক্ষ্মীবাজারের একরামপুর মোড়ে জঙ্গিরা কুপিয়ে এবং গুলি করে হত্যা করেন ব্লগার নাজিমুদ্দিনকে। এ ঘটনায় পরদিন সূত্রাপুর থানার এসআই মো. নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা করেন।

২০২০ সালের ২০ আগস্ট বহিষ্কৃত মেজর সৈয়দ মো. জিয়াউল হক জিয়াসহ ৯ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট।


আরও খবর



শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া, রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধী

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ভারতের নয়াদিল্লিতে আইটিসি মৌর্য হোটেলে আজ সোমবার বিকেলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন কংগ্রেসের সংসদীয় দলের চেয়ারপারসন সোনিয়া গান্ধী, কংগ্রেসের সাবেক প্রেসিডেন্ট রাহুল গান্ধী এবং দলটির সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভাদরা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

টানা তৃতীয় মেয়াদে ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে গতকাল রোববার শপথ নেন মোদি। সেই অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গত শনিবার দিল্লিতে পৌঁছান শেখ হাসিনা। শপথ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ছাড়াও শ্রীলঙ্কা, ভুটান, নেপাল, মৌরিতাস, মালদ্বীপ ও সিসিলিসের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, পরপর তৃতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সাথে একান্ত সাক্ষাতে মিলিত হন। এ সময় তিনি নরেন্দ্র মোদি এবং এনডিএ জোটকে নির্বাচনে বিজয়ের জন্য আবারও অভিনন্দন দেন এবং নরেন্দ্র মোদিকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।

রাষ্ট্রপতি ভবনে এ সাক্ষাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুই দেশের বন্ধনকে আরও দৃঢ় করতে নরেন্দ্র মোদির নতুন সরকারের সাথে কাজ করার আন্তরিক আগ্রহ ব্যক্ত করেন বলেও জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ড. হাছান বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় উন্নীত হয়েছে এবং নিকটতম প্রতিবেশী হিসেবে বাংলাদেশ ও ভারতের অনেক কাজের সুযোগ রয়েছে। মানুষে মানুষে সংযোগ বৃদ্ধিতে যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নসহ উভয় দেশের আরও উন্নতিকল্পে আমাদের একযোগে কাজ করে যেতে হবে।


আরও খবর