আজঃ রবিবার ২১ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

অনেক বড় জায়গা থেকে তদবির হচ্ছে: মুমতারিন ডরিন

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় অনেক বড় জায়গা থেকে তদবির হচ্ছে বলে দাবি করেছেন তার মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন। বুধবার (১২ জুন) সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের এ কথা জানান তিনি।

মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন বলেন, অনেক বড় জায়গা থেকে তদবির হচ্ছে। তদবিরের চাপে যাতে বিচার প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্ত না হয়। মূল পরিকল্পনাকারীদের গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনতে হবে। যারা হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, সঠিক বিচার চাই। সঠিক বিচার নিশ্চিত করতে হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়ে তিনি বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আমাকে আশ্বস্ত করেছে- আইন, বিচার সব নিজস্ব গতিতেই চলবে। অপরাধীরা পার পাবে না।

প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, যাকে আটক করা হয়েছে, সে আমাদের প্রতিপক্ষ না। সে বাবার শত্রু না। কে তাকে ধরাচ্ছে? তিনটি ফোন একদিনে হারিয়ে যাচ্ছে, টাকার লেনদেন হচ্ছে- এই বিষয়গুলো সন্দেহজনক। কে এই টাকার যোগানদাতা?


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




শৈলকুপার ‘রসগোল্লা চা’ ফেসবুকেই সুস্বাদু !

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

Image

রসগোল্লা দিয়ে চা! এ যেন স্বাদে টুইটুম্বর। ফেসবুকে যেন ভাইরাল। দেখলেই খেতে ইচ্ছে করে। গত কয়েকদিন ধরে এমন রসগোল্লা চায়ের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তা দেখে অনেকেই ছুটছেন সেই চায়ের দোকানে। কিন্তু সেখানে গিয়ে হচ্ছেন হতাশ। যেমন আশা করে যাচ্ছেন চায়ের স্বাদ নিতে গিয়েও হতাশ হচ্ছেন চা প্রেমীরা।

জানা যায়, শৈলকুপার কাতলাগাড়ী বাজারে শুভ ইশান হুজাইফা নামের চায়ের দোকানে গত কয়েকদিন যাবত বিক্রি শুরু করেছেন রসগোল্লা দিয়ে চা। দুধ আর চা দিয়ে তার মধ্যে ছেড়ে দিচ্ছেন স্থানীয় ভাবে তৈরী একটি রসগোল্লা। এতেই যেন বেড়ে যাচ্ছে স্বাদ। দামও হাকাচ্ছেন ৮০ টাকা। যেখানে চায়ের কোন অস্তিত্ব পাওয়া দুস্কর। সেই সাথে নিন্মমানের রসগোল্লা দিয়ে চা তৈরী করায় যাচ্ছেতাই স্বাদ পাচ্ছেন চা প্রেমীরা। সম্প্রতি ভিউপ্রেমী কিছু ইউটিউবার এই চায়ের সুনাম করে ভিডিও দিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এতেই সেখানে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন চা প্রেমীরা। কিন্তু গিয়ে চায়ের মান নিন্মমানের হওয়ায় হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন।

কালীগঞ্জ উপজেলা থেকে চা থেকে যাওয়া এক নারী বলেন, ফেসবুকে দেখে স্বামীর সাথে এখানে চা খেতে এলাম। ভাবলাম একটু ঘোরাও হবে চা খাওয়াও হবে। কিন্তু এখানে এসে এই চা খেতে খুব হতাশ হলাম। রসগোল্লাটা খুবই নিন্মমানের। আর চায়ের তেমন স্বাদই নেই। যেন শরবত খাচ্ছি। চায়ের দাম নিচ্ছে ৮০ টাকা।  চায়ের নামের পুরোটা প্রতারণা।

কুষ্টিয়ার কুমারখালী থেকে আসা রিপন নামের এক যুবক বলেন, ফেসবুকে দেখে বন্ধুদের সাথে চা খেতে এলাম। এসে দেখি দোকানদার তো খুব ব্যস্ত। রসগোল্লা চা দিলেন আধাঘন্টা পরে। কিন্তু চায়ের কোন স্বাদ পেলাম না। নামেই শুনেছি রসগোল্লা চা। এর চেয়ে শরবত খাওয়া ভালো। আর এই দোকানদার এই চায়ের নাম করে দুধ চা বিক্রি করছে। রসগোল্লা চা চাইলে দেরীতে দিচ্ছে। অনেকে ফিরে যাচ্ছে। যারা আসছেন তাদের দুধ চা খেতে হচ্ছে। তারপরও দুধ চা যেন দুধ আর চিনি দিয়ে জালানো। চায়ের কোন স্বাদ নেই।

স্থানীয় যুবক রাইদুল বলেন, এর আগেও এই দোকানে নানা পদের চা বিক্রি করা হতো। কিন্তু বেশিদিন ধরে বিক্রি করেন না ইনি। কিছুদিন চলার পর ক্রেতা আকর্ষণ করতে নতুন নতুন কৌশল নেন চা দোকানী খাইরুল। তাই বলব, যারা দুর-দুরান্ত থেকে চা খেতে আসবেন একটু খোঁজ খবর নিয়ে আসবেন।

এ ব্যাপারে চা দোকানী খাইরুল ইসলাম বলেন, খুব ব্যস্ততা চলছে আমাদের। আগুনের জিনিস। স্বাদ একটু এদিক সেদিক হতেই পারে।

নিউজ ট্যাগ: ঝিনাইদহ

আরও খবর



সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের কমিটি গঠন

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
সাভার প্রতিনিধি

Image

সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে (গবি) এবারই প্রথম ঘোষণা করা হলো শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের ৪৩ সদস্যবিশিষ্ট কার্যনির্বাহী কমিটি। এর আগে ২০১৮ সালের মার্চে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক নির্বাচনের মাধ্যমে ২৫ সদস্য বিশিষ্ট গণ বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের কমিটি গঠন করা হয়েছিল। যার মেয়াদ ছিল ২০২১ সাল পর্যন্ত।

রোববার (১৪ জুলাই) ওপূর্ণাঙ্গ কমিটির ঘোষণা করা হয়। এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় ধামরাই বরাত সেন্টারে সাবেক শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে ৪৩ সদস্যবিশিষ্ট কার্যনির্বাহী কমিটি নির্বাচিত করা হয়। এতে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র বর্তমান ধামরাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জুয়েল রানা সভাপতি এবং ধামরাই থানার এস.আই. আতাউল্লাহ খান বাবু সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হয়। নবগঠিত এই কমিটির তত্ত্বাবধানে থাকবে ১৬ সদস্য বিশিষ্ট একটি উপদেষ্টা পরিষদ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আবুল হোসেন বলেন, আমি সকালে জেনেছি এবং কমিটির তালিকা হাতে পেয়েছি। তার আগে অবগত ছিলাম না। যেহেতু এটা শিক্ষার্থীদের সংগঠন, সেহেতু এখানে আমাদের কোনো ভূমিকা বা মন্তব্য করার কিছু নেই।

কমিটির নবনির্বাচিত তথ্য বিষয়ক সম্পাদক গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুজীব  বিজ্ঞান বিভাগের সাবেক মেধাবী ছাত্র ও দেশ বায়োটেক মেডিকেল ইকুইপমেন্ট কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক, অনুজী বিজ্ঞানী তানভীর আহমেদ বলেন, গত এক যুগ ধরে বিভিন্ন বহুজাতিক কোম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেছি আমি। আন্তর্জাতিক মানের মেডিকেল ইকুপমেন্ট কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেছি যার মাধ্যমে দেশের অসংখ্য স্বনামধন্য হাসপাতাল এবং ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মেডিকেল ইকুপমেন্ট সরবরাহ সেবা নিশ্চিত করছি। শিক্ষাকালীন সময়ে এবং পরবর্তীতে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক জার্নালে আমার বেশ কিছু রিসার্চ পাবলিকেশন প্রকাশ করেছে যা আন্তর্জাতিকভাবে অত্যন্ত গ্রহণযোগ্য হয়েছে। আধুনিক অনুজীব বিজ্ঞানের স্বাস্থ্য খাতে সঠিক ব্যবহার এবং অনুজীব বিজ্ঞান বিষয়ক সর্বাধুনিক যন্ত্রাদি বাংলাদেশের স্বাস্থ্য সেবায় ক্রমান্বয়ে যুক্ত করে যাচ্ছি। আমার এইসকল অর্জনের পিছনে পুরটা অবদান আমার শিক্ষাপীঠ গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের। আজ সাবেক ছাত্রছাত্রীদের সমর্থনে আমার প্রিয় সেই বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছি, যা আমার জন্য গর্ভের। বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে আমার পুরোটা দিয়ে এবং নিষ্ঠার সাথে অর্পিত এই দায়িত্ব পালন করবো।

তিন বছর মেয়াদি এই কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন, সহ-সভাপতি আরিফুল হক তাপস ঠাকুর, মইনুল হোসেন ভূঁইয়া, আবুল বাশার রনি, আসিফ আল আজাদ, যুগ্ম-সম্পাদক শেখ সুমন ইসলাম আবুল, ভিপি শামিম হোসেন।

নতুন কমিটির সভাপতি জুয়েল রানা জানান, শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রয়োজনেই বিশ্ববিদ্যালয়ে এলামনাই অ্যাসোসিয়েশনের যথাযথভাবে কাজ করতে হয়। তাই এলামনাই এসোসিয়েশনের গুরুত্ব উপলব্ধি করে সাবেকদের উপস্থিতিতে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন ও শিক্ষার্থীদের সার্বিক উন্নতির বিষয়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখতে আমরা প্রতিশ্রুত।


আরও খবর



কোপার ফাইনালের দিন কলম্বিয়ায় সরকারি ছুটি ঘোষণা

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

সবশেষ ২০০১ সালে কোপা আমেরিকার ফাইনাল খেলেছিল কলম্বিয়া। মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই শেষে সেবারই শিরোপা উৎসব করেছিল দেশটি। ২৩ বছর পর ফের শ্রেষ্ঠত্বের মঞ্চে উঠেছে তারা। নিজেদের ইতিহাসে দ্বিতীয়বার কোপা শিরোপা জয়ের জন্য মুখিয়ে আছে দলটি।

কোপা আমেরিকার ফাইনাল ম্যাচে সোমবার (১৫ জুলাই) আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হবে কলম্বিয়া। মায়ামির হার্ড রক স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় সকাল ৬টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

এদিকে ফাইনালকে ঘিরে আশার সঞ্চার করছেন দেশটির ভক্ত-সমর্থকরা। তাই তো ফাইনালের দিন নাগরিক ছুটি ঘোষণা করেছেন দেশটির সরকার প্রধান গুস্তাভো পেত্রো।

সম্প্রতি জাতিসংঘের এক শান্তি মিশনে নিউইয়র্কে গিয়েছিলেন কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট। সেখানে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তিনি।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্টের ভাষ্য, কলম্বিয়ার জাতীয় দল একতার প্রতিনিধিত্ব করে, সংঘাত কিংবা মেরুকরণের নয়। কলম্বিয়ার পতাকাও একতার প্রতীক। তাই আমরা সোমবার, জয়ের দিনে নাগরিক ছুটির দিন উদযাপন করব।

পেত্রো আরও বলেন, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কার্যনির্বাহী কমিটিকে আমি উৎসাহ দিচ্ছি কর্মীদের নিয়ে একসঙ্গে কলম্বিয়ান ঐক্য উদযাপন করার জন্য। সরকারি এবং বেসরকারি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এদিন তাদের কর্মীদের আনন্দ করার সুযোগ করে দেবে। এক হয়ে থাকা যে সম্ভব, চলুন সেটা বিশ্বাস করি।


আরও খবর



হারিকেন বেরিলের আঘাতে বিধ্বস্ত পুরো এক দ্বীপ

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

অতি বিপজ্জনক সামুদ্রিক ঝড় হারিকেন বেরিলের আঘাতে পুরোপুরি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে ক্যারিবিয়ান অঞ্চলের দ্বীপ ইউনিয়ন আইল্যান্ড। সেন্ট ভিনসেন্ট এবং গ্রেনাডিনসের পাশে অবস্থিত এই দ্বীপটিতে এখন আর কোনো বাড়িই অক্ষত নেই।

দ্বীপটির বাসিন্দা ক্যাটরিনা কোই এক ভিডিও বার্তায় সংবাদমাধ্যম বিবিসিকে বলেছেন, বেরিল অতিক্রম হওয়ার পর ইউনিয়ন দ্বীপ খারাপ অবস্থায় রয়েছে। কার্যত পুরো দ্বীপের সব বাসিন্দা গৃহহীন হয়ে পড়েছেন। কোনো বাড়ি আর অক্ষত নেই। ঘরবাড়ি মাটির সঙ্গে মিশে গেছে। রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে। বিদ্যুতের খুঁটিগুলো মাটিতে পড়ে আছে। সবকিছু হারিয়ে গেছে। আমার এখন  থাকার মতো কোনো জায়গা নেই।

১৯৮৫ সাল থেকে এই দ্বীপটিতে বসবাস করছেন তিনি। ২০০৪ সালে হারিকেন ইভান নামের আরেকটি ভয়াবহ ঝড়ের মধ্যে পড়েছিলেন তিনি। কিন্তু হারিকেন বেরিলের মাত্রা আগের ঝড় থেকে অন্যরকম ছিল বলে জানিয়েছেন ঝড়ে বিধ্বস্ত এই ব্যক্তি।

তিনি বলেছেন, এখান দিয়ে যেন একটি টর্নেডো অতিক্রম করেছে। দ্বীপের ৯০ শতাংশ অংশ নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। আমি আমার স্ত্রী এবং মেয়েকে নিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলাম। সত্যি বলতে, আমি নিশ্চিত ছিলাম না এই রাতে বাঁচব।

ঝড়ের ভয়বহতা এবং এটির ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে ক্যাটরিনা কোই যে এখনো হতবিহ্বল হয়ে আছেন এটি তার কথায় স্পষ্ট।

তার চাচাত বোন আলজি, যিনি পরিবারের সঙ্গে একটি হোটেল চালান। তিনি জানিয়েছেন, হারিকেনটি আঘাত হানার সময় ঘরের দরজা ও জানালাগুলোর সামনে ফার্নিচার রাখতে বাধ্য হয়েছিলেন তিনি। যেন তীব্র ঝড়ো বাতাসে এগুলো উড়ে না যায়। চাপ অনেক শক্তিশালী ছিল যে এটি আমরা কানেও অনুভব করছিলাম। আমরা নিজ কানে শুনতে পারছিলাম এক বাড়ির ছাদ উড়ে এসে আরেক বাড়ির ছাদে পড়ছে, জানালা ভাঙছে, পানি ঢুকছে। কেউ বুঝতে পারেনি ঝড়টি এতটা খারাপ হবে। সবাই বেশ ভীত হয়ে পড়েছেন।

এই নারী জানিয়েছেন, এখন দ্বীপের সব বাসিন্দাদের লক্ষ্য হলো থাকার একটা জায়গা তৈরি করা। এজন্য অনেকে ভাঙা কাঠ দিয়ে অস্থায়ী বাসস্থান তৈরি করছেন। এছাড়া খাবার ও সুপেয় পানি যোগার করাটাও তাদের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

হারিকেন বেরিলের আঘাতে এখন পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এটি শক্তি ধরে রেখে এখন জ্যামাইকার দিকে এগিয়েছে। সেখানে পূর্ণ শক্তি নিয়ে বেরিল আঘাত হানবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।


আরও খবর
আজ নেলসন ম্যান্ডেলার জন্মদিন!

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে শিক্ষকদের বৈঠক স্থগিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সর্বজনীন পেনশনের প্রত্যয় কর্মসূচির প্রজ্ঞাপন বাতিলের দাবিতে শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একযোগে সর্বাত্মক কর্মবিরতিতে অচল হয়ে পড়েছে বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষকনেতাদের সঙ্গে বৃহস্পতিবার (৪ জুন) সকাল ১০টায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের যে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল, তা স্থগিত করা হয়েছে।

বৈঠক স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. জিন্নাত হুদা।

তিনি বলেন, আজকে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু বৈঠকটি স্থগিত করা হয়েছে। এর কারণ হিসেবে আমাদেরকে কিছু জানানো হয়নি।

তিনি আরও বলেন, পরবর্তীতে বৈঠক হলে সরকার যদি জরুরি মনে করে তারা আমাদের সঙ্গে বসবে, অন্যথায় আমাদের আন্দোলন এভাবেই চলতে থাকবে। বৈঠক হলে বিষয়টি যথা সময়ে জানিয়ে দেওয়া হবে।

সর্বজনীন পেনশন প্রত্যয় স্কিম কর্মসূচির প্রজ্ঞাপন বাতিলের দাবিতে শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একযোগে সর্বাত্মক কর্মবিরতিতে অচল হয়ে পড়েছে বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। যদিও পেনশনের পক্ষে একটি বিবৃতি দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। কিন্তু শিক্ষক নেতারা সে বিবৃতিটিকে বিভ্রান্তিকর বলে প্রত্যাখ্যান করেছে এবং চতুর্থ দিনের মতো চলছে শিক্ষকদের কর্মবিরতি।


আরও খবর