আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪
শিরোনাম

উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত তিন

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | পত্রিকায় প্রকাশিত
মোহাম্মদ ফারুক, কক্সবাজার

Image

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসীদের গুলিতে তিন রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও তিনজন।

সোমবার (১০ জুন) ভোররাতে ৪ নম্বর (এক্সটেনশন) ক্যাম্পের এফ ব্লকে এ ঘটনা ঘটে। উখিয়া থানার ওসি শামীম হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন- ওই ক্যাম্পের এফ ব্লকের জাফর আহমদের ছেলে মো. ইলিয়াছ (৩১), মৃত আব্দুর রকিমের ছেলে মো. ইছহাক (৫৪) ও ৩ নম্বর ক্যাম্পের ই ব্লকের মো. ইসমাইলের ছেলে ফিরোজ খান (১৮)।

ওসি বলেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। নিহতদের মরদেহ কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।


আরও খবর



শেরপুরে দ্বিতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ এর প্রতিবাদে মানববন্ধন

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
মো. নাজমুল হোসাইন, শেরপুর

Image

শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলাতে দ্বিতীয় শ্রেণির আদিবাসী শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের প্রতিবাদ এবং ধর্ষক ফাহিম এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

রোববার (২ জুন) বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা পরিষদের সম্মুখে আধাঘন্টা ব্যাপী এই কর্মসূচী পালন করা হয়।

বাগাছাস ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখার সভাপতি সৌহার্দ্য চিরানের সভাপতিত্বে এবং রুবেল নকরেক এর সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন, ট্রাইবাল ওয়েল ফেয়ার এসোসিয়েশনের ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখার চেয়ারম্যান মি. নবেশ খকসী, শ্রীবরদী উপজেলা শাখার চেয়ারম্যান প্রাঞ্জল এম সাংমা, বাগাছাস ছাত্র সংগঠনের নেতা আলবা মৃ, অ্যান্টনী রেমা, সুমন্ত বর্মন, স্বতির্থ চিরানসহ আরো অনেকেই।

এর আগে শহরের প্রধান সড়কে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। বক্তারা, গ্রেপ্তারকৃত ধর্ষক ফাহিম এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

উল্লেখ্য, গত ২৮ মে ঝিনাইগাতী উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের উত্তর গান্ধিগাঁও গ্রামের দ্বিতীয় শ্রেণির এক আদিবাসী শিক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হয়। একইদিন পুলিশ ধর্ষক কিশোর ফাহিমকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করে।


আরও খবর



জয়ে কোপা আমেরিকা শুরু আর্জেন্টিনার

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

কানাডার বিপক্ষে ২-০ গোলের জয় পেয়েছে সর্বশেষ কোপা আমেরিকা ও বিশ্বকাপ জয়ী আর্জেন্টিনা। দুই আলবিসেলেস্তে স্ট্রাইকার হুলিয়ান আলভারেজ ও লওতারো মার্টিনেজ গোল করেছেন। সহজ জয়ে মেসিরা শুরু করেছেন কোপা আমেরিকা।

শুক্রবার বাংলাদেশ সময় সকালে আটলান্টায় শুরু হওয়া ম্যাচের প্রথমার্ধে আর্জেন্টিাকে আটকে দেয় কানাডা। আর্জেন্টিনা গোল মিসের পসরা সাজিয়ে আটকে যায় বললেও ভুল হবে না। তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে দলকে লিড এনে দেন ম্যানচেস্টার সিটির তরুণ স্ট্রাইকার লওতারো মার্টিনেজ। তিনি ৪৯ মিনিটে জালে বল পাঠান।

আকাশি-সাদার প্রতিনিধিরা দ্বিতীয় গোল পেয়েছে ম্যাচের শেষ সময়ে। ৮৮ মিনিটে মেসির আলতো করে ঠেলে দেওয়া পাস ডান পায়ের টোকায় জালে পাঠিয়ে দেন বদলি নামা ইন্টার মিলান স্ট্রাইকার মার্টিনেজ। সহজ জয়ে মাঠ ছাড়ে কোপার শিরোপা ধরে রাখার মিশনে নামা আর্জেন্টিনা।

এই দুই গোলের তথ্যে পুরো ম্যাচ  আসবে না। বরং আর্জেন্টিনার গোল মিসের ঘটনাই বড় হয়ে উঠতে পারত। ম্যাচে লিওনেল মেসি একাই হারিয়েছেন সহজ চারটি সুযোগ। এর মধ্যে দুবার গোল রক্ষকের সঙ্গে ওয়ান অন ওয়ান ছিলেন লিও। অর্থাৎ গোলরক্ষককে ফাঁকি দিতে পারলেই গোল। কিন্তু পারেননি তিনি। অন্য একটি শট অবশ্য পোস্ট ঘেসে বেরিয়ে যায়।

শুধু মেসি কেন ডি মারিয়া সহজ গোল মিস দিয়েই ম্যাচের শুরু বলা যায়। ম্যাচের ১৫ মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সেরা সুযোগ পান বেনফিকা মিডফিল্ডার। দুর্দান্ত এক কাউন্টার অ্যাটাক থেকে বক্সে ঢুকে যান বিশ্বকাপ ও কোপা আমেরিকার ফাইনালে গোল করা ডি মারিয়া। কিন্তু সামনে থাকা কানাডার গোলরক্ষকে আটকে যান তিনি।

আবার ম্যাক অ্যালিস্টার ও বদলি নামা নিকোলাস ওটামেন্ডি হারিয়েছেন সহজ গোলের সুযোগ। সব মিলিয়ে ম্যাচে আর্জেন্টিনা গোল মুখে ১৯টি শট নিয়েছে। যার নয়টি ছিল একেবারেই গোল হওয়ার মতো। যা আটকে দিয়েছেন কানাডার গোলরক্ষক। বিপরীতে নয় শটের দুটি জালে রাখতে পারে কানাডা। তবে আর্জেন্টিনার মতো ভুল না করলে যে নয়টি সুযোগ তারা তৈরি করেছিল তাতেই ঘটে যেতে পারত অঘটন।


আরও খবর



টানা বৃষ্টিতে সিলেটে আকস্মিক বন্যা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
এস এ শফি, সিলেট

Image

গত কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে সিলেটের চারটি উপজেলায় আকস্মিক বন্যা দেখা দিয়েছে। ওইসব এলাকায় সড়ক ডুবে যাওয়ায় যান চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে খোলা হয়েছে আশ্রয়কেন্দ্র। পানিবন্দি মানুষ বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে উঠতে শুরু করেছেন।

জেলার গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কোম্পানীগঞ্জ ও কানাইঘাট উপজেলায় এ বন্যা দেখা দিয়েছে। প্লাবিত হয়েছে এই চার উপজেলার বেশিরভাগ নিম্নাঞ্চল।

গোয়াইনঘাট উপজেলার রুস্তমপুর ইউনিয়ন, লেঙ্গুড়া, ডৌবাড়ি, নন্দীরগাঁও, পূর্ব ও পশ্চিম আলীরগাও, পশ্চিম জাফলং, মধ্য জাফলংয়ে প্লাবনের পরিমাণ বেশি হয়েছে। এই উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে মোট ৫৬টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা রয়েছে। অতি ঝুঁকিপূর্ণ ও প্লাবন প্রবণ এলাকার জনগণকে দ্রুত আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে মাইকিং করা হচ্ছে।

এছাড়া সালুটিকর-গোয়াইনঘাট সড়ক তলিয়ে যাওয়ার কারণে যান চলাচল বন্ধ হয়ে উপজেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। জৈন্তাপুর উপজেলায় নিজপাট লামাপড়া, বন্দরহাটি, ময়নাহাটি, জাঙ্গালহাটি, বড়খেলা, মেঘলী, তিলকৈপাড়া, ফুলবাড়ী, নয়াবাড়ী, হর্নি, বাইরাখেল, গোয়াবাড়ী, ডিবির হাওর, ঘিলাতৈল, মুক্তাপুর, বিরাইমারা হাওর, খারুবিল, লমানীগ্রাম, কাটাখাল, বাউরভাগ ও বাওন হাওরসহ নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

এছাড়াও প্লাবিত হয়েছে কোম্পানীগঞ্জ ও কানাইঘাট উপজেলার বিভিন্ন এলাকা। গ্রামীণ সড়ক ডুবে যোগাযোগ ব্যাহত রয়েছে অনেক জায়গায়।

এ ব্যাপারে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোবারক হোসেন জানান, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কোম্পানীগঞ্জ ও কানাইঘাট উপজেলায় আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত গোয়াইনঘাটের কয়েকটি আশ্রয়কেন্দ্রে মানুষ উঠতে শুরু করেছে। আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় জেলা প্রশাসন সার্বিক প্রস্তুতি নিয়েছে। সব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে সার্বক্ষণিক তদারকি করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এদিকে, ধারাবাহিক বৃষ্টিপাতের ফলে সিলেটে সুরমা, কুশিয়ারা ও সারি-গোয়াইন নদীর তিনটি পয়েন্টে বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের দেওয়া তথ্যমতে, বুধবার দুপুর ১২টায় সুরমা নদী কানাইঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ৮৫ সেন্টিমিটার, কুশিয়ারা নদী জকিগঞ্জের অমলশীদ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৩৭ সেন্টিমিটার এবং সারি গোয়াইন নদী জৈন্তাপুরের সারিঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ৫৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

সিলেট আবহাওয়া অফিস বলেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় (মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে বুধবার সন্ধ্যা ৬টা) পর্যন্ত সিলেটে ১৪৬.০১ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহ মোহাম্মদ সজিব হোসেন বলেন, আগামী তিন দিন সিলেটে অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।


আরও খবর



বাজেট ২০২৪-২৫: রাজস্ব আদায়ে উচ্চাভিলাষী লক্ষ্য

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ৩১ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

কয়েক বছর ধরেই কমেছে অর্থের যোগান। তাই ব্যহত হচ্ছে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম। পরিচালন ব্যয় বৃদ্ধি ছাড়াও ঋণ পরিশোধসহ নানামুখী চাপে সরকার। টানাপোড়েনের এই সময়ে অভ্যন্তরীণ আয় বৃদ্ধি করা ছাড়া বিকল্প নেই। তাই বাজেটে আবারও উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনা করছে সরকার। নতুন বাজেটে মোট রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য ধরা হচ্ছে প্রায় সাড়ে ৫ লাখ কোটি টাকা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ঘাড়েই চাপছে সিংহভাগ দায়িত্ব।

এদিকে, সার্বিক অর্থনৈতিক মন্দায় কমেছে উৎপাদন। স্বাভাবিকভাবেই কমেছে অভ্যন্তরীণ আয়। তাই চলতি অর্থবছরের বাজেটেও ধরা হয় বড় রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য। তবে, দশ মাসের হিসাব বলছে, ঘাটতি ২৬ হাজার কোটি টাকা। অর্থবছরের বাকি দুই মাসেও ঘাটতির পরিমাণ বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এ অবস্থায় আগামী বাজেটে কর আদায়ে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করতে হলে দরকার ৩০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি। প্রশ্ন হচ্ছে রাজস্ব আদায় বৃদ্ধির ক্ষেত্রে করণীয় কী?

এনবিআর এর সাবেক চেয়ারম্যান ড. নাসির উদ্দিন আহমেদ বলেন, প্রশাসনকে যদি সমৃদ্ধ করা যায়, তাহলে আইন, নিয়ম-নীতি প্রয়োগের ক্ষেত্রে তা জোরদার করা যায়। কর আদায়ে সক্ষমতা বৃদ্ধি হয়। সেক্ষেত্রে কর রাজস্ব জিডিপির ২-৩ শতাংশ বাড়ানো যায়। কর ফাঁকি হচ্ছে কি না তা দেখা দরকার।

নতুন বাজেটে কর বিন্যাস করবে সরকার। বিপুল সংখ্যাক পণ্যে বসবে শুল্ক। এমপিদের গাড়ী আমদানিতে শুল্কারোপের চিন্তা আছে। একই সঙ্গে আবগারি শুল্কেও আসছে পরিবর্তন। মূলত রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করাই উদ্দেশ্য।

অর্থনীতি বিশ্লেষক ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, খালি লক্ষ্য দিলে হবে না। লক্ষ্যের সাথে কেন-কীভাবে বাড়বে, কোন কোন জায়গায় হস্তক্ষেপ করা হবে, অটোমেশনটা কীভাবে হবে। আমরা সবসময় বলি, রাজস্ব বিভাগ এবং কর প্রশাসন ও কর নীতি আলাদা করতে হবে। এটা দরকার আছে। কিন্তু এনবিআর এটি জীবনেও করবে না। সরকার থেকে তাদের চাপ দিতে হবে।

সরকারও মনে করে অভ্যন্তরীণ আয় বৃদ্ধি ছাড়া বিকল্প নেই। কারণ, ঋণ করলে বাড়ছে দায়, অন্যদিকে কাঙ্খিত মাত্রায় পাওয়া যাচ্ছে না সহায়তাও।

অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খান বলেন, ৮ শতাংশের কম কর-জিডিপি নিয়ে একটা দেশের অর্থনীতি কি এগিয়ে যেতে পারে? যতটা কর আদায় হয়, তার প্রায় সমপরিমাণ ছাড় আছে কিন্তু, মানে লাখ-কোটি টাকার উপরে। আমরা যদি ছাড় দিতে থাকি তাহলে আমাদের রাজস্ব আয়-জিডিপি বৃদ্ধি কঠিন হয়ে পড়বে।

বিশ্লেষকরা আরও বলছেন, স্বস্তির জন্য একক নির্ভরতা বাদ দিয়ে করজাল বৃদ্ধি, রাজস্ব আদায়ের নামে হয়রানি বন্ধ এবং কর ফাঁকির প্রবণতা কমানোর বিকল্প নেই।


আরও খবর



সাংবাদিকরা রাষ্ট্র ও সমাজকে সঠিকখাতে প্রবাহিত করে: হাছান মাহমুদ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, সুন্দর সমাজ বিনির্মাণে রয়েছে সাংবাদিকদের বিশেষ ভূমিকা। তারা সমাজের অগ্রসর অংশ। রাষ্ট্র ও সমাজকে সঠিকখাতে প্রবাহিত করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখে। সমাজের অনুন্মোচিত বিষয়গুলো উন্মোচিত করে। সমাজ, রাষ্ট্রসমাজপতি যেদিকে তাকান সেদিকে তাদের দৃষ্টি আবদ্ধ করেন। এমন অনেকগুলো বিষয় আছে যেগুলো রাষ্ট্র দেখে না। রাষ্ট্র পরিচালনার সাথে যারা যুক্ত, তারাও দেখে না। কিংবা সমাজ যারা চালায়, তারাও দেখে না, দেখার প্রয়োজনও মনে করে না। এমন অনেক বিষয় সাংবাদিকরা উন্মোচিত করে।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) রাতে বঙ্গবন্ধু হলে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের ৬২ বছর পূর্তি উৎসব এবং সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সংবর্ধনা ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, সাংবাদিকরা সরকারের ভুলত্রুটি তুলে ধরবেন, সেটিকে আমরা স্বাগত জানাই। কাজকে পরিশুদ্ধভাবে করার ক্ষেত্রে সেটি সহায়ক হয়। অনেক সময় দেখা যায় কিছু কিছু প্রতিবেদন এমন ভাবে হয় সেগুলো দেশের জন্য ক্ষতিকারক। ড. হাছান বলেন, আসলে বাংলাদেশে বিএনপি জামাতসহ কিছু বিরোধী রাজনৈতিক দল আছে, আর কিছু গোষ্ঠি আছে, পদ্মাসেতু দিয়ে গাড়ি চালিয়ে ওপারে গিয়ে বলে, দেশে কোনো উন্নয়ন হয়নি। ঢাকায় এলিভেটেড এক্সপ্রেস দিয়ে গাড়ি চালিয়ে গিয়ে বলে এসব শুধু বড় লোকের জন্য। এলিভেটেড এক্সপ্রেস দিয়ে কিন্তু পাবলিক বাসও চলে।

তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে গত ১৫ বছরে প্রতিটা বাজেট বাস্তবায়নের হার হচ্ছে ৯২ থেকে ৯৭ শতাংশ। আজকে সংসদে প্রায় আট লক্ষ হাজার কোটি টাকার বাজেট পেশ হয়েছে। বিএনপিসহ কিছু গোষ্ঠি আছে তারা চোখে ভালো কিছু দেখেন না। প্রতিবার বাজেট পেশ করার পর আপনারা দেখবেন বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয় এই বাজেট গণবিরোধী, গরীব মারার বাজেট, এই বাজেটে কোনো উপকার হবে না, এই বাজেট বাস্তবায়ন যোগ্য নয়।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বাজেটের আকার গত ১৫বছরে সাড়ে ১১গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। মাথাপিছু আয় সাড়ে পাঁচগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। জিডিপির আকার প্রায় ছয়গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এবং বাংলাদেশে দারিদ্রসীমার নিচে থাকা জনগোষ্ঠি ছিল ৪১ শতাংশ। সেখান থেকে ১৮.৭ শতাংশে নেমেছে। অতিদারিদ্রতা ২২শতাংশ ছিল, সেখান থেকে সাড়ে ৫শতাংশে নেমেছে।

তিনি বলেন, বাজেট যদি গরীবের উপকারে না আসত, তাহলে দারিদ্রতা ও অতিদারিদ্রতা কমত না। মানুষের আয় সাড়ে ৫গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে ডলারের অংকে, টাকার অংকে আরো বেশি। এটি সম্ভবপর হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী ও তার নেতৃত্বাধীন সরকারের বাস্তবসম্মত বাজেট প্রণয়ন এবং সেই বাজেট বাস্তবায়নের কারণে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সবকিছুতে না বলার যে অপসংস্কৃতি এটি দেশের উন্নয়ন অগ্রগতির জন্য বাধা।

চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সভাপতি সালাহ্উদ্দিন মো. রেজার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক দেবদুলাল ভৌমিক।

সভাপতির বক্তব্যে সালাহ্উদ্দিন মো. রেজা বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হচ্ছে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এবং সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সন্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান। এ উপলক্ষে সবাইকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের স্বার্থে এবং সাংবাদিকদের কল্যাণে আরো নানা উদ্যোগ গ্রহণে বর্তমান ব্যবস্থাপনা কমিটির আন্তরিক প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

স্বাগত বক্তব্যে দেবদুলাল ভৌমিক বলেন, প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর এ আয়োজন সবার মধ্যে আরো বিশাল উৎসাহউদ্দীপনা সৃষ্টি করেছে। যা চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের অগ্রযাত্রাকে আরো গতিশীল করবে। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের নেতৃত্বে এই প্রতিষ্টানের বর্তমান অবস্থান। তাদের সন্মাননা জানাতে পেরে আজকের উদ্যোগ স্বার্থক মনে করছি।

সন্মাননা প্রাপ্ত সভাপতিরা হলেন- মতিউর রহমান (সিএসপি), কাজী জালালউদ্দিন আহমদ (সিএসপি), এম. নুরুল ইসলাম, বি.এ. আজাদ ইসলামাবাদী, এম. এ. মালেক, আব্দুল্লাহ আল ছগীর, আতাউল হাকিম, এম. ওবায়দুল হক, মুহাম্মদ ইদ্রিস, আবু সুফিয়ান, আখতার উন নবী, আলহাজ্ব আলী আব্বাস, কলিম সরওয়ার।

সন্মাননা প্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকরা হলেন- এম. আই. করিম, অধ্যাপক মোহাম্মদ খালেদ, সৈয়দ শফিকউদ্দিন আহমদ, বি.এ. আজাদ ইসলামাবাদী, নূর সাঈদ চৌধুরী, ওসমান গণি মনসুর, নিজাম উদ্দিন আহমদ, আবু সুফিয়ান, হেলাল উদ্দিন চৌধুরী, ফারুক ইকবাল, কলিম সরওয়ার, এজাজ ইউসুফী, রাশেদ রউফ, মহসিন চৌধুরী, শুকলাল দাশ, ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী।

সন্মাননা প্রাপ্তদের উত্তরীয় পরিয়ে দিয়ে সন্মাননা স্মারক ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। তাদের মধ্যে অভিমত ব্যক্ত করেন- সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, কলিম সরওয়ার, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফারুক ইকবাল, এজাজ ইউসুফী, রাশেদ রউফ, শুকলাল দাশ ও চৌধুরী ফরিদ। বক্তব্য রাখেন- বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি শদিউল আলম ও দৈনিক নয়াবাংলা সম্পাদক জেড এম এনায়েতউল্লাহ।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহীদুল্লাহ শাহরিয়ারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়, সিডিএর চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইউনুছ, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ টি এম পেয়ারুল ইসলাম, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাশার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান, লায়ন আলহাজ্ব রফিক আহমদ, চট্টগ্রাম চেম্বারের প্রেসিডেন্ট ওমর হাজ্জাজ, মজহারুল হক শাহ চৌধুরী, রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান এহসানুল হায়দার চৌধুরী বাবুল, বিজিএমইএর প্রথম সহ সভাপতি নজরুল ইসলাম, হাজী সাহাব উদ্দিন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহ সভাপতি চৌধুরী ফরিদ, সহ সভাপতি মনজুর কাদের মনজু, অর্থ সম্পাদক রাশেদ মাহমুদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক নাসির উদ্দিন হায়দার, ক্রীড়া সম্পাদক এম সরওয়ারুল আলম সোহেল, গ্রন্থাগার সম্পাদক কুতুব উদ্দিন, সমাজসেবা ও আপ্যায়ন সম্পাদক আল রাহমান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক খোরশেদুল আলম শামীম, কার্যকরী সদস্য মো. আইয়ুব আল ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মঞ্জুরুল আলম মঞ্জুসহ প্রেস ক্লাবের সদস্যবর্গ।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে দিনব্যাপী প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান উদ্বোধন করা হয়। এরপর শুরু হয় আনন্দ শোভাযাত্রা। বৃহস্পতিবার রাতে কেক কেটে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা ও সন্মাননা প্রদানসহ অনুষ্ঠানমালা শুরু করা হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাংস্কৃতিক সম্পাদক নাসির উদ্দিন হায়দার।


আরও খবর