আজঃ মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

ঈদুল আযহায় কাজী শুভসহ সাত শিল্পীর কণ্ঠে নতুন গান 'কুরবানী'

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে এবার কাজী শুভসহ সাত শিল্পীর নতুন গান কুরবানী। পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে প্রকাশিত হবে নতুন এই গানটি। জাকিউল হাই দিপুর কথা ও সুরে গানটিতে সঙ্গীত আয়োজন করেছেন রাশেদুল কায়েস।

গানটিতে কাজী শুভ ছাড়া আরো কণ্ঠ দিয়েছেন কণ্ঠশিল্পী জাকিউল হাই দিপু, রাশেদুল কায়েস, দীন ইসলাম, সিদ্দিকুর রহমান, প্রতীক ও খোরশেদ জালালী। গানট কলের গান মাল্টিমিডিয়া নামক ইউটিউব চ্যানেলে অবমুক্ত হবে।

গানটি সম্পর্কে সঙ্গীতশিল্পী কাজী শুভ বলেন, পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে 'কুরবানী' শিরোনামের গানটির কথা ও সুরে ছিলেন জাকিউল হাই দিপু ভাই। গানটির কথামালা ও সুর দর্শক শ্রোতাদের অনেক ভাল লাগবে।


আরও খবর



দেশে ফিরেছেন ৪৩ হাজার ৮৩ হাজি, মৃত্যু বেড়ে ৫৮

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পবিত্র হজ পালন শেষে এখন পর্যন্ত দেশে ফিরেছেন ৪৩ হাজার ৮৩ হাজি। এ বছর হজে গিয়ে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশি মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৮ জনে।

বুধবার (৩ জুলাই) ভোরে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হজ ব্যবস্থাপনা পোর্টালের আইটি হেল্প ডেস্কের প্রতিদিনের বুলেটিন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

বুলেটিনে বলা হয়, পবিত্র হজ পালন শেষে এখন পর্যন্ত ৪৩ হাজার ৮৩ জন হাজি দেশে ফিরেছেন। সৌদি থেকে ১০৯টি ফ্লাইটে এসব হাজি বাংলাদেশে এসেছেন। এর মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ৪১টি, সৌদি এয়ারলাইনস ৪২টি এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইনস ২৬টি ফ্লাইট পরিচালনা করে।

হজ শেষে গত ২০ জুন থেকে দেশে ফেরার ফ্লাইট শুরু হয়। ওইদিন বাংলাদেশ বিমানের প্রথম ফিরতি ফ্লাইট ৪১৭ জন হাজি নিয়ে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। আগামী ২২ জুলাই পর্যন্ত হাজিদের ফিরতি ফ্লাইট অব্যাহত থাকবে।

এদিকে চলতি বছর হজ পালন করতে গিয়ে এখন পর্যন্ত ৫৮ জন বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ৪৫ জন এবং নারী ১৩ জন। তাদের মধ্যে মক্কায় ৪৬ জন, মদিনায় চারজন, মিনায় ছয়জন ও জেদ্দায় দুইজন মারা গেছেন।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ থেকে মোট ৮৫ হাজার ২২৫ জন (ব্যবস্থাপনা সদস্যসহ) হজযাত্রী সৌদি আরবে গেছেন। আগামী বছর (২০২৫) বাংলাদেশের জন্য এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জনের কোটা দিয়েছে সৌদি আরব।

এদিকে, চলতি বছর প্রখর তাপপ্রবাহ ও অসহনীয় গরমের জেরে হজ করতে গিয়ে সৌদি আরবে রেকর্ড মৃত্যু হয়েছে। এখন পর্যন্ত ৫৮ বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।‌ এর মধ্যে হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরুর আগে ১৭ জন, বাকি ৪১ জন হজের আনুষ্ঠানিকতার শুরুর পর মারা গেছেন। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে সবার পরিচয় প্রকাশ করেছে হজ পোর্টাল।

সৌদি আরবের আইন অনুযায়ী, কোনো ব্যক্তি হজ করতে গিয়ে যদি মারা যান, তাহলে তার মরদেহ সৌদি আরবে দাফন করা হয়। নিজ দেশে আনতে দেওয়া হয় না। এমনকি পরিবার-পরিজনের কোনো আপত্তি গ্রাহ্য করা হয় না। মক্কায় হজ যাত্রী মারা গেলে মসজিদুল হারামে নামাজে জানাজা হয়।


আরও খবর
রাজধানীতে তাজিয়া মিছিল শুরু

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪

আজ পবিত্র আশুরা

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪




সড়কে মে মাসের তুলনায় জুনে প্রাণহানি বেড়েছে ৩৭ শতাংশ

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

মে মাসের তুলনায় জুনে প্রাণহানি বেড়েছে ৩৭ শতাংশ। জুন মাসে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৭২৬টি। এর মধ্যে নিহত ৬৪৪ এবং আহত কমপক্ষে ১ হাজার ৮২ জন বলে জানিয়েছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রোড সেফটি ফাউন্ডেশন।

সোমবার (১৫ জুলাই) প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সংগঠনটি গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছে। সংগঠনটি ৯টি জাতীয় দৈনিক, ৭টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল, বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া এবং নিজস্ব তথ্যের ভিত্তিতে জুন মাসের সড়ক দুর্ঘটনার তথ্য ভিত্তিক এ প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে।

সংগঠনটি বলছে, মে মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৮৬ জন নিহত হয়েছিলেন। ওই মাসে প্রতিদিন গড়ে নিহত হয়েছিলেন ১৫.৬৭ জন। কিন্তু জুন মাসে প্রতিদিন গড়ে নিহত হয়েছেন ২১.৪৬ জন। সেই হিসাবে জুন মাসে প্রাণহানি বেড়েছে ৩৬.৯৪ শতাংশ।

গত জুন মাসে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ২৬৫টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত ২২৭ জন, যা মোট নিহতের ৩৫.২৪ শতাংশ। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার হার ৩৬.৫০ শতাংশ। দুর্ঘটনায় ১২৮ জন পথচারী নিহত হয়েছেন, যা মোট নিহতের ১৯.৮৭ শতাংশ। যানবাহনের চালক ও সহকারী নিহত হয়েছেন ১০১ জন অর্থাৎ ১৫.৬৮ শতাংশ।

এই সময়ে ১১টি নৌ-দুর্ঘটনায় ১৪ জন নিহত, ৩ জন আহত এবং ৫ জন নিখোঁজ রয়েছেন। ৩১টি রেল ট্র্যাক দুর্ঘটনায় ২৫ জন নিহত এবং ১৪ জন আহত হয়েছেন।

যানবাহনভিত্তিক নিহতের চিত্র: দুর্ঘটনায় যানবাহনভিত্তিক নিহতের পরিসংখ্যানে দেখা যায়- মোটরসাইকেল চালক ও আরোহী ২২৭ জন, বাসের যাত্রী ২৯ জন, ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান-ট্রাক্টর-ট্রলি আরোহী ৫১ জন, প্রাইভেটকার-মাইক্রোবাস-অ্যাম্বুলেন্স- জীপ আরোহী ৩৮ জন, থ্রি-হুইলার যাত্রী (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-টেম্পু-লেগুনা) ১২৮ জন, স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহনের যাত্রী (নসিমন-করিমন-ভটভটি-আলমসাধু-মাহিন্দ্র) ২৬ জন এবং বাইসাইকেল-প্যাডেল রিকশা আরোহী ১৭ জন নিহত হয়েছেন।

দুর্ঘটনার বিভাগওয়ারী পরিসংখ্যান দেখা যায়, ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি ১৭২টি দুর্ঘটনায় ১৫৫ জন নিহত হয়েছেন। সিলেট বিভাগে সবচেয়ে কম ৪৫টি দুর্ঘটনায় ৩৮ জন নিহত হয়েছেন। রাজধানী ঢাকায় ৩৭টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২৯ জন নিহত ও ৩৪ জন আহত হয়েছেন।

প্রতিবেদনে সড়ক দুর্ঘটনার প্রধান কারণসমূহ চিহ্নিত করে সংগঠনটি। এগুলো হল, ১. ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন ২. বেপরোয়া গতি ৩. চালকদের বেপরোয়া মানসিকতা, অদক্ষতা ও শারীরিক-মানসিক অসুস্থতা ৪. বেতন-কর্মঘন্টা নির্দিষ্ট না থাকা ৫. মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল ৬. তরুণ-যুবদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো ৭. জনসাধারণের মধ্যে ট্রাফিক আইন না জানা ও না মানার প্রবণতা ৮. দুর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা ৯. বিআরটিএর সক্ষমতার ঘাটতি ১০. গণপরিবহন খাতে চাঁদাবাজি।

প্রতিবেদনে সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সুপারিশ হিসেবে বলা হয়েছে ১. দক্ষ চালক তৈরির উদ্যোগ বৃদ্ধি করতে হবে ২. চালকদের বেতন-কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট করতে হবে ৩. বিআরটিএর সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে ৪. পরিবহন মালিক-শ্রমিক, যাত্রী ও পথচারীদের প্রতি ট্রাফিক আইনের বাধাহীন প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে ৫. মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন বন্ধ করে এগুলোর জন্য আলাদা পার্শ্ব রাস্তা তৈরি করতে হবে ৬. পর্যায়ক্রমে সব মহাসড়কে রোড ডিভাইডার নির্মাণ করতে হবে ৭. গণপরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হবে ৮. রেল ও নৌ-পথ সংস্কার করে সড়ক পথের ওপর চাপ কমাতে হবে ৯. টেকসই পরিবহন কৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে হবে ১০. সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ বাধাহীনভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।


আরও খবর
মেট্রোরেল চলাচল পুরোপুরি বন্ধ

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




আশুরা কবে জানা যাবে শনিবার

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ধর্ম ও জীবন

Image

১৪৪৬ হিজরি সনের মহররম মাসের চাঁদ দেখা এবং আশুরার তারিখ নির্ধারণে শনিবার (৬ জুলাই) সভায় বসছে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি।

শনিবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে এ সভা হবে। সভায় সভাপতিত্ব করবেন ধর্মবিষয়ক মন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান।

শুক্রবার (৫ জুলাই) ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশের আকাশে কোথাও মহররম মাসের চাঁদ দেখা গেলে তা ০২-২২৩৩৮১৭২৫, ০২-৪১০৫০৯১২, ০২-৪১০৫০৯১৬, ০২-৪১০৫০৯১৭ টেলিফোন ও ০২-২২৩৩৮৩৩৯৭, ০২-৯৫৫৫৯৫১ ফ্যাক্স নম্বরে বা সংশ্লিষ্ট জেলার জেলা প্রশাসক (ডিসি) বা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে (ইউএনও) জানানোর অনুরোধ জানিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।


আরও খবর
রাজধানীতে তাজিয়া মিছিল শুরু

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪

আজ পবিত্র আশুরা

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪




৭২ ঘণ্টার মধ্যে সিলেট-সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি অবনতির শঙ্কা

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৯ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বৃষ্টিপাত কমায় গত কিছুদিন ধরে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদ-নদীর পানি ক্রমাগতভাবে কমে বন্যা পরিস্থিতি প্রায় স্বাভাবিক হয়ে এসেছিল। কিন্তু আগামী ৭২ ঘণ্টায় দেশের অধিকাংশ জায়গায় ভারী বর্ষণে সিলেট-সুনামগঞ্জে ফের বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার (২৮ জুন) বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র এ তথ্য জানিয়েছে।

এতে বলা হয়, ব্রহ্মপুত্র-যমুনা নদ-নদীর পানির সমতল স্থিতিশীল আছে, যা আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। গঙ্গা-পদ্মা নদীর পানির সমতল বাড়ছে, যা আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

আবহাওয়া সংস্থাসমূহের তথ্য অনুযায়ী, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও তৎসংলগ্ন উজানে আগামী ২৪ ঘণ্টায় মাঝারি থেকে ভারী এবং আগামী ৪৮ থেকে ৭২ ঘণ্টায় ভারি থেকে অতিভারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে। ফলে এ সময় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের নদী সমূহের পানিসমতল বৃদ্ধি পেতে পারে।

এ ছাড়া আগামী ৪৮ থেকে ৭২ ঘণ্টায় উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সুরমা, কুশিয়ারা, পুরাতন-সুরমা, সারিগোয়াইন নদীর পানিসমতল দ্রুত বৃদ্ধি পেয়ে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার কতিপয় নিম্নাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদী বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে পারে।

এদিকে, শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এবং তৎসংলগ্ন উপকূলীয় এলাকায় লঘুচাপ বিরাজ করছে। মৌসুমি বায়ুর অক্ষ বিহার, কেন্দ্রস্থল এবং বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল হয়ে উত্তর-পূর্ব দিকে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরের অন্যত্র প্রবল অবস্থায় রয়েছে।

এ অবস্থায় রংপুর, ময়মনসিংহ, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং ঢাকা, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের অনেক জায়গায় বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও ভারী বর্ষণ হতে পারে।


আরও খবর



ভোলার মেঘনা নদীতে ড্রেজার ডুবে ৫ শ্রমিক নিখোঁজ

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ভোলা প্রতিনিধি

Image

ভোলার মধ্য মেঘনায় বালু কাটার ড্রেজারসহ ৫ শ্রমিক নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। নিখোঁজরা হলেন, হারুন (৫৫), আরিফ (২৪), সিয়াম (২২), নুরুদ্দিন, (৩৫) ও তানজিল (২২) এদের বাড়ি ভোলার সদর উপজেলার পাঙ্গাশিয়া ৬ নং ওয়ার্ড বলে জানা যায়।

এঘটনায় নৌ-পুলিশ এবং ভোলা ও বরিশালের ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিটের ডুবুরিরা উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মধ্য মেঘনার গাজীপুর নামক চর সীমানায় বালু মহালে বালু উত্তোলনের জন্য গত কয়েকদিন ধরে ৪টি ড্রেজার বালু কাটছিলো। কিন্তু আফসানা নামের ড্রেজারটি ডুবন্ত চরে পাইপ দিয়ে বালু কাটার সময় তাদের পইপ আটকে যায়। দুদিন ধরে চেষ্টা চালিয়েও পাইপটি উঠাতে পরেনি। সোমবার গভীর রাতে আরো অপর তিনটি ড্রেজার একই স্থানে পাশাপাশি থাকে এবং ভাটির কারণে ওই ড্রেজারে থাকা শ্রমিকেরা রুম আটকিয়ে ঘুমিয়ে পরে। ভোর হলে অপর তিনটি ড্রেজারের শ্রমিকরা দেখতে পায় আফসানা নামের ড্রেজারটি ওখানে নেই। পরে তারা বিভিন্ন জনের কাছে ফোন দিয়ে কোনো হদিস না পেয়ে তাদের পরিবারের কাছে ফোন দিলে ওই পরিবারের লোকজন ইলিশা তালতলী ঘাটে এসে আহাজারি করে। এ খবর পেয়ে নৌ-পুলিশসহ ভোলা ও বরিশালের ফায়ার সার্ভিসের দুইটি টিম ঘটনাস্থলে এসে ড্রেজারটি অবস্থান চিহ্নিত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে ড্রেজারে থাকা শ্রমিকদের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনরা তালতলী ঘাটে এসে বিভিন্ন ট্রলারে করে মধ্য মেঘনায় গিয়ে নিখোঁজ ব্যক্তদের খুঁজছেন।

এ বিষয়ে ভোলা নৌ-পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বিদ্যুৎ কুমার আজকের দর্পণকে জানান, বরিশালের ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি ও কোস্টগার্ডের সদস্যসহ আমরা ড্রেজারটির খোঁজে কাজ করে যাচ্ছি। তীব্র স্রোতের কারণে উদ্ধার তৎপরতা ব্যাহত হচ্ছে।

ভোলা জেলা পুলিশ সুপার মাহিদুজ্জামান এ বিষয়ে জানান, জেলা পুলিশসহ সকল সরকারি প্রতিষ্ঠানের সাথে সমন্বয় করে উদ্বার কাজ পরিচালনা করা হচ্ছে। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ড্রেজার ও নিখোঁজ ব্যক্তিদের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।


আরও খবর